সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / কোরবানি ঈদকে কেন্দ্র করে মতলব উত্তরে চলছে হরদম ফ্রিজ বেচাকেনা

কোরবানি ঈদকে কেন্দ্র করে মতলব উত্তরে চলছে হরদম ফ্রিজ বেচাকেনা

খান মোহাম্মদ কামাল ঃ

ফ্রিজ বিক্রির প্রধান মৌসুম কুরবানির ঈদ। আজ বাদে কাল ঈদ। আর তাই ব্যাপক হারে বিক্রি হচ্ছে ফ্রিজ ও ডিপ ফ্রিজ। বলা চলে ফ্রিজ বিক্রির ধুম পড়ে গেছে। বিশেষ করে ওয়ালটনের বড় ডিপযুক্ত ফ্রস্ট ফ্রিজ এবং ডিপ ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে বেশি। ক্রেতাদের চাপ সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বিক্রেতাদের। তাদের যেন দম ফেলার সময় নেই। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বিক্রেতারা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

কোরবারি ঈদ উৎসবকে কেন্দ্র করে সব সময়ই বেড়ে যায় সংসারের অপরিহার্য ফ্রিজ ও ডিপ ফ্র্রিজের বেচাকেনা। কোরবানির পশুর মাংস সংরক্ষণের জন্য মূলত এ সময়ে ফ্রিজের বাড়তি চাহিদা দেখা দেয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ফ্রিজ কেনা-বেচার প্রধান বাজার ছেংগারচর পৌর বাজারের মার্কেট থেকে শুরু করে নতুন বাজার, মোহনপুর, নিশ্চিন্তপুর,কালির বাজার, কালিপুর বাার,সুজাতপুর বাজার, এখলাছপুর,মতলব বাজার সরেজমিনে ঘুরে এমনটাই দেখা গেছে। ফ্রিজের আমদানিকারক, দেশি প্রস্তÍুুতকারক এবং খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ফ্রিজের বিক্রি বেশ ভালো। তবে বরাবরের মতোই বেশি বিক্রি হচ্ছে ডিপ ফ্রিজ।

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে মতলব উত্তর উপজেলার ছেংগারচর বাজারের হিরা মিয়া খাঁ সুপার মার্কেটে সোনালী ইলেকট্রনিক্স এ ওয়ালটন এর প্রধান ডিলার ওয়ালটনের একটি বিক্রয় কেন্দ্রে কথা বলে জানা গেল, এবার তাদের বিক্রয় কেন্দ্রে ৩০০টি ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। বিক্রয় ক্রেন্দ্রর ব্যবস্থাপক মোঃ ফজলুল হক জানালেন, বেচাকেনা যেভাবে চলছে, তাতে এবার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, দেশে সামগ্রিকভাবে স্থিতিশীল পরিবেশ থাকায় এবার ফ্রিজের বিক্রি গতবারের চেয়ে বেশ ভালো।
দেশি ফ্রিজ নির্মাতাদের সংগঠন বাংলাদেশ রেফ্র্রিজারেটরস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের হিসাব অনুযায়ী, প্রতি বছর সারাদেশে ১২ লাখ ফ্যিজ বিক্রি হয়। এর প্রায় ৩০ শতাংশই বিক্রি হয় কোরবানির ঈদের আগে। দেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ড যেমন ওয়ালটন, মার্সেল, র‌্যাংগস, ইকো প্লাস, যমুনা, মাইওয়ান, নোভা পাশাপাশি হিটাচি, সিঙ্গার, এলজি, তোশিবা, ওয়ার্লপুল, অ্যারিস্টন, সামস্যাং, হায়েস, হায়ার, শার্পসহ আমদানি করা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ফ্রিজও বেশ বিক্রি হচ্ছে।

