সর্বশেষ সংবাদ
Home / Uncategorized / ২৫ বছরের পূর্বে বিয়ে না হলেই বিপদ!

২৫ বছরের পূর্বে বিয়ে না হলেই বিপদ!

অনলাইন ডেস্ক
২৫ বছর বয়সের আগে বিয়ে না হলে যুবক-যুবতীদের জন্মদিনে বেশ অস্বস্তিতে পড়তে হয় ডেনমার্কে। তাদের সারা গায়ে দারুচিনির গুঁড়ো ছড়িয়ে দেওয়া হয়। অনেকে পানিও ছিটিয়ে দেন। যাতে দারুচিনির গুঁড়ো গায়ে লেপ্টে যায়। এটা করতে কারও অনুমতির প্রয়োজন নেই। যেন মনে করিয়ে দেওয়া, এবার তোমার বিয়ের বয়স হয়েছে। ফলে কারও সঙ্গে ঘর বাঁধো।

কথিত আছে, এমন প্রথার শুরুটা হয়েছিল বহু শতক আগে। মশলা বিক্রির জন্য যে সমস্ত সেলসম্যানরা ঘুরে বেড়াতেন চারপাশে, তাদের পক্ষে ঘর-সংসার পাতা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠত। কোনো এক জায়গায় থিতুই যে হতে পারতেন না। এমন অবিবাহিত সেলসম্যানদের ‘পেপার ডুডস’ বলা হত। অবিবাহিতাদের ‘পেপার মেইডেন’নামে ডাকা হত।

‘পেপার ডুডস’ বা ‘পেপার মেইডেন’দের পথে যাতে ডেনমার্কের তরুণ প্রজন্ম না হাঁটেন, সে জন্যই এই প্রথা মানা হয়। যে সব সিঙ্গলদের বয়স ২৫ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে, অথচ সংসারহীন, তাদের গায়ে দারুচিনির গুঁড়ো ছেটানো হয়। তবে তিরিশের কোঠা পেরোলে তাদের জীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। তখন লঙ্কার গুঁড়ো ছেটানো হয় তাদের শরীরে।

শুধু কি লঙ্কার গুঁড়ো, তার সঙ্গে ডিমও ছোড়া হয়। যাতে ডিমের সঙ্গে মাখামাখি হয়ে সারা দেহে লঙ্কার গুঁড়ো আটকে থাকে।

এমনটা করার মধ্যে দিয়ে তাদের যেন ২৫ বছর বয়সের আগেই ঘর বাঁধার বিষয়ে পরোক্ষে উৎসাহিত করা হয়। তবে আবার এটা ভাববেন না যে, ডেনমার্কের সকলেই পঁচিশেই বিয়ে করে বসেন। বরং উল্টোটা। সে দেশে পুরুষদের বিয়ের বয়স গড়ে সাড়ে ৩৪। অন্য দিকে, মহিলারা গড়ে ৩২ বছর বয়সে বিয়ে করেন।

ফলে সে দেশের তিরিশের নীচের সিঙ্গলদের জীবনে স্বস্তি নেই। তবে এটাকে শাস্তি হিসাবে ভাবলে একেবারেই ভুল করবেন। বরং এই চিরাচরিত প্রথার মাধ্যমে সিঙ্গল মানুষজনদের সঙ্গে একটু দুষ্টুমি করাটাই আসল উদ্দেশ্য। সেই সঙ্গে যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেওয়া, যথেষ্ট হয়েছে, এবার একটু থিতু হও!

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কমিশন আস্থার পরিবেশ চায়, বিচারিক হাকিমদের সিইসি

স্টাফ রিপোর্টার : বৈষম্যের ঊর্ধ্বে থেকে রাগ-অনুরাগ প্রশ্রয় না দিয়ে আইনের সুষ্ঠু ...