সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলায়, পালপুর ১নং ডিপ অপরেটরের পানি সেঁচে অবহেলা ও ৭ নং দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে কৃষকের দাবিতে অপরেটর বদল।

রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলায়, পালপুর ১নং ডিপ অপরেটরের পানি সেঁচে অবহেলা ও ৭ নং দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে কৃষকের দাবিতে অপরেটর বদল।

সুটন সরদার বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ,এদেশে ৮০% মানুষ কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে।সাধারন মানুষের কৃষিই মূল আয়ের উৎস। তাই কৃষি সম্প্রসারন ও উন্নয়নে সরকারী ব্যাবস্থায় কৃষি জমিতে পানি সেঁচের জন্য ডিপ খনন ও জমির আইলে ড্রেন ও চেম্বারের ব্যাবস্থা রয়েছে।রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলায় ৭ নং দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন পালপুর মৌজা সন্দিপুর ১ নং ডিপের অপরেটর আতাউল ড্রাইভারের অত্যাচারে অত্যিষ্ট সাধারন কৃষক।

বরাবরই অভিযোগ উঠেছে তার নামে।এক প্রর্যায়ে সকল কৃষক ঐক্যবোধ্য হয়ে, সহকারী প্রকৌশলী, গোদাগাড়ী জোন-২ (কাঁকনহাট),রাজশাহী,১৮/৪/১৯ডিপ পরিচালনায় অনিয়ম সমাধানের জন্য আবেদন করেন। পুনরায় নতুন ডিপ খননের পর ৩০০-৩৫০ বিঘা জমিতে প্রতি বিঘা জমিতে সেঁচ বাবদ ২৫০০থেকে ৩০০০ হাজার টাকা আদায় করে।ডিপ মেরামত যেমন ট্রান্সফর্মা ও মর্টার/কার্ড, মিটার ইত্যাদি মেরামতে যদি ৫০০ বা ১০০০ টাকা খরচ হয়, তখন প্রতি বিঘায় ৪০০ বা ৫০০ টাকা করে তোলে,এবং সেই তোলা টাকা অপারেটর ও ডিপ ম্যানাজার ভাগ করে নেয়।গরীব ও দূর্বলদের জমিতে পানি দেয়না। ডিপের নিকটস্থ জমিতে পানি না দিয়ে টাকার বিনীময়ে অন্য ডিপের আওতায় পানি দেয়।

কৃষকের উপর খারাপ আচরন করে।ও মুখ খিস্তি দিয়ে খারাপ ভাষায় গালি দিয়ে বলে নিজের ও আত্নীয়ের জমিতে আগে পানি দেব ড্রাইভার কেন আছি।এছাড়াও পানি সেঁচ বাবদ মো নজরুল ইসলাম, পিতা লফিত উদ্দিন,মাতা মোসা,লতিফুল বেগম, এর নিকট (৫) পাঁচ বিঘা জমি ১ বছর ভোগ করতে চাই,নইতো পানি দিবে না বলে ব্যাক্ত করে।সঠিক নিয়মে পানি সেঁচ ও পরিমান মতো পানি চাওয়ায় পালপুর মৌজা সন্দিপুর ১নং ডিপের অপরেটর মো আতাউল, মো,ওমর আলী ও মোসা,বাহারুন নেসার ছেলে কৃষক মো,জুয়েল আলী (৪০) কে মারধর করে,এবং বাধাঁ দিতে গেলে তার দুই মামাকেও মারধর করে।নিজের আত্নীয় স্বজনের জমিতে দিনে ও অন্যের জমিতে রাতের আধারে পানি দেয়।

নিজের জমিতে পানি থাকলে ডিপ নষ্ট বা খারাপ হলে সারাতে দেরী করে,আবাদের ক্ষতি হয় তার খেয়াল করেনা।স্থানীয় কিছু সংখক কৃষকের জবানবন্দি যেমন,মো মাহবুবুর রহমান (বাবু) মো,নজরুল ইসলাম,মাহবুব আলম (টুটুল) ও গোলাম গাউস সহ সকল কৃষকই আতাউল ড্রাইভার কে বহিস্কার করার ক্ষোব প্রকাশ করে।এতে করে এলাকার কৃষক ভাইদের সিদ্ধান্তে সুষ্ঠু ডিপ পরিচালনা কমিটি গঠনে ড্রাইভার ও ম্যানাজার কে ডাকলে উপস্থিত হয়না। তাই সকল কৃষক একত্রিত হয়ে ৭ নং দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মো,আখতারুজ্জামান সাহেব কে অবগত করে।

এবং সৎ যোগ্য ও ন্যায় নিষ্ঠাবান অত্র ইউনিয়নের মাটি ও মানুষের নেতা তিন তিন বার বিজয়ী চেয়ারম্যান জনাব মো আখতারুজ্জান সাহেব,প্রসাসনিক নীরাপত্তায় প্রেমতলী ফাড়ি প্রধান ইন্সপেক্টর জনাব মো, মুক্তার হোসেন,এস আই আবু বক্কর সিদ্দিক ও পালপুর ১নং ডিপের কৃষক বৃন্দ সহ ২০/৪/১৯ অত্র ডিপের অপরেটর ও ম্যানাজার কে নিয়ে দীর্ঘ সময়ের মিটিংয়ে কৃষকদের ইচ্ছায় তাদেরই মনোনিত (১৫) সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেন ও সকল কৃষকদের দাবি অপরেটর বদল করতে হবে,তারই দিক বিবেচনা করে, নিরপেক্ষ ভাবে কৃষকদের দাবিতে আতাউল ড্রাইভারের পরিবর্তে, মো, পারভেজ হোসেন কে পানি সেঁচের জন্য ডিপ অপরেটরের দায়িত্ব দেওয়া হয়।এবং ডিপ পর্যবেযক্ষন পরিচালনা ও অপরেটর নিয়োগ সব কিছুই বি এম ডি বরেন্দ্র নিয়ন্ত্রন করে।তাই এই মেয়াদ প্রযন্ত অপেক্ষা করতে হবে ও পানির সুযোগ সুবিধা পারভেজ হোসেনের কাছ থেকে পাবে বলে সকল কৃষক কে জানিয়ে দেন।এবং ডিপের অপরেটর নিয়ে আলোচনার সময় কথার ফাকে যেকোনো ভুল হতেই পারে তাই সুনম্রতার সহিৎ সকলের কাছে ক্ষমা চেয়ে ও ধন্যবাদ জানিয়ে ডিপ অপরেটর অনিয়ম সমাধান করেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কচুয়ায় যুকের আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের নাউলা গ্রামের ধোয়া বাড়ির আব্দুর ...