সর্বশেষ সংবাদ
Home / তথ্য ও প্রযুক্তি / অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনে আবেদন ৩০ জুন পর্যন্ত

অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনে আবেদন ৩০ জুন পর্যন্ত

এফএনএস: অনলাইন গণমাধ্যমগুলো নিবন্ধনের জন্য আগামি ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদন জমা দিতে পারবে। গতকাল সোমবার তথ্য মন্ত্রণালয় এক সরকারি পত্রে বলেছে, বিদ্যমান অনলাইন সংবাদপোর্টালগুলোর সরকারি নিবন্ধনের জন্য ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদনপত্র জমা নেবে তথ্য অধিদপ্তর। তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট

http://www.pressinform.gov.bd এ দেওয়া নির্ধারিত ফরমে এ আবেদন করতে হবে। ফরমে উল্লিখিত বিবরণ অনুযায়ী সকল প্রমাণসহ এ আবেদন ডাকযোগেও গ্রহণ করা হবে। ইতোপূর্বে যাদের আবেদন সঠিকভাবে গৃহীত হয়েছে, তাদের পুণরায় আবেদনের প্রয়োজন নেই। অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনের সময় ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল চতুর্থ দফায় ১৭ দিন বাড়িয়ে দেয় সরকার। এরপর অনলাইন এই কার্যক্রমে ভাঁটা পড়ে। ‘অপসাংবাদিকতা’ রোধে সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে ২০১৫ সালের নভেম্বরে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল সরকার। এরপর ওই সময় আরও চার দফায় বাড়ানো হয়।

এর আগে এক সরকারি ভাষ্যে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশের অনলাইন পত্রিকার প্রকাশকদের পত্রিকা প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং অপসাংবাদিকতা রোধ করার লক্ষ্যে সরকার নিবন্ধন কার্যক্রম চালু করেছে। এ লক্ষ্যে নির্ধারিত নিবন্ধন ফরম ও একটি প্রত্যয়নপত্র বা হলফনামা পূরণ করে তথ্য অধিদপ্তরে জমা দিতে হচ্ছে। আবেদন ফরম এবং প্রত্যয়নপত্রের নমুনা তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে। পত্রিকাগুলোকেও তাদের অনলাইন সংষ্করণের জন্য নতুন করে আবেদন করতে হবে। বর্তমানে ১৩৮টি অনলাইন সংবাদপত্রকে অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড দেওয়া হয়েছে। সারাদেশের প্রায় তিন হাজার গণমাধ্যম অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পেয়েছে।

এফএনএস: অনলাইন গণমাধ্যমগুলো নিবন্ধনের জন্য আগামি ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদন জমা দিতে পারবে। গতকাল সোমবার তথ্য মন্ত্রণালয় এক সরকারি পত্রে বলেছে, বিদ্যমান অনলাইন সংবাদপোর্টালগুলোর সরকারি নিবন্ধনের জন্য ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদনপত্র জমা নেবে তথ্য অধিদপ্তর। তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট

http://www.pressinform.gov.bd এ দেওয়া নির্ধারিত ফরমে এ আবেদন করতে হবে। ফরমে উল্লিখিত বিবরণ অনুযায়ী সকল প্রমাণসহ এ আবেদন ডাকযোগেও গ্রহণ করা হবে। ইতোপূর্বে যাদের আবেদন সঠিকভাবে গৃহীত হয়েছে, তাদের পুণরায় আবেদনের প্রয়োজন নেই। অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনের সময় ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল চতুর্থ দফায় ১৭ দিন বাড়িয়ে দেয় সরকার। এরপর অনলাইন এই কার্যক্রমে ভাঁটা পড়ে। ‘অপসাংবাদিকতা’ রোধে সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে ২০১৫ সালের নভেম্বরে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল সরকার। এরপর ওই সময় আরও চার দফায় বাড়ানো হয়।

এর আগে এক সরকারি ভাষ্যে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশের অনলাইন পত্রিকার প্রকাশকদের পত্রিকা প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং অপসাংবাদিকতা রোধ করার লক্ষ্যে সরকার নিবন্ধন কার্যক্রম চালু করেছে। এ লক্ষ্যে নির্ধারিত নিবন্ধন ফরম ও একটি প্রত্যয়নপত্র বা হলফনামা পূরণ করে তথ্য অধিদপ্তরে জমা দিতে হচ্ছে। আবেদন ফরম এবং প্রত্যয়নপত্রের নমুনা তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে। পত্রিকাগুলোকেও তাদের অনলাইন সংষ্করণের জন্য নতুন করে আবেদন করতে হবে। বর্তমানে ১৩৮টি অনলাইন সংবাদপত্রকে অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড দেওয়া হয়েছে। সারাদেশের প্রায় তিন হাজার গণমাধ্যম অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পেয়েছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘খেতে চাইলাম দুধ হয়ে গেল ছানা’

ক্রাইম এ্যকসান ডেস্ক মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে শনিবার মধ্যরাতে ...