সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / সফরমালী পশুর হাঁটের অর্থ দেওয়া হচ্ছে ৬০টি জুমা মসজিদ ও ৬টি মাদ্রাসায়

সফরমালী পশুর হাঁটের অর্থ দেওয়া হচ্ছে ৬০টি জুমা মসজিদ ও ৬টি মাদ্রাসায়

মানিক দাস ॥ চাঁদপুর সদর উপজেলার বিষ্ণপুর ইউনিয়নের সফরমালী গরুর হাঁটটি প্রায় শত বছরের পুরনো হাট। প্রতি সপ্তাহের সোমবার এই হাটটি জমজমাট পশুর হাট হিসেবে পুরো জেলায় পরিচিতি রয়েছে। ১৯৩৪ সালে এই হাঁটটি প্রতিষ্ঠা করেন জাতীয় পার্টির আমলের সংসদ সদস্য মরহুম হারুন খান। পরপর ৩ বার নদী ভাঙ্গনের পর ১৯৮৫ সালে হারুন খানের ভাই আব্দুল আজিজ খান দুদু এই স্থানে পুনরায় বাজারটি স্থাপন করেন স্থানীয় ব্যক্তিদের সহায়তায়।

কিন্তু একটি চক্র এই হাঁটটিকে বন্ধ করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে উঠে পড়ে লেগেছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সফরমালী গরুর হাঁটটি খুব জমজমাট গরুর হাঁট। এখানে চাঁদপুর জেলার প্রতিটি উপজেলা ও পার্শ্ববর্তী জেলা শরীয়তপুরের গরুর বেপারীরা গরু এনে বিক্রির জন্য হাঁটটিকে চাঙ্গা করে রেখেছেন। এখানে কুরবানীর ঈদ ছাড়াও সপ্তাহের প্রতি সোমবার পশুর হাট বসে থাকে। পশু বিক্রির হাসিল ও উসুলের অর্থ এখানকার মসজিদ ও মাদ্রাসায় দান করা হয়।


আব্দুল আজিজ খান দুদু জানান, এই হাটটি এক সময় আশিকাটি ইউনিয়নের ছিল। তখন এই হাটের ইজারা প্রথা ছিল কিন্তু বিষ্ণপুর ইউনিয়নে চলে আসায় ইজারা প্রথাটি বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৯৩-৯৪ সালে বাজারটিকে বানচাল করার জন্য একটি স্বার্থবাদী মহল মামলা করেছিল। ওই মামলা দীর্ঘ দিন চলার পর তা খারিজ হয়ে যায়। বর্তমানে আমরা নিজেরাই বাজারটি পরিচালনা করে আসছি। আব্দুল আজিজ খান দুদু আরও জানান, এই পশুর হাটের হাসিল ও উসুলের অর্থ দিয়ে স্থানীয় প্রায় ৬০টি জুমা মসজিদে ও ৬টি মাদ্রাসায় এর অর্থায়নে পরিচালিত হয়।

তাছাড়া এলাকার অসহায় মেয়ে ও শিক্ষার্থীদের বিয়ে এবং পড়ালেখার জন্য আমরা সহায়তা করে থাকি। এভাবেই সফরমারলী গরুর হাটের অর্থ দিয়ে এলাকার মসজিদ মাদ্রাসা সহ বিভিন্ন সামাজিক কাজে সহায়তা করা হচ্ছে। প্রতি সোমবারে এই পশুর হাটে গরু-ছাগল, কয়েক হাজার পশু বিক্রির জন্য আনা হয়। শুধু বেপারী নয় স্থানীয়রাও তাদের গবাদি পশু বিক্রির জন্য এই হাটে নিয়ে আসে। ১৯৮৫ সালে এই হাটটি জমানোর জন্য আমরা স্থানীয়দের বাড়ি বাড়ি থেকে গরু ছাগল এনে বিক্রির উদ্দেশ্যে জড়ো করি। এভাবে বেশ কয়েক বছর বাজারটি জমানোর জন্য হিমশিম খেতে হয়। পরে যখন গরু বেপারীরা সফরমালী হাটটি সম্পর্কে জানতে পারে তখন থেকে হাটটি জমজমাট হয়ে পড়ে। এখন পর্যন্ত এই হাটটি চাঁদপুর জেলা সদরের সবচেয়ে বড় পশুর হাট বলে সবাই মন্তব্য করেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কলা চাষে ঝুঁকছেন মতলবের কৃষক,অনেক হচ্ছেন সাবলম্বী

খান মোহাম্মদ কামালঃ চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার এলাকায় যে সকল জমিতে পানি ...