সর্বশেষ সংবাদ
Home / অপরাধ / আশুলিয়ায় হাতে নাতে আটক করা হলেও রহস্যজনক কারনে ছেড়ে দেওয়া হলো আসামী!

আশুলিয়ায় হাতে নাতে আটক করা হলেও রহস্যজনক কারনে ছেড়ে দেওয়া হলো আসামী!

ঢাকা জেলা প্রতিনিধিঃ শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় বাসা-বাড়িতে অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার সময় দুজনকে হাতে-নাতে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে অবৈধ গ্যাস সংযোগে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে আশুলিয়ার পলাশবাড়ি বাথানটেক এলাকা থেকে পুলিশ তাদের আটক করে। আটককৃত দুজন হলেন স্বপন ও রাজ্জাক। আটককৃত স্বপন আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকার হাজী আব্দুর রশিদের ছেলে এবং অপরজন তারই বাড়ীর ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক। তবে আটকের তিন ঘন্টা পর রহস্যজনক কারনে আসামী ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আশুলিয়া থানার এসআই ফারুক হোসেন (বিপি নাম্বার-৭৭৯৬০২২৫৫৪) এর বিরুদ্ধে।

এলাকবাসী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকায় হাজী আব্দুর রশিদের বাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া হচ্ছিল। এ সময় বিষয়টি থানায় জানানো হলে এসআই ফারুক ঘটনাস্থলে পৌঁছে রাজ্জাক ও স্বপন নামের দু’জনকে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়ার বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

এবিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন এর কাছে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এধরনের কাউকে আটক করিনি। “আপনি কোথা থেকে জেনেছেন “ আপনাকে কে বললো”? এসময় এই প্রতিবেদককে তিনি এমন প্রশ্ন ছুড়ে দেন এবং তৎক্ষণাৎ মোবাইল ফোনের সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেন।
এদিকে এরই কিছুক্ষন পর আশুলিয়া থানার ডিউটি অফিসারের কক্ষে গিয়ে দেখা যায় রেজিস্ট্রার খাতায় স্বপন ও রাজ্জাকের নাম আটককৃতদের তালিকায় লিপিবদ্ধ করা হলেও কলম দিয়ে তা কেটে দেয়া হয়েছে।

এসময় থানার ডিউটি অফিসার এএসআই উম্মে কুলসুম লিপির কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসআই ফারুক স্যার স্বপন ও রাজ্জাক নামের দুজনকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছিলো। কিছুক্ষন আগে আপোষ-মীমাংসা করে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। কার সাথে আপোষ মীমাংসা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ফারুক স্যারের সাথে কথা বললে এবিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

এসআই ফারুক হোসেন এর কাছে পুনরায় মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একবার তো আপনাকে বলেছিই এধরনের কোন ব্যক্তিকে আমি আটক করিনি। এ কথা বলেই পূর্বের ন্যায় তিনি ফোন কলটি কেটে দেন।
এ বিষয়ে ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাইদুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনাদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলাম। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উল্লেখ্য, গত দুই মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে বিনা কারণে আটক করার পর তার দেহ তল্লাশি করে কোন কিছু না পেয়ে অবশেষে ৩০ (ত্রিশ) টাকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দেয় এই পুলিশ কর্মকর্তা। এছাড়া তার বিরুদ্ধে গ্রেফতার বাণিজ্য করা সহ রয়েছে অসংখ্য অভিযোগ।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পুলিশ সুপার জিহাদুল কবিরের প্রেস ব্রিফিং হাজীগঞ্জে নাছরিন আক্তার রিবা হত্যা কা-ের রহস্য উন্মোচন স্বামী ও ছোট বোন আটক

মানিক দাস ॥ চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার ৯ অক্টোবর রাতে কলেজ ছাত্রী ...