সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / সুষ্ঠু নির্বাচন হলে চেয়ারম্যান পদে তৃমুখী ভোট যুদ্ধ হতে পারে ফরিদগঞ্জে এবার ভোটারগন পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচন করতে চায়

সুষ্ঠু নির্বাচন হলে চেয়ারম্যান পদে তৃমুখী ভোট যুদ্ধ হতে পারে ফরিদগঞ্জে এবার ভোটারগন পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচন করতে চায়

এমকে মানিক পাঠান
ফরিদগঞ্জে দীর্ঘ ১৬ বছর পর আগামী ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একটি ইউনিয়ন পরিষষের নির্বাচন। এই ইউনিয়নটি হচ্ছে ১৪ নং ফরিদগঞ্জ (দক্ষিন) ইউনিয়ন পরিষদ। ইউনিয়নটি এবারের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটারের মধ্যে দীর্ঘ প্রতীক্ষার আনন্দ যেমন রয়েছে, তেমটি পাশাপাশি রয়েছে ভোট দিতে পারা না পারা নিয়ে অজানা আতংক সহ নানাহ সংশয়। নির্বাচনের পর যাতে কোন রোষানলে পড়তে না হয় সে জন্য অনেক ভোটার তার ভোটের প্রশ্নে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে নারাজ। স্থানীয়রা বলছেন যেহুতু বিএনপির প্রার্থী নেই সেই হিসেবে এবার অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন হলে চেয়ারম্যান পদে তৃমুখী ভোট যুদ্ধ হতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন ।

তবে ফরিদগঞ্জে দীর্ঘ ১৬ বছর পর ভোট দিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচন করতে চায় ভোটারগন। চলতি বছরের গত ৮ মে ওই্ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ লতিফ পন্ডিত ইন্তেকাল করায় এই ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান পদ শুন্য হয়ে পড়ে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে ভোটারই বলছে ১৬ বছর পর ভোটারগন তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচন করতে পারবো তো? নাকি ক্ষমতার প্রভাবে এক তরফা নির্বাচনের মাধ্যমে দীর্ঘ প্রতিক্ষিত নির্বাচনটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করে আবারো আরেকটি নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করা হয় ? এমন নানা প্রশ্ন উঠছে স্বয়ং প্রার্থী ছাড়াও সাধারন ভোটার সহ বিভিন্ন মহল থেকে।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানায়, ওই ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী রয়েছে ৫ জন। ৯টি মেম্বার পদে প্রার্থী পুরুষ প্রার্থী রয়েছে মোট ৪১ জন,সংরক্ষিত ৩টি মহিলা মেম্বার পদে মহিলা প্রার্থী হয়েছে ৯জন । ভোটার রয়েছে ১৭ হাজার ৬৩০ ভোট। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৮৯৬। মহিলা ভোটার ৮ হাজার ৭৩৪। ভোটকেন্দ্র নির্ধারন করা রয়েছে ৯টি। আগামী ২৫ জুলাই নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুতি রয়েছে উপজেলা প্রশাসনের।
তবে ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে এবার বিএনপি কোন প্রাথী দেয়র্নি। চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছে ৫ জন । এর মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে রয়েছে সাইফুল আলম সোহেল খাঁন (নৌকা) । বাকী ৪ চেয়ারম্যান প্রার্থী যারা স্বতন্দ্র প্রার্থী রয়েছে তারা হচ্ছে যথাক্রমে আলমগীর হোসেন রিপন (আনারস) আকবর পাটওয়ারী (চশমা) শফিকুর রহমান (মোটর (সাইকেল)ও রেজাউল ইসলাম (টেলিফোন) ।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, ৫ চেয়ারম্যান প্রার্থী সবাই সরকার দলীয়। এদের মধ্যে একমাত্র সাইফুল ইসলাম সোহেল খাঁন (নৌকা) ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য হিসেবে দীর্ঘ বছর জনসেবার দায়িত্ব পালন করেছে। অপরদিকে আলমগীর হোসেন রিপন ইতিপূর্বে দীর্ঘ বছর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক ছিলেন। পরে সাবেক এমপি ডঃ শামছুল হক ভুঁইয়ার আমলে উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছিলেন। সরকার দলীয় নেতা হিসেবে থাকার সুবাদে আলমগীর হোসেন (আনারস) রিপনের ছাত্রলীগ ও যবলীগের মধ্যে তার শক্ত অবস্থান রয়েছে। বাকী ৩ চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগ কিংবা এর কোন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী না হলেও এরা সরকার দলীয় সমর্থক বটে।
সরেজমিনে ওই ইউনিয়নে গিয়ে কথা হয় প্রার্থী, ভোটার ও সাধারন জনগনের সাথে। তবে বিএনপির প্রার্থী না থাকলেও বিএনপির ভোটাদের দাবি এই ইউনিয়নটি বিএনপির দূর্গ হিসেবে পরিচিত। এখানে যদি অবাধ ও সুষ্ঠু ভাবে ভোট হয় তাহলে যে প্রার্থী বিএনপির ভোটারদের ভোট নিতে পারে তাহলে সেই প্রার্থীর জয় সুনিশ্চিত বলে মনে করছেন অনেকেই। অনেকেই বলছেন যদি অবাধ সুষ্ঠ ভোট হয়, তাহলে বিএনপির ভোটারদের ভোটের উপরই নির্ভর করে প্রার্থীর জয় পরাজয়। দীর্ঘ প্রতিক্ষিত এই নির্বাচনকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইস বুকে বিভিন্ন প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিতে যুক্ত তর্ক জমে উঠছে।
এদিকে নির্বাচনকে ঘিরে নৌকা প্রতীকের প্রাথী সোহেল খাঁনের জয় নিশ্চিতের লক্ষে প্রায় প্রতিদিনই ফরিদগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমান ছাড়াও জেলা ও উপজেলা থেকে সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা ওই ইউনিয়নে গনসংযোগের পাশাপাশি নির্বাচনী সভা করে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। এদিকে উক্ত ইউনিয়নেরই সাবেক ইউপির স্বনামধন্য চেয়ারম্যান মরহুম নূর মোহাম্মদের ছেলে আলমগীর হোসেন রিপন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তার প্রয়াত বাবার আদর্শের স্মৃতি চারন করে নির্বাচনী প্রতীক আনারসের জয় নিশ্চিত করতে এখন মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আকবর পাটওয়ারী তার নির্বাচনী প্রতীক চশমার জয় নিশ্চিত করতে ঘরে বসে নেই। ভোটাগন বলছে অবাধ ু সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিশেষ করে এবার চেয়াম্যান পদে ভোট হবে তৃমুখী। বাকী স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী সফিকুল ইসলাম ও রেজাউল ইসলামকে নির্বাচনী প্রচারে দেখা যায়না। তবে পুরুষ ও মহিলা মেম্বাররা দল বল নিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে তাদের নির্বাচনী প্রচার অব্যহত রেখেছে।
উল্লেখ্যে, দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছর পূর্বে এই ইউনিয়নের পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচনকে কেন্দ্র উচ্চ আদালতে দায়ের করা একটি মামলা নিষ্পত্তি হয়নি। চলতি বছরের গত ৮ ই মে এ এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ পন্ডিত ইন্তেকাল করার পর অবশেষে চলতি মাসের ২৫ জুলাই উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচন হতে যাচ্ছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রাণীশংকৈলে ভারতের মাওলানা সা’দ পন্থীদের ইজতেমা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

ঠাকুরগাঁও সদর প্রতিনিধি ভ্রান্ত আকীদা পোষণকারী , উলামা বিদ্বেষী এবং ২০১৮ সালের ...