সর্বশেষ সংবাদ
Home / মুক্তমত / দ্বন্ধ মিটিয়ে ঐক্য না হলে এবার ক্রোধের আগুনে ঘি ঢালবে ।দ্বন্ধ মিটিয়ে ঐক্য না হলে এবার ক্রোধের আগুনে ঘি ঢালবে । পৌরসভা নাকি ইউনিয়নের বাসিন্দাই হচ্ছেন আবার এমপি    

দ্বন্ধ মিটিয়ে ঐক্য না হলে এবার ক্রোধের আগুনে ঘি ঢালবে ।দ্বন্ধ মিটিয়ে ঐক্য না হলে এবার ক্রোধের আগুনে ঘি ঢালবে । পৌরসভা নাকি ইউনিয়নের বাসিন্দাই হচ্ছেন আবার এমপি    

এমকে মানিক পাঠান: আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পৗরসভা নাকি ইউনিয়নের  বাসিন্দাই হচ্ছেন আবার এমপি ।এবারো কি ফরিদগঞ্জের ১৬ নং (দক্ষিন) রুপসা ইউনিয়নের বাসিন্দাই এমপি নির্বাচিত হয়ে বিগত সময়ের মত আবারো ওই ইউনিয়নকে আলোকিত করবেন ? এমন প্রশ্ন উঠছে ফরিদগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায়। দুই দলেই উপেক্ষিত নেতাকর্মীদের মধ্যে মুখে মুখে ঐক্যর আহবান জানালেও উপেক্ষিত নেতাকর্মীদের মধ্যে ঐক্যর কোন সুবাতাস লক্ষ্য করা যায়না।

এতে করে দ্বন্ধ মিটিয়ে  ঐক্য না হলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্রোধের আগুনে ঘি ঢালবে বলে দলের উপেক্ষিত ও ক্ষুদ্ধ নেতাকমর্াীরা জানিয়েছে। ফলে আগাম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীর জয় নাকি পরাজয় অপেক্ষা করছে তা সময়ই বলে দিবে। ফেস বুকে  ফরিদগঞ্জের আওয়ামীলীগ ও বিএনপির উপেক্ষিত নেতাকর্মীদের নামের আইডিতে তাদের  ক্রোধের মন্তব্যে পড়লেই পড়লেই বুঝা যাচ্ছে তারা দলের মধ্যে অনেকটাই উপেক্ষিত ও অবমূল্যায়িত হয়ে আসছে।

দলীয় সুত্র ও এলাকাবাসীরা জানায়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডঃ মোহাম্মদ শামছুল হক ভুঁইয়া আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন পায়নি। দলের মনোনয়ন না পেলেও ওই সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন তিনি । সে সময় মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টির মাইনৃুলের দাখিল করা মনোনয়ন পত্রের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে দায়ের করা এক মামলার রায়ের  প্রেক্ষিতে তার মনোনয়ন বাতিল হয়ে যায়। ফলে এ নির্বাচনে অন্য কোন প্রার্থী না থাকার সুবাদে বিনা ভোটে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন ডঃ মোহাম্মদ শামছুল হক ভুইয়া।

পরে আওয়ামীলীগের এমপি হিসেবে ডঃ মোহাম্মদ শামছুল হক ভুইয়া নাম সরকারী গেজেটে অর্ন্তভুক্ত হয়েছে।  একই ইউনিয়নের বাসিন্দা বিগত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও ওই ইউনিয়নেরই বাসিন্দা লায়ন হারুনুর রশিদ এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই সময়ে হাজিগনঞ্জে আয়োজিত এক নির্বাচনী সভায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাত থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে ধানের শীষ প্রতীক হাতে নিয়ে নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী সাংবাদিক শফিকুর রহমানকে হারিয়ে ভোটের মাধ্যমে বিএনপি থেকে এমপি নির্বাচিত হন।

