সর্বশেষ সংবাদ
Home / বিনোদন / জমে উঠেছে চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা

জমে উঠেছে চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা

মানিক দাস ॥ ১৯৯২ সাল থেকে শুরু হওয়া চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা এ বছর গৌরবের ২৭তম বিজয় মেলা। ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া বিজয় মেলা জমে উঠেছে। চাঁদপুরের ঐতিহ্যবাহী ও ব্যান্ডিং এ মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা। বিগত ২৬ বছরের মতো এ বছরও ২৭তম মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরুতেই জমজমাট হয়ে উঠেছে। এ বছর বিজয় মেলা কর্তৃপক্ষ মেলায় বেশ কিছু নতুনত্ব এনেছে।

এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলে বেস্ট ফিডিং কর্নার। যা বিগত ২৬ বছরেও ্এ মেলার মাঠে ছিল না। মেলা কর্তৃপক্ষ শিশুদের কথা বিবেচনা করে এ কর্নারটি প্রদর্শনী স্টলের দক্ষিন পাশে তৈরি করায় মায়েরা তাদের শিশুদেরকে নিরাপদে খাবার খাওয়াতে পারছে। গত ১ ডিসেম্বর থেকে বিজয় মেলা শুরু হয়েছে। শুরু থেকেই মেলায় দর্শনার্থীদের পদচারণায় মেলা প্রাঙ্গন মুখরিত হয়ে উঠেছে। বিকেল হলেই মেলা মাঠে শিশু কিশোর, তরুণ-তরুণীরা মুখরিত করে রাখছে। এ বছর মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা মাঠে বেশ কিছু নতুনত্ব স্টল এসেছে।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কুমিল্লার বিখ্যাত পিঠাঘর। এই পিঠার দোকানটিতে প্রতিদিন বিকাল হলেই ক্রেতার সমাগম ঘটতে থাকে। এর কারণ হলো চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা মাঠে পিঠার দোকানটি এ বছরই প্রথম এসেছে। তাছাড়া পিঠার দোকানটিতে হরেক রকমের বাহারী পিঠা তৈরি করা হচ্ছে ক্রেতার সামনেই। আর নির্ধারিত দামের মধ্যে পিঠা বিক্রি করা হচ্ছে। সেইজন্য বিকেল ৩টা থেকে শুরু করে রাতে মেলা শেষ হওয়া পর্যন্ত ক্রেতার সমাগম হয়ে থাকে। তাছাড়া বিগত বছরের ন্যায় এ বছরও নারায়নগঞ্জের দেওভোগের সেই বিখ্যাত মুখরোচক খাবার এসেছে আদি লোকনাথ স্টোর। এখানে নিমকি, মুড়ালি, কদমা, বাতাসা, খেলনা, হরেক রকমের আচার, চিপস সহ পূর্বে থেকেই ক্রেতার মন কেড়েছে।

এ বছর তাদের পাশাপাশি নারায়নগঞ্জের বক্তারবলি থেকে একই ধরনের পণ্য নিয়ে এসেছে হাওলাদার স্টোর। দোকান মালিক বিল্লাল হোসেন হাওলাদার জানান, আমরা চাঁদপুর বাসীকে মুখরোচক খাবার দিতে এই প্রথমবার চাঁদপুর বিজয় মেলায় এসেছি। শিশু কিশোরদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন ধরনের খেলনা সামগ্রী ও কসমেটিক্স সামগ্রীর স্টল। এর পাশাপাশি রয়েছে শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে বেশ কয়েকটি ব্লেজার ও উন্নতমানের কম্বল এবং পশমী চাদরের স্টল। নারায়নগঞ্জ, কুমিল্লা, নোয়াখালী, চাটখিল, চট্টগ্রাম, বরিশাল, ঢাকা সহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে প্রায় ৮০টির মতো বাণিজ্যিক স্টল মেলায় এসেছে। খাবার সামগ্রীর মধ্যে লেকেরপাড় চটপটির দোকানটি বেশ কয়েক বছর ধরে চাঁদপুরবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে।

বিজয় মেলা মঞ্চে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মুক্ত আলোচনা হয়ে থাকছে। প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বিজয় মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়ে থাকে। বিজয় মেলায় এ বছর সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করছে মুক্তিযোদ্ধা সাংষ্কৃতিক কমান্ড, আগরতলার ত্রিপুরার সতীশ ইনস্ট্যান্ট শারদ সম্মাননা, বাংলার মুখ সাংষ্কৃতিক সংগঠন, নবজাগরণ সাংস্কৃতিক সংগঠন, রক্সি মিউজিক একাডেমি, বিবেকানন্দ যুব সংঘ, উদীচী হাজীগঞ্জ শাখা, স্বাধীন বাংলা থিয়েটার, বাংলাদেশ হাওয়াইন গীটার শিল্পী পরিষদ, রংধনু সৃজনশীল নৃত্যসংগঠন, দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠন, নৃত্যধারা, স্বপ্নকুড়ি সাংষ্কৃতিক সংগঠন, নটমঞ্চ, চাঁদপুর মঞ্চ, মৃত্তিকা মিউজিক একাডেমি, বঙ্গবন্ধু আবৃতি পরিষদ, শারদা দেবী সংগীত নিকেতন হাজীগঞ্জ, উদয়ন সঙ্গীত বিদ্যালয়, স্বদেশ সাংস্কৃতিক সংগঠন, কচুয়া ঝিলমিল সাংস্কৃতিক সংঘ, নতুন কুড়ি সাংষ্কৃতিক সংগঠন, পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি পুনাক, জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ চাঁদপুর, বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা চাঁদপুর, নৃতাঙ্গন, চাঁদপুর ড্রামা, খেলাঘর জেলা কমিটি,ললিত কলা, সুরধ্বনি সঙ্গীত একাডেমি, শিশু একাডেমি, সঙ্গীত নিকেতন, চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠন, রঙের ঢোল ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি, চাঁদপুর।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

হার্ভার্ডে ডাক পেলেন তনুশ্রী

বিনোদন ডেস্ক মিডিয়া থেকে বেশ অনেকটা দূরে ছিলেন বলিউডের জনপ্রিয় নায়িকা তনুশ্রী ...