সর্বশেষ সংবাদ
Home / বিনোদন / ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে শহরের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে উপচে পড়া ভিড় ॥ বড় স্টেশনে রাইডারগুলোতে শিশুদের বিনোদন

ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে শহরের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে উপচে পড়া ভিড় ॥ বড় স্টেশনে রাইডারগুলোতে শিশুদের বিনোদন

মানিক দাস ॥ পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের দিন থেকে এখন পর্যন্ত চাঁদপুর শহরের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ভ্রমন পিপাসুদের ভিড় কমছে না। বিশেষ করে শহরের বড় স্টেশন মোলহেড প্রতিনিয়তই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে মানুষ ভিড় জমাচ্ছে।

প্রতিদিন সকাল থেকে চাঁদপুর জেলার অন্যান্য উপজেলা ও পার্শ্ববর্তী জেলা কুমিল্লা, ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষীপুর থেকেও অনেকে মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকার নিয়ে পরিবার পরিজনের সাথে বিনোদনের জন্য এ ত্রিনদীর মোহনায় ছুটে আসছে। দিন ভর ঘুরে তারা আনন্দ করে সন্ধ্যা হলে নিজ গন্তব্যে ফিরতে শুরু করে। বড় স্টেশন মোলহেডে শিশু কিশোররা বড় স্টেশন মোলহেডে বেশি আনন্দ ও বিনোদন করতে পারচ্ছে।

স্থানীয় ইসমাইল পাটওয়ারী নামক ব্যক্তি এই স্থানে ইলেকট্রনিক্স বোর্ড, ঘোড়ার চক্কর ট্রেন স্থাপন করেছে। জনপ্রতি ৩০/- টাকা হারে শিশু কিশোররা তাতে ভ্রমণ করে আনন্দ করছে। ইসমাইল পাটওয়ারী জানান, আমরা শিশুদের বিনোদনের জন্য এই ব্যবস্থা করেছি। এখানে শিশু কিশোররা আনন্দের মাঝে রাইডারগুলোতে ভ্রমণ করে চলছে। ঈদের দিন থেকে যারা এখানে আসছে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে ইঞ্জিনচালিত নৌকা নিয়ে মেঘনার বুকে জেগে উঠা বালুর চরে ছুটে চলছে। পর্যটকরা এই চরকে আখ্যায়িত করছে মিনি কক্সবাজার বলে।

সেখানে গিয়ে ভ্রমণ পিপাসুরা পানিতে ঘা ভিজিয়ে কক্সবাজারের আত্মতৃপ্তি মেটাচ্ছে। বড় স্টেশন মোলহেডে তরুণ-তরুণী, মাঝ বয়সী নারী-পুরুষ এমনকি বয়-বৃদ্ধরাও সিসি ব্লকে বসে গল্প করে আর মোবাইলে সেলফি তুলছে। হাইমচর থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে আসা সমষের জানায়, আমাদের এলাকার নদীর পাড় এত সুন্দর নয়। ত্রি নদী মোহনা যতটা সুন্দর। এখানে এলে অনেক সুন্দর দেখায় প্রাকৃতিক দৃশ্য। তাই সবসময় আমরা এখানে ঘুরতে আসি।

ফেনীর দাগনভূইয়া থেকে মাইক্রোবাসযোগে এসেছেন পরিবার পরিজন নিয়ে লন্ডন প্রবাসী হায়দার হোসেন। তিনি জানান, চাঁদপুরে এটি তার তৃতীয়বারের মতো আসা। এখানে নদীর প্রাকৃতিক দৃশ্য তাদের খুব পছন্দ। ঈদের ছুটিতে পরিবার পরিজন নিয়ে তিনি এসেছেন। তিনি আরও জানান, আমরা মেঘনার চরে ঘুরতে গিয়ে অনেক আনন্দ পেয়েছি। আমাদের সন্তানেরা এখানে এসে অনেক আনন্দ পেয়েছে। শিশুদের আনন্দইতো বাবা মাকে আনন্দ দিয়েছে। লক্ষীপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী রাজিয়া সুলতানা ও ইকবাল নূর এসেছেন মটর সাইকেল যোগে। তাদের দু’জনের সাথে কথা হয় রক্তধারা সম্মুখে। তারা দুজনেই অনার্স শেষ বর্ষের।

বন্ধু হিসেবেই তারা ঘুরতে এসেছেন চাঁদপুরে। তারা জানান, চাঁদপুর হলো আমাদের কাছে নদীমাতৃক জেলা। যেখানে এসে ৩টি নদী মিলিত হয়েছে। যা ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য। আমরা প্রায় সময় এখানে বেড়াতে চলে আসি। এ বছরের ঈদ-উল-ফিতরের ঈদকে স্মরণীয় করে রাখতে আমরা এসেছি। ঘুরে দেখিছি মিনি কক্সবাজার। আনন্দ উপভোগ করেছি প্রকৃতির।

এভাবেই সবাই এ স্থানে ঈদের দিন থেকে এখন পর্যন্ত ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাছাড়া পার্কগুলোতে অশ্লীলতা থাকায় সেখানে না গিয়ে ছুটে গেছেন নতুনবাজার-পুরাণবাজার ব্রিজের উপর, আবার অনেকে আড্ডা জমিয়েছিল চাঁদপুর-রায়পুর সড়কের ব্রীজের উপর। এমনিভাবে ঈদের আনন্দ এখনো চলছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বিনোদন কেন্দ্র ফ্যান্টাসি কিংডমে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়!

আলমাস হোসেনঃ ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি। এই ঈদের সময় সবার ...