এর পরের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডঃ শামছুল হক ভুঁইয়া বিনা প্রতিন্ধীতায় এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।      তবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৬ নং রুপসা ইউনিয়নেরই ৩ শক্ত প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন পেতে এলাকায় দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহনের পাশাপাশি ব্যাপক গনসংযোগ করছেন। দলের হাইকমান্ডের সাথেও যোগাযোগ অব্যহত রেখেছে।

এই তিন প্রার্থী হলেন , বর্তমান এমপি জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ডঃ শামছুল হক ভুইয়া, বিএনপির সাবেক এমপি লায়ন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি লায়ন হারুনুর রশিদ ও বিএনপি সমর্থিত ঢাকা ট্যাক্সেস বার এসোসিয়নের সাবেক সভাপতি এডভোকেট আব্বাছ উদ্দীন। তবে ডঃ শামছুল হক ভুইয়া এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর তার আন্তরিক প্রচেষ্টায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ ,শিক্ষা ও রাস্তাঘাট সহ ব্যাপক উন্নয়নের ফলে এবার তার নির্বাচনী এলাকায় একটি শক্তিশালী বলয় তৈরী হয়েছে বলে তার অনুসারীরা দাবি করছে।

এ ছাড়াও ডঃ শামছুল হক ভুইয়ার নের্তৃত্বে ফরিদগঞ্জের আওয়ামীলীগ অনেক আগে থেকেই সুসংগঠিত বলে মনে করছেন এমপির অনুসারী নেতাকর্মীরা।     এদিকে এবার দলীয় মনোনয়ন পেতে পৌর এলাকায় রয়েছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির দুই শক্ত প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী । এর মধ্যে সক্রিয় ভাবে কাজ করছেন এলাকায় বিএনপির দুঃ সময়ের কান্ডারী হিসেবে পরিচিত ফরিদগঞ্জ পৌর এলাকার বাসিন্দা উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক বিএনপির কার্র্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোতাহার হোসেন পাটওয়ারী।

পৌর এলাকারই আরেক বাসিন্দা আওয়ামীলীগের সাবেক এমপি পুত্র জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমানও বসে নেই। রোমানের মরহুম বাবা সাবেক এমপি এডভোকেট সিরাজুল ইসলামের আদর্শ ধারন করে তারই ছেলে রোমান বর্তমানে কোন পদ পদবী না থাকলেও নিজের ব্যক্তিত্ব ও নের্তৃতের¡ প্রতি আস্থা  রেখে যুব সমাজ উঠেপড়ে লেগেছে। রোমানকে নিয়ে দলের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের সাথে বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে ফরিদগঞ্জে নুতন এক জাগরন সৃষ্টি করেছে। এলাকায় রোমানের পক্ষে তৈরী হয়েছে ব্যতিক্রমী এক জনপ্রিয়তা।

এ ছাড়াও আওয়ামীলীগ থেকে ডঃ শামছুল হক ভুইয়ার মনোনয়ন যদি নিশ্চিত না হয় তাহলে এই দল ফরিদগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা প্যেরসভারই বাসিন্দা আবুল খায়ের পাটওয়ারী ও সাধারন সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান ও দুবারের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ৯নং গেবিন্দপুর (উত্তর) ইউনিয়নের বাসিন্দা আবু সাহেদ সরকার দলের মনোনয়ন চাইবেন বলে তাদের শুভাকাংক্ষি নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন । একই ভাবে বিএনপি থেকে যদি সাবেক এমপি লায়ন হারুনুর রশিদের মনোয়ন নিশ্চিত না হয় তাহলে উপজেলা বিএনপির ত্যাগী ও ছাত্রদলের সাবেক তুখোড় নেতা ১০ নং গোবিন্দপুর (পশ্চিম) ইউনিয়নের বাসিন্দা উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক শরীফ মো ইউনুছ  সম্ভ্যাব্য প্রার্থী হিসেবে  মনোনয়ন চাইতে পারেন বলে জানা গেছে।

