সর্বশেষ সংবাদ
Home / শিক্ষা ও সাহিত্য / আমড়াগাছিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ক্লাস বর্জন ও শ্রেনীকক্ষে ঝুলছে তালা

আমড়াগাছিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ক্লাস বর্জন ও শ্রেনীকক্ষে ঝুলছে তালা

নাজমুল ইসলাম শরণখোলা প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার আমড়াগাছিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মাহফুজুল রহমান প্রিন্সকে অপসারনের দাবীতে এক সপ্তাহ ধরে ক্লাসে বর্জন করে আসছে শিক্ষার্থীরা।প্রতিটি শ্রেনীকক্ষের রুমে ঝুলছে তালা। ঐ শিক্ষককে চরিএহীন দাবী করে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা গত মঙ্গলবার (০৯ জুলাই) সকল শ্রেনীরকক্ষে ও প্রধান শিক্ষকের অফিসের সামনে তালা দিয়ে ক্লাস বর্জন ও অান্দোলন করেন।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ সরোয়ার হোসেন খাঁন সাংবাদিকদের বলেন,ক্রীড়া শিক্ষক মাহফুজুর রহমান প্রিন্স বিদ্যালয়ের প্রাপ্তন এক ছাএীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়লে জনতার হাতে গণধোলাইয়ের শিকার হয় গত ১৯ মার্চ। একজন বিদ্যালয়ের শিক্ষকের অনৈতিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন,ঝাড়ু মিছিল,সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিল করে ঐ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তার প্রেক্ষিতে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা অভিযুক্ত শিক্ষক মাহফুজুর রহমান প্রিন্সকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে ও তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি করেন।অভিযুক্ত শিক্ষক সাময়িক বরখাস্তের বিরুদ্ধে শরণখোলা সরকারী জজ আদালতে একটি মামলা দায় করেন। মামলায় ২৩ জুন আদালতে সাময়িক  বরখাস্ত আদেশ বাতিল করে শিক্ষকে বিদ্যালয় যোগদান করার নির্দেশ দেন প্রধান শিক্ষককে।
৯ জুলাই মাহফুজুর রহমান প্রিন্স বিদ্যালয় ক্লাস করাতে গেলে ক্লাস বর্জন করে রাস্তায় নেমে আসে ও আমড়াগাছিয়া বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা। অভিভাবকরাও বিদ্যালয়ের   মানববন্ধন অংশগ্রহন করেন।
অভিভাবকরা জানান,এর আগে মাহফুজুর রহমান প্রিন্স একাধিকবার ছাএীর সাথে অনৈতিক কাজ করে বিভিন্নভাবে পার পেয়ে গেছে। বিদ্যালয় থেকে তাকে অপসারন করা না পর্যন্ত তাদের এ আন্দোলন চালিয়ে যাবেন ও ক্লাস বর্জন করবেন শিক্ষার্থীরা।
‌অভিযুক্ত শিক্ষক প্রিন্স বলেন,তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তা মিথ্যা। একটি মহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেন।
শরণখোলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নুরুজ্জামান খাঁন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে ক্লাস শুরু করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।
ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ শহীদ হোসেন বলেন, আদালতের নির্দেশে শিক্ষককে যোগদান করানো হয়েছে।তার এ যোগদান কিছুতেই মেনে নিতে পারেন না শিক্ষার্থী ও অভিভাবক। সেজন্য অভিভাবক বিদ্যালয়ে তালা মেরে আন্দোলনে করেন।এতে আমাদের কিছু করার নেই।
ভারপ্রাপ্ত শরণখোলা নির্বাহী অফিসার কামরুজ্জামান বলেন,বিদ্যালয়ের এ বিষয়টি তার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে দ্রুত ক্লাস শুরুর ব্যবস্থা করা হবে।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির ফ্যামিলি ডে ও শোকের বই উপহার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিল্প-সাহিত্যের প্রগতিশীল প্রতিষ্ঠান চর্যাপদ সাহিত্যা একাডেমির ফ্যামিলি ডে, শোকের ...