সর্বশেষ সংবাদ
Home / তথ্য ও প্রযুক্তি / অস্ত্রের বদলে তরুনদের আধুনিক প্রযুক্তি তুলে দিচ্ছে সরকার: সাভারে মোস্তাফা জব্বার

অস্ত্রের বদলে তরুনদের আধুনিক প্রযুক্তি তুলে দিচ্ছে সরকার: সাভারে মোস্তাফা জব্বার

আলমাস হোসেনঃ  ‘আমার উদ্ভাবন, আমার স্বপ্ন’এই শ্লোগানকে ধারণ করে শুরু হওয়া প্রথম স্টার্টআপ প্রতিযোগীতার শেষ দিনে নির্বাচন করা হলো শীর্ষ ৩০টি দল। এই ত্রিশটি দল থেকে সেরা ১০ জনকে ১০ লাখ টাকার অনুদান প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে সাভারের শেখ হাসিনা জাতীয় যুব উন্নয়ন কেন্দ্রে শুরু হওয়া স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ চেপ্টার ওয়ান জাতীয় ক্যাম্পের বৃহস্পতিবারের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সেরা ১০দল বিজয়ীর হাতে পুরষ্কার ও আর্থিক অনুদানের চেক তুলে দেন বিশিষ্ট তথ্য প্রযুক্তিবিদ ও সরকারের ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।
এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ডিজিটালে রূপান্তিত করার কাজ এগিয়ে চলছে। পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অপকর্ম থেকে শিক্ষা ব্যবস্থাকে রক্ষা করতে কাজ করছে সরকার। শিক্ষিত তরুন তরুনীরা যাতে বেকার না থাকে সেদিকে নজর দিয়ে সরকারের আইসিটি ডিভিশন এ ধরনের প্রতিযোগীতার আয়োজন করছে। তিনি আরো বলেন, সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত তরুনদের নিয়ে ভাবছে সরকার। তাদের হাতে অস্ত্রের বদলে আধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ ডিজিটাল যন্ত্র তুলে দিচ্ছে শেখ হাসিনার সরকার।
মন্ত্রী আরো বলেন, গোটা বিশ্বের এমপি মন্ত্রীরা এখন প্রযুক্তি জ্ঞান ও পরামর্শের জন্য বাংলাদেশের মন্ত্রীদের কাছে ভির জমাচ্ছে। উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ যেমন বিশ্বের কাছে মাথা উচু করে নিজের অবস্থান মজবুত করেছে তেমনি তথ্য প্রযুক্তির দিক দিয়েও অনেক দেশকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে।
মন্ত্রী দেশের প্রথম কম্পিউটার নিয়ে আসার স্মৃতিচারন করে বলেন, প্রথম বাংলাদেশে যখন কম্পিউটার আনা হয় তখন একে দেখতে অনেক শিক্ষক-শিক্ষার্থী আসতো। তখন কম্পিউটারে বাংলা ভাষায় লেখা-লেখির কাজ করা যেতো না। বিজয়-মুনীর কী-বোর্ড আবিষ্কার ও বিজয় বায়ান্নো, বিজয় একুশে সফ্টওয়্যার তৈরীর মাধ্যমে বাংলা ব্যবহার শুরু হয়। মূলত এরপরই মানুষ কম্পিউটারের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করতে থাকে।
আমার উদ্ভাবন, আমর স্বপ্ন’ এই শ্লোগান নিয়ে চলতি বছর ৮ মার্চ শুরু হয় ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’। আইসিটি ডিভিশন ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড অল্টোপ্রনারশিপ একাডেমি (আইডিয়া) প্রকল্প ও সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলার আয়োজনে চলা এই কার্যক্রম জাতীয় ক্যাম্পের প্রথম দিনে অংশগ্রহনকারী উদ্যোক্তা দলগুলোকে নিয়ে শুরু হয় কর্মশালা। কর্মশালায় দেশের ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নির্বাচিত ১২০টি উদ্যোক্তা দলের তিনশ’র বেশি শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
জাতীয় ক্যাম্পের প্রথম দিনে কয়েকটি সেশনে অনুষ্ঠিত হয় এ কর্মশালা। যেখানে অংশগ্রহন করা দলগুলোকে নিয়ে নিজ নিজ উদ্যোগে সফলতার সাথে পিচিং এর জন্য প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এসময় উদ্ভাবনী ভাবনাকে পন্যে রূপান্তর এবং বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেন স্টুডেন্ট স্টার্টআপের সমন্বয়ক আশিকুর রহমান রূপক ও আইডিয়া প্রকল্পের কনসালটেন্ট মোহাম্মদ দেওয়ান আদনান। জাতীয় পর্যায়ে আয়োজিত এমন স্টার্টআপ ক্যাম্প নিয়ে উচ্ছসিত অংশগ্রহনকারীরাও।
বুধবার অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তা দলগুলোকে আরো কিছু বিষয়ে পরামর্শ প্রদান ও নিজেদের গুছিয়ে নেয়ার সময় দেয়া হয়। শেষ দিন বৃহস্পতিবার ফাইনাল পিচিং রাউন্ড শেষে বিচারকদের ভোটে বাছাই করা হয় শীর্ষ ৩০ স্টার্টআপ। পরে জাতীয় পর্যায়ে সেরা ১০ উদ্ধাবনী ভাবনা বা স্টার্টআপ নির্বাচন করেন আইডিয়া প্রকল্পের বাছাই কমিটি এবং অন্যান্য বিচারকগণ।
প্রথম অধ্যায়ে ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ প্রতিযোতিা হলেও পর্যায়ক্রমে তা দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজন করা হবে। এমনকি বড় বড় কলেজগুলোতেরও ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হবে।
সারা দেশ থেকে প্রায় ২ হাজারের বেশি তরুন উদ্যোক্তা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে এই প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহন করেন। বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ইয়াং বাংলার ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডরদের সহায়তায় পরিচালিত প্রতিযোগীতা থেকে বিজয়ীদের বাছাই করা হয়। পিচিং রাউন্ডে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনটি উদ্যোক্তা দল নির্বাচিত হয় জাতীয় স্টার্টআপ ক্যাম্পের জন্য।
উল্লেখ্য, সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগের সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাকে যুক্ত করার মধ্য দিয়ে জাতীয়ভাবে ইনোভেশন কালচার এবং এন্ট্রাপ্রেনারিয়াল সাপ্লাই চেইন গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ শুরু করে আইসিটি বিভাগের ইনোভেশন ডিজাই অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনারশিপ একাডেমি-আইডিয়া প্রকল্প। আর ২০১৮ সালের ১৫ মার্চ, সেন্টার ফর ইনফরমেশনের (সিআরআই) অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলা’ এ প্রকল্পের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেন। এ সমঝোতা স্মারকের আলোকে আয়োজন করা হলো ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ প্রথম অধ্যায়।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- আইসিটি ডিভিশনের সচিব এন.এম. জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর পার্থ প্রতিম দেবসহ আইসিটি ডিভিশন ও আইডিয়া প্রকল্পের কর্মকর্তাগন।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সাংবাদিক নিয়োগ দেবে ফেসবুক

ক্রাইম এ্যকসান ডেস্ক নতুন একটি ফিচার যুক্ত হচ্ছে ফেসবুকে। ‘নিউজ ট্যাব’ নামের ...