সর্বশেষ সংবাদ
Home / জাতীয় / ৮টি জেলার ১০টি উপজেলার শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

৮টি জেলার ১০টি উপজেলার শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আমরা ক্ষমতায় এসে মাত্র ১৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে সাড়ে ৪ হাজার মোওয়াটে উন্নীত করেছি

মানিক দাস ॥ জাতির পিতা শোষণ বঞ্চনা থেকে জাতিকে মুক্ত করে দেশকে স্বাধীন করেছিলেন। তিনি সাড়ে ৩ বছরের স্বল্প সময়ে ত সংবিধান প্রন্রযনসহ সকল কিছু করে দিয়েছিলেন। জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। জাতির পিতা ৫৪ সালে মন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে ওয়াসা ও বিদ্যুৎ বোর্ড তৈরি করেন। এরপর যার ক্ষমতায় এসেছিল তার সংবিধান পরিপন্থীভাবে। ২০০১ সালে যারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসেছিল তারা নিজেদের সুবিধার দিকে সবচেয়ে বেশি দৃষ্টি দিয়েছিল।

২০০৯ সালে আমরা রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। আমরা খাদ্যের ঘাটতি দিয়ে সরকার গঠন করেছিলাম। আজকে বাংলাদেশে ৯৩ ভাগ বিদ্যুৎ ঘরে ঘরে পৌছে দিয়েছি। আমাদের পূর্বে যারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল তারা আমাদের দেশের গ্যাস ও বিদ্যুৎ ভারতের কাছে বিক্রি করার পায়তারা করেছিল। আমরা ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমরা ক্ষমতায় এসে মাত্র ১৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে সাড়ে ৪হাজার মোওয়াটে উন্নিত করে।

 

৪০ মেঃটন খাদ্য ঘাটতি নিয়ে ক্ষমতায় এসে দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ন করেছি। উপরোক্ত কথাগুলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  নারায়নগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলা, রাজশাহীর জেলা প্রভা উপজেলা, চঁঅপদুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলা, নোয়াখালীর জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা, জয়পুর হাট জেলার জয়পুর হাট সদর উপজেলা, পাঁচবিবি উপজেলা, আক্কেলপুর উপজেলা, মুন্সিগঞ্জ জেলার নারায়নগঞ্জ সদর উপজেলা, ঠাকুরগাও জেলার হরিপুর উপজেলা ও দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলাসহ ১০টি উপজেলার শতভাগ বিদ্যুতায়নকার্যক্রম উদ্বোধনকালে বলেন। তিনি আরও বলেন, ১৯৭২ সালে রচিত মহান সংবিধানের ১৬নং অনুচ্ছেদে নগর ও গ্রামাঞ্চলের জীবনযাত্রার মানের বৈষম্য ক্রমাগতভাবে দূর করার উদ্দেশ্যে বিদ্যুতায়নসহ গ্রামাঞ্চলে আমূল রূপান্তর সাধনের জন্য অঙ্গীকার করা হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় পল্লীর জনগণের দোরগোড়ায় বিদ্যুৎ সুবিধা পৌছানোর লক্ষ্যে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করা হয়। এ প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সফলভাবে জুন, ২০১৯ পর্যন্ত দেশের ৪৬১টি উপজেলার ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এলাকায় মোট ৪ লক্ষ ৬০ হাজার কিলোমিটার লাইন ও ১২ হাজার এমভিএ ক্ষমতা সম্পন্ন ৯৬৫টি বৈদুতিক উপকেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ৩ লক্ষ ৪৯ হাজার সে পাম্পসহ বিভিন্ন শ্রেণির ২ কোটি ৬৪ লক্ষ গ্রাহক/ পরিবারকে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হয়েছে। মতলব দক্ষিণ উপজেলার ৯১৪ কিলোটিার বৈদ্যুতিক লাইন, একটি উপকেন্দ্র, ১৫ এমভিএ এবং ৬০ হাজার ১৩৮টি বিদ্যুতের সংযোগ প্রদান করা হয়েছে। ১২৮টি গ্রামে ১শ ৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এ বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান, বিদ্যুৎ ও জালানী মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ফিরোজা বেগম, পল্লী বিুদ্যতের উন্নয়ন বোর্ডের পরিচালক আবুল কাশেম সরদার, পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান পিপিএম (বার), জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাবির্ক শওকত ওসমান, মতলব দক্ষিণ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এইচএম গিয়াস উদ্দিন, চাঁদপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সিদ্দিকুর রহমান ঢালী, মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মন চন্দ্র সূত্রধর, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নিবার্হী প্রকৌশলী শাহ মোঃ আলমগীর কবির, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জিএম মোঃ কেফায়েত উল্লাহ, চাঁদপুর পল্লী বিদুৎ সমিতি ২ এর জিম মোহাম্মদ আবু তাহের,পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম ইকবাল হোসেন, চাঁদপুর পল্লী বিদুৎ সমিতি ২ সভাপতি মোঃ আলী আজম রেজা, মতলব উত্তর জোনাল অফিসের ডিজিএম মোঃ নুরুল আলম ভুঁইয়া, ফরিদগঞ্জের ডিজি, মোখলেছুর রহমান, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ ২ ডিজিএম (কারিগরি) কমলেশ চন্দ্র বর্মণ, এজিএম অর্থ এম এস সিয়াম সিরাজী, সহকারী প্রকৌশলী মোঃ সুফি সাদেক,এজিএম প্রশাসন মোঃ মেহদী হাসান, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এনফোর্সমেন্ট কো অডিনেটর আবুল কালাম আজাদ, সেলিম আল দীন, ওয়ারিং পরির্দশক মোঃ সোহেল রানা প্রমুখ।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে রণক্ষেত্র, আহত ৩০

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে একটি শিল্প কারখানার শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে ...