সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / চাঁদপুর হরিনায় রক্ষক হয়ে ভক্ষকের ভূমিকায় ।। সন্ধ্যা হলেই মেঘনায় জাটকা নিধন

চাঁদপুর হরিনায় রক্ষক হয়ে ভক্ষকের ভূমিকায় ।। সন্ধ্যা হলেই মেঘনায় জাটকা নিধন

স্টাফ রিপোর্টার :
চাঁদপুর সদর উপজেলার ১৩ নং হানারচর ইউনিয়নের হরিনা ফেরিঘাট এলাকায় দুটি খালে বিকেল হলেই চলে জেলেদের জাল ও নৌকা নিয়ে প্রস্তুতি।
সন্ধ্যা হলেই বেরিয়ে পড়ে মেঘনা নদীতে জাটকা নিধনের প্রতিযোগিতা।
চাঁদপুর হরিনা নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সামনে এভাবে প্রকাশ্যে শত শত জেলে নৌকা জাটকা ইলিশ নিধন করায় জনগণের মনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

রক্ষক হয়ে ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া হরিনা নৌ পুলিশের এসআই গিয়াস উদ্দিনের ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরেন স্থানীয়রা।
মার্চ এপ্রিল দুই মাস মেঘনা নদীতে জাটকা ইলিশ রক্ষায় সকল ধরনের জাল ফেলা বন্ধ ঘোষণা করেছেন সরকার।
জাটকার এই দুই মাসেই লক্ষ লক্ষ টাকা জেলেদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়ার সুবর্ণ সুযোগ হয় নৌ পুলিশের।
এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে হরিনা নৌ পুলিশের এসআই গিয়াস উদ্দিন শতাধিক জেলেদের টোকেন দিয়ে টাকার বিনিময় মেঘনা নদীতে মাছ ধরার অনুমতি দেন।
এই এস আই গিয়াস উদ্দিনের রয়েছে বিশাল এক সিন্ডিকেট চক্র। তার এই চক্রের মাধ্যমে প্রতিটি জেলের কাছ থেকে প্রতিদিন ৭০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করছে।
লোক দেখানো অভিযানের পূর্বেই নদীতে থাকা জেলেদের ফোন করে সতর্ক করে দেন।
নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সংলগ্ন হরিনা খাল নন্দীগো খালের ভিতর প্রতিদিন শত শত জেলে নৌকা অবস্থান করে অবৈধ নিষিদ্ধ ঘোষিত কারেন্ট জাল নৌকায় সাজিয়ে মাছ ধরার জন্য প্রস্তুতি নেয়।
সন্ধ্যার পরেই এই দুটি খাল থেকে জেলে নৌকা বেরিয়ে এসে মেঘনা নদীতে প্রতিযোগিতা দিয়ে জাটকা ইলিশ নিধন করে। আর এসব জেলেদের মেঘনা নদীতে মাছ ধরার জন্য শেল্টার দেয় নৌ পুলিশের এসআই গিয়াস উদ্দিন।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, নৌ পুলিশের এসআই গিয়াস উদ্দিন এই এলাকায় রাম রাজত্ব কায়েম করে আসছে।
তার নেতৃত্বেই মেঘনা নদীতে বিভিন্ন মাল বোঝাই ট্রলার ও কার্গো থেকে চাঁদাবাজি করা হয়। তার নিয়ন্ত্রণে চলে মেঘনা নদীতে জাটকা ইলিশ নিধন।
হরিণা ফেরিঘাট এলাকার বেশ কয়েকজন জেলে জানায়,মার্চ এপ্রিল দুই মাস নদীতে মাছ ধরা বন্ধ থাকলেও নৌ পুলিশের এসআই গিয়াস উদ্দিনের নেতৃত্বে হরিনা চলছে মাছ ধরার মহোৎসব। এই এলাকার প্রায় শতাধিক নৌকা থেকে নৌকা প্রতি প্রতিদিন ৭০০ টাকা করে চাঁদা তুলে দিনে হাজার হাজার টাকা অবৈধ পন্থায় ইনকাম করছে। জেলেরা প্রতিদিনের টাকা হরিণা ফেরিঘাটের আলাউদ্দিনের দোকানে জমা দিয়ে নদীতে যায়। এস আই গিয়াস উদ্দিন আলাউদ্দিনের কাছ থেকে সেই টাকা বুঝে নেয়। যেসব জেলেরা তাকে টাকা দেয় না শুধুমাত্র তাদেরকেই আটক করে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে আসে। এছাড়া এসআই গিয়াস উদ্দিন দুটি স্টিল বডি ট্রলার নিয়ে মেঘনা নদীতে বিভিন্ন মালবাহী নৌযানের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে।
এ ব্যাপারে এস আই গিয়াস উদ্দিন কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হরিনা জেলেদের টাকার বিনিময়ে মাছ ধরার কোন অনুমতি দেয়নি। তারা যাকে টাকা দেয় তাকে আইডেন্টিফাই করে ব্যবস্থা নেন। মেঘনা নদীতে অভিযান করে অনেক জেলে আটক করেছি। যে অপবাদ দিচ্ছে তা সঠিক নয়।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ঘুষ বানিজ্যের ভিডিও প্রকাশ:তদন্ত শুরু,বেপরোয়া এসআই মিজান ভুক্তভোগীদের নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা

মোঃ সাগর হোসেন,বেনাপোল(যশোর)প্রতিনিধি: বেনাপোল পোর্ট থানার এসআই মিজানের বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্যের ইলেকট্রনিক ...