অপরদিকে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে কয়েকটি ইউনিয়নের বাসিন্দা হিসেবে সক্রিয় ভাবে দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচী নিয়ে মাঠে যাদেরকে দেখা যায়, তারা হচ্ছে ২নং বালিথুবা (পূর্ব)  ইউনিয়নের বাসিন্দা বিশিষ্ট  সাংবাদিক শফিকুর রহমান। গত দ-ুবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শফিকুর রহমান আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেলেও নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর সাথে হেরে যান । তবে আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক শফিকুর রহমানের সখ্যতা ও আস্থাভাজন হওয়ার  সুবাদে তিনিও এবার মনোনয়ন নিশ্চিত করতে তার প্রচেষ্টা অব্যহত রেখেছে বলে তার অনুসারী নেতাকর্মীরা জানিয়েছে।

একই ইউনিয়নের বাসিন্দা বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেংগল মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। ১নং বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়নের বাসিন্দা চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রলীগের সাবেক ভিপি জেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাক্তার হারুনুর রশিদ সাগর তার ব্যক্তি ইমেজ ও জনগনের মাঝে স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে  দলের হাইকমান্ডের কাছে একটি ভিত্তি তৈরী করেছেন বলে তার অনুসারীরা দাবী করছে। তবে দলের নেতাকর্মীদের সাথে  সক্রিয় ভাবে মাঠে না থাকলেও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আরো কয়জন বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে তাদের নাম প্রচার করে দলের মধ্যে নিজের অবস্থান তৈরী করতে চাইছেন।

অপরদিকে ৪নং সুবিদপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা শিল্পপতি ও সমাজ সেবক আলহাজ্ব এম এ হান্নান  ইতিপূর্বে দলের শৃংখলা ভংগের অভিযোগে বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত নেতা এম এ হান্নান। তিনি একবার বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেয়ে তার মনোনয়ন পত্র দাখিলের পর  যাচাই বাছাইতে ওই মনোনয়ন বাতিল করেন নির্বাচন কমিশন।

এই নেতা চলতি মাসের ১৩ জানুয়ারী সাবেক মেয়র মনজিল হোসেনের বাড়িতে আয়োজিত এক সভায়  আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইবেন। বিএনপি থেকে যদি মনোনয়ন নাও পান তাহলেও নিজেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে  ঘোষনা দিয়ে আগাম  ১০৪টি ভোট কেন্দ্র কমিটি করার মাধ্যমে এমপি হওয়ার জন্য তার অনুসারী নেতাকর্মীদের নিয়ে কাজ শুরু করেছন। তবে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে এম এ হান্নান এখন দলের পক্ষে কাজ করছেন বলে তিনি দাবী করে সমাবেশে বক্তব্যও দিয়েছেন।

তবে নির্বাচনী দৌড়ে দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে কে এগিয়ে কে পিছিয়ে তা এ মুহুর্তে বলা সম্ভব নয়। তবে উপেক্ষিত নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্ধ মিটেয়ে ঐক্য না হলে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির উপেক্ষিত নেতাকর্মীদের কেউ কেউ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্রোধের আগুনে ঘি পড়ার মত অবস্থা সৃষ্টি করবে  বলে বৃহৎ দুই দলের  নেতাকর্মীরাই জানিয়েছে। এতে করে ইউনিয়ন কিংবা পৌরসভার যে কোন শক্তিশালী প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীর জয় অনিশ্চিত হওয়ার সম্ভাবনাটাই বেশী বলে আশংকা রয়েছ্।ে

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

৩ নং কল্যাণপুর ইউনিয়ন অাওয়ামী যুবলীগ এর ৩ ও ৯ নং ওয়ার্ডের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে দীপু অাপা প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেছেন বলেই এতো জনপ্রিয়—হুমায়ন কবির সুমন

এমএম কামালঃ চাঁদপুর সদর উপজেলা যুবলীগ অাহ্বায়ক,মাটি ও মানুষের নেতা হুমায়ন কবির ...