সর্বশেষ সংবাদ
Home / অপরাধ / ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে রোটেশন বাতিলের দাবি- সাত লঞ্চ মালিকের বিরুদ্ধে যাত্রীর মামলাঃ আদালতে তলব

ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে রোটেশন বাতিলের দাবি- সাত লঞ্চ মালিকের বিরুদ্ধে যাত্রীর মামলাঃ আদালতে তলব

ভোলা জেলা সংবাদদাতা 
ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে চলাচলকারী সাত যাত্রীবাহী লঞ্চের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে রোটেশন প্রথা বাতিলের দাবিতে রবিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে লঞ্চযাত্রী ও বিশিষ্ট ঠিকাদার রুহুল আমিন কুট্টি বাদি হয়ে ভোলার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিবাদিগনের বিরুদ্ধে কারন দর্শানোর নোটিশ জারি করেন।
বাদি পক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলী (পিপি) এ্যাডভোকেট কিরন তালুকদার জানান, ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে চলাচলকারী যাত্রীবাহী লঞ্চের রোটেশন প্রথা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। তারা দীর্ঘদিন ধরে রোটেশন প্রথা বাতিলের দাবি জানিয়ে আসলেও কোন আমলে নেননি প্রভাবশালী লঞ্চ মালিকরা। সরকারের নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে দীর্ঘদিন ধরে রোটেশনের মাধ্যমে ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে লঞ্চ চালাচ্ছেন প্রভাবশালী লঞ্চ কর্তৃপক্ষ। ফলে বাধ্য হয়ে যাত্রীদের পক্ষে লঞ্চযাত্রী ও বিশিষ্ট ঠিকাদার রুহুল আমিন কুট্টি বাদি হয়ে জাষ্টিজ অব দ্যা পিচ ফৌজদারী কার্যবিধির ২৫ ধারায় ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে চলাচলকারী সাত যাত্রীবাহী লঞ্চ কর্নফুলী-৯, কর্নফুলী-১০, কর্নফুলী-১১, গ্লোরী অব শ্রীনগর, এমভি বালিয়া, এমভি ভোলা ও ক্রিষ্টাল ক্রুজের মালিকের বিরুদ্ধে ভোলার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালতের বিচারক চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আখতারুজ্জামান মামলাটি আমলে নিয়ে বিবাদিগনের বিরুদ্ধে আদালতে তলব করে কারন দর্শানোর নোটিশ জারির আদেশ দেন।
মামলায় বাদি আরো জানান, ভোলা-ঢাকা নৌ-রুটে প্রতিদিন ৪টি করে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল করার নিয়ম থাকলেও প্রভাবশালী লঞ্চ কর্তৃপক্ষ সাধারণ যাত্রীদের জিম্মি করে প্রতিদিন ২টি করে যাত্রীবাহী লঞ্চ চালাচ্ছে। এ ছাড়া লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে। এবং যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করে থাকে। এমনকি সাধারণ যাত্রীরা কেবিনের বুকিং দিলেও লঞ্চ কর্তৃপক্ষ অনেক সময়ে সেই কেবিন অন্যজনকে দিয়ে দেন বলেও বাদি জানান।

ভোলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ভোলা থেকে রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য জেলার সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হলো নৌ-পথ। এ সুযোগে ভোলার লঞ্চ মালিকরা রোটেশনের নামে যাত্রীদের জিম্মি করে অবৈধভাবে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। ব্যবসায়ীরা রোটেশনের কারণে নিয়মিত পণ্য আমদানি-রফতানি করতে না পারায় ভোলায় সব সময়ই দ্রব্যমূল্য বেশি থাকে। লঞ্চ মালিকদের স্বেচ্ছাচারিতার কারণে রোগীরা পর্যন্ত নিরাপদে যাতায়াত করতে পারে না। এ কারণে বহুবার ভোলার প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলী (এপিপি) সোয়েব হোসেন মামুনসহ প্রায় ৭ আইনজীবী বাদির পক্ষে আদালতে উপস্থিত ছিলেন এবং মামলা পরিচালনা করেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ফরিদগঞ্জের ধানুয়ায় দুর্গা পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে এলেন সুজিত রায় নন্দী বেশ ধুমধাম আয়োজনে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হলো দুর্গোৎসব

নিজস্ব সংবাদাতা ধুমধাম আয়োজনে সবার মঙ্গল কামনায় এবার ফরিদগঞ্জের ছোট ধানুয়া দাসপাড়া ...