সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / রায়পুরে নৌকার পক্ষে গনসংযোগে এগিয়ে পাপুল

রায়পুরে নৌকার পক্ষে গনসংযোগে এগিয়ে পাপুল

নুরুল আমিন ভূঁইয়া দুলাল, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি ঃ

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) আসনে রাজনীতিতে ততই নতুন মাত্রা যোগ হচ্ছে। রাজনৈতিক নেতাদের কাছে কদর বেড়েছে তৃণমূল কর্মীদের। তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে তৎপর হয়ে উঠেছেন নেতাকর্মীরা। আ’লীগ মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতাদের মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সাবেক এমপি হারুনুর রশিদ, কুয়েত আ’লীগ নেতা , বঙ্গবন্ধু স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও এনআরবি ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ- স্বাচীপ নেতা এহসানুল কবির জগলুল, আ’লীগের লক্ষ্মীপুর জেলা সাধারন সম্পাদক এড. নুরুউদ্দিন চৌধুরী নয়ন। বিএনপি মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছে সাবেক এমপি আবুল খায়ের ভূঁইয়া, খালেদা জিয়ার সাবেক নিরাপত্তা সহকারী অব: কর্ণেল আবদুল মজিদ। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী মধ্যে রয়েছেন বর্তমান সাংসদ মোহাম্মদ নোমান, জাতীয় পার্টি নেতা শেখ শিপন। এছাড়া জামায়াতের একক স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন লক্ষ্মীপুর জেলা জামায়াতের আমির মাষ্টার রুহুল আমিন ভূঁইয়া।

তৃণমূল আ’লীগের একটি অংশ মনে করে মনোনয়ন প্রত্যাশী হারুনুর রশিদের ব্যাক্তি ইমেজ নৌকা প্রর্তীকের জয়ের ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখাতে পারে, আর নৌকা টিকেট প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতাই অন্যতম কারন হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করেন রাজনৈতিক পর্যাবেক্ষক মহল। এবারও তিনি নৌকার টিকেটের জন্য এলাকায় গনসংযোগ করে যাচ্চেন। এদিকে স্বাচীপ নেতা এহসানুল জগলুল একজন স্বজ্জন ব্যাক্তি হিসেবে এলাকায় পরিচিত। আ’লীগের নির্বাচনী মনোনয়ন দৌঁড়ে তিনিও পিছিঁয়ে নেই। তিনি বিভিন্ন ইউনিয়নে বিনামূল্যে হত-দরিদ্রদের চিকিৎসা সেবা ক্যাম্প ও গনসংযোগ করে যাচ্ছেন।

এই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন কুয়েত আ’লীগের আহবায়ক, কুয়েত বঙ্গবন্ধু স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা এনআরবি কর্মাশিয়াল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল। তিনি বিভিন্ন মানবিক ও সামাজিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে তৃণমূল নেতাকর্মী ও পেশাজীবিদের মাঝে ইতিবাচক ইমেজ তৈরীতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছেন। সাধারন ভোটার ও নেতাকর্মীরা অনেক মনে করেন এ আসনে নৌকার বিজয়ের লক্ষ্যে পাপুলের মত শিক্ষিত ও মানব হিতৈষী প্রার্থীর প্রয়োজন আছে। ইতোমধ্যে পাপুলের ব্যাপক গনসংযোগে ভোটারদের মাঝে তার পক্ষে বিপুল সাড়া ফেলেছে। রায়পুর আ’লীগের সহযোগী সংগঠনের বেশিরভাগ নেতাকর্মী পাপুলকে একজন যোগ্য নেতা হিসেবে মনে করেন। তিনি রায়পুর আ’লীগকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে বিগত দিনে প্রতিটি ইউনিয়নে উঠান বৈঠক থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যায়ে দলীয় অফিস স্থাপন করে এলইডি টিভিসহ সকল আসবাবপত্র ও অফিস তত্বাবধানের জন্য মাসিক খরচ দিয়ে আসছেন। তিনি তৃণমূল নেতাকর্মী ও শীতার্থ অসহায় মানুষের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গি, শীতবস্ত্র, সেলাই মেশিন, বাই-সাইকেল বিতরণ এবং রায়পুরে বিভিন্ন ধর্মীয় উপসনালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে কোটি কোটি টাকা সহায়তা দিয়ে আসছেন। এছাড়াও তিনি রায়পুর থানায় পুলিশের কর্মকান্ড গতিশীল করার লক্ষ্যে একটি পিকআপ ভ্যান, লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশের জন্য অত্যাধুনিক এ্যাম্বুলেন্স ও রায়পুর পৌরবাসীর শীতাতপ নিয়ন্ত্রীত এ্যাম্বুলেন্স প্রদান করেন।

কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল বলেন, দেশরতœ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) আসনে যাকেই নৌকার মনোনয়ন দেন আমি প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তার পক্ষেই কাজ করবো। আমি রায়পুরের মানুষকে দিতে এসেছি, নিতে নয়। আমি অতিতের মত ভবিষ্যতেও রায়পুরের মানুষের ভাগ্যে উন্নয়নে কাজ করে যেতে চাই।

জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক এড. নুরুউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, দলকে শক্তিশালী ও সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে আমি জেলাব্যাপী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড প্রতিনিয়ত সভা-সমাবেশের মাধ্যমে জনগনের মাঝে তুলে ধরেছি । বর্তমান সরকারের অসমাপ্ত উন্নয়ন কর্মকান্ডকে এগিয়ে নেওয়া ও নৌকার বিজয়ের লক্ষ্যে আমি এ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।
রায়পুর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র ইসমাইল হোসেন খোকন বলেন, কাজী শহীদুল ইসলাম পাপুল দীর্ঘদিন ধরে রায়পুর উপজেলা আ’লীগকে তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু করে নেতাকর্মীদের পুন:জ্জীবিত করে দলকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ও অসহায় মানুষের পাশে থেকে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। রায়পুরবাসী আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে দেখতে চায়।

বিএনপির প্রার্থী আবুল খায়ের ভূঁইয়া বলেন, লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) বিএনপির দূর্গো হিসেবে পরিচিত। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে এ আসনে বিএনপির বিজয় নিশ্চিত।
জাতীয়পার্টির বর্তমান এমপি মোহাম্মদ নোমান বলেন, জাতীয়পার্টি আগের চেয়ে বর্তমানে অনেক শক্তিশালি। আমি এলাকায় সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে জনগনের মাঝে পৌঁছতে পেরেছি। এবারও মহাজোট থেকে আমাকে মনোনয়ন দিলে বিজয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদি।
জামায়াতের জেলা আমির মাষ্টার রুহুল আমিন ভূঁইয়া বলেন, জাময়াত ইসলামীর নিবন্ধন নির্বাচন কমিশন কর্তৃক বাতিল হলেও একাদশ সংসদ নির্বাচনের জন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চাঁদপুর-২ আসনে প্রার্থী বেশি মতলব উত্তর উপজেলায়

মতলব প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর-২ আসন থেকে দেশের বড় দুই ...