সর্বশেষ সংবাদ
Home / লাইফস্টাইল / পিরিয়ড বিব্রতকর!

পিরিয়ড বিব্রতকর!

লাইফস্টাইল ডেস্ক |
আমাদের দেশে মেয়েদের পিরিয়ডের বিষয়টিকে বেশ লজ্জার বিষয় হিসেবে দেখা হয়। মেয়েরা তাদের বাবা-মা, ভাই বা পরিবারের অন্য সবাইকে এ বিষয়ে জানাতে লজ্জাবোধ করেন। টিভিতে যখন কোনো ন্যাপকিনের অ্যাড দেখানো হয় তখন সেই চ্যানেল বদলানো হয়।

পরিবারের বড়রাও মেয়েদের পিরিয়ড নিয়ে খুব একটা কিছু বলেন না। যার ফলে ১১-১২ বছরের একটা বাচ্চা মেয়ের জন্য পিরিয়ডের প্রথম ‍অভিজ্ঞতা হয়, ভয়াবহ ও বিব্রতকর।

গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. মনোজ্ঞ চিত্রলেখা কুণ্ড বলেন, নারীদের পিরিয়ড নিয়ে আমাদের সবার মধ্যে একটা সংকোচ কাজ করে। আর এই সংকোচের কারণে নারীরা এ সময়ে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধিগুলো এড়িয়ে চলেন। যার ফলে সার্ভিক্যাল ইনফেকশনের মতো নানা ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকির সম্মুখীন হচ্ছেন।

প্রথম দিকের সময়গুলো সামলে ওঠার পরও নারীর শরীরে পিরিয়ড কেন্দ্রিক নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে। আর এর অন্যতম হচ্ছে অনিয়মিত পিরিয়ড ও অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ।

এসব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে প্রথমেই প্রয়োজন সচেতনতা। পরিবারসহ সবার সহানুভুতিশীল দৃষ্টিভঙ্গি। প্রতিটি মেয়েকেই জীবনের এই সময়টা পার করতে হয়। তাদের শারীরিক ও মানসিক নানা পরিবর্তন ঘটে থাকে এই সময়ে। অনেকের মেজাজ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়, কেউ কেউ একেবারেই খেতে পারেন না।

• নারীদের আরও একটি বড় শারীরিক সমস্যা হচ্ছে রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কম থাকা। যার জন্য পিরিয়ড চলার সময় তারা অনেক দুর্বল হয়ে যান।

• ইনফেকশন এড়াতে এসময়ে কাপড়, তুলা, টিস্যু নয় ব্যবহার করতে হবে স্বাস্থ্যসম্মত সেনিটারি ন্যাপকিন।

• লক্ষ্য রাখতে হবে প্রতিদিনের খাবারেও। প্রচুর শাক-সবজি, ফল, বাদাম, মটরশুটি ও শস্যদানা খেতে হবে। নিয়মিত ডাল, ডিম, দুধ, কলিজাও খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

• পিরিয়ড হলে শুধু বিছানায় শুয়ে কাটানোর কোনো প্রয়োজন নাই। এটা খুবই স্বাভাবিক প্রক্রিয়া তাই নিয়মিত কাজগুলো করতে হবে।

• বাড়তি ওজন অনিয়মিত পিরিয়ডের জন্য অনেকটা দায়ি, তাই ওজন ঠিক রাখতে নিয়মিত হাঁটাচলা করুন।

• কারণ সঠিক ওজন হরমোনের ভারসাম্য রক্ষা করে ও মাসিক ঋতুচক্র সুষ্ঠুভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

অনেকের পিডিয়ডের সময় পেটে ব্যথা হয়, একটি সহজ ব্যায়াম করলে উপকার পাওয়া যায়, সেই সঙ্গে অনিয়মিত পিরিয়ডের সমস্যাও কমে আসে। বজ্রাসন একটি সহজ আসন এবং যেকোনো সময়ে করা যেতে পারে। এটিই একমাত্র যোগ ব্যায়াম আসন যা আপনি খাবার খাওয়ার পরেও করতে পারেন।

যেভাবে করবেন:
• প্রথমে কোনো সমতল স্থানে হাঁটু মুড়ে বসুন। এই সময় হাঁটু দুটো জোড়া অবস্থায় থাকবে এবং পায়ের গোড়ালির ওপর নিতম্ব অবস্থান করবে
• এই সময় পায়ের পাতা থেকে হাঁটু পর্যন্ত মাটির সঙ্গে লেগে থাকবে। হাঁটুর ওপর হাত রেখে মেরুদণ্ড সোজা করে দুই মিনিট বসে থাকুন
• শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন।

পিরিয়ড বিষয়ক যেকোনো ধরনের সমস্যায় অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

 

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মাথা ব্যথা হলেই

লাইফস্টাইল ডেস্ক | মাথা ব্যথা হয় না, এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে। ...