দেশে ১০০ লিটার ওজন থেকে ৪০০ লিটার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন পর্যন্ত ওজনের ফ্যিজ পাওয়া যায়। তবে বিক্রি বেশি হয় ১৫০ লিটার থেকে ২০০ লিটার ধারণ ক্ষমতার ফ্রিজ। এ ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ফ্রিজগুলোই মধ্যম আয়ের মানুষের বেশি পছন্দ।

উপজেলার ছেংগারচর পৌর এলাকার ঠাকুরচর গ্রাম এলাকা থেকে গতকাল শনিবার ছেংগারচর বাজারে ফ্রিজ কিনতে আসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক জেসমিন আক্তার। সোনালী ইলেকট্রনিক্স নামের একটি শোরুম থেকে ৪১ হাজার টাকায় কেনেন একটি ওয়ালটন ডিপ ফ্রিজ।
তিনি আরো জানালেন, প্রতিবেশী সবার ঘরেই ওয়ালটন ফ্রিজ। ভালো সার্ভিস দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিবেশীরা। তাদের পরামর্শে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনছি। একই শো-রুমে আসা মনোয়ারা বেগম জানালেন, তিনি ওয়ালটনের ফ্রিজ ব্যবহার করছেন। এখন ঈদ উপলক্ষে একটি ডিপ ফ্রিজ কিনতে এসেছেন।

দোকানটির বিক্রয় ব্যবস্থাপক ফজলুল হক বলেন, এবার তাঁদের ব্যবসা বেশ ভালো। কোরবানির ঈদের জন্য দোকানে ৪০০ ফ্রিজ ও ডিপ ফ্রিজ মজুত করেছেন। দেশীয় তৈরি ওয়ালটনের ফ্রিজ বিক্রি হয় তাঁর শোরুমে। এছাড়া জাপানের হিটাচিসহ পাঁচটি ব্র্যান্ডের ।
এছাড়া তার আরেকটি দোকানে ট্রাক্সটেক, হিটাচি, স্যামসাং, ওয়ার্লপুল ব্র্যান্ডের ফ্রিজ-ডিপ ফ্রিজ হরদম বিক্রি হচ্ছে এখানে। যে কোনো ব্র্যান্ডের পুরনো ফ্রিজের সঙ্গে নির্দিষ্ট টাকা দিয়ে নতুন হিটাচি ফ্রিজ কেনা যাচ্ছে ট্রাক্সকমে। এই সুযোগটি ক্রেতাদের মাঝে ভালো সাড়া ফেলেছে বলে জানা গেল।

হাজ্বী মার্কেটের শোরুমেও পাওয়া গেল একই চিত্র। বিক্রেতা হাজ্বী মোঃ বিল্লাল হোসেন সরকার জানালেন, ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে ফ্রিজের মজুত গড়ে তোলা হয়েছে। তিনি মার্সেল কোম্পানীর ফ্রিজ এর ডিলার।
কোরবানির ঈদ উপলক্ষে সিঙ্গারের বিক্রিও বেশ ভালো। জানরা গেছে, দেশব্যাপী প্রায় ৪০০ বিক্রয় কেন্দ্রে নিজস্ব ব্র্যান্ডের পাশাপাশি আরও পাঁচটি ব্র্যান্ডের ফ্রিজে নগদ অর্থ ছাড় দিচ্ছে সিঙ্গার। সব মডেলের ফ্রিজে সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ পর্যন্ত অর্থ ফেরত সুবিধা দিচ্ছে এলজি-বাটারফ্লাই। দেশি প্রতিষ্ঠান যমুনা ইলেট্রনিক্স সব ফ্রিজে নগদ অর্থ ছাড়সহ গাড়ি, ফ্ল্যাট, সোনা জেতার সুযোগের নাম দিয়েছে ‘ঈদ স্বপ্নপূরণ’।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চাঁদপুরে ইলিশ সম্পদ সংরক্ষণ ও জেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

সজীব খান ঃ ইলিশ সম্পদ সংরক্ষণকল্পে সহ-ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম অবহিতকরণ ও জেলা পর্যায়ে ...