সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

নাজমুল ইসলাম সবুজ শরণখোলা প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাটের শরণখোলার ধানসাগর নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নদীতে টহল দেয়ার নাম করে বিভিন্ন অজুহাতে নগদ টাকা, ডিজেল ও ইলিশ মাছ পর্যন্ত চাঁদা আদায় করে নৌ-পুলিশ।
ভুক্তভোগী জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ধানসাগর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির একটি দল বলেশ্বর নদীর বগী, নলী, সুপতির মোহনা, চরদুয়ানী, কচিখালীর মোহনা এবং সুন্দরবনের ভোলা, শেলা, দুধমুখী নদীসহ কটকা এলাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায়ের জন্য ঘুরে বেড়ায়। এমনকি বাগেরহাট জেলার এ নৌ-পুলিশ তাদের সীমানা পেরিয়ে পিরোজপুর ও বরগুনা জেলার নৌ সীমানার মধ্যে গিয়ে চাঁদা আদায় করে থাকে। পুলিশের এ চাঁদাবাজিতে জেলে ও মৎস্যজীবিরা এখন অতিষ্ট হয়ে পরেছেন।
পিরোজপুরের পাড়েরহাট এলাকার মৎস্য আড়ৎদার আঃ হালিম জানান, গত ২৮ অাগষ্ট ওই নৌ-পুলিশ বলেশ্বর নদীর নলী এলাকা থেকে তার দাদন দেয়া চারটি মাছ ধরা ট্রলার আটকে ১৫ শত টাকা, চারটি ইলিশ মাছ ও এক টিন ডিজেল নিয়ে যায়। মঠবাড়িয়া উপজেলার জলাধার এলাকার মৎস্য আড়ৎদার বাদল গাজী জানান, গত ১ ও ২ সেপ্টেম্বর বলেশ্বর নদীর পিরোজপুর জেলার নৌ সীমানার শাপলেজা ও ভাইজোড়া এলাকায় প্রবেশ করে ১০/১২টি মাছ ধরা ট্রলার জিম্মি করে চাঁদা আদায় করে। এসময় যে সব ট্রলারে টাকা-পয়সা পায়নি তাদের প্রতিটি ট্রলার থেকে একজন করে জেলেকে বাড়ি পাঠিয়ে টাকা এনে দিতে হয়েছে তাদের।
শরণখোলা মৎস্য আড়ৎদার সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন ফরাজী জানান, গত ২৯ আগষ্ট শরণখোলার নৌ-পুলিশ তার একটি ফিসিং ট্রলার আটকে এক হাজার টাকা চাঁদা নিয়েছে। এ ছাড়া গত ২৭ আগষ্ট উপজেলার রাজাপুর এলাকার ইব্রাহীম খাঁনের এফ বি মায়ের দোয়া ফিসিং ট্রলারটি বঙ্গোপসাগর থেকে মাছ ধরে ফেরার পথে বলেশ্বর নদীতে আটক করে চাঁদা দাবী করে। কিন্তু জেলেদের কাছে টাকা না থাকায় পুলিশ মাছ ধারার পারমিট ও বিএলসির কাগজ রেখে ট্রলার ছেড়ে দেয়। পরে তাদের টাকা দিয়ে ওই কাগজ ছাড়িয়ে আনতে এক সপ্তাহ বিলম্ব হওয়ায় বন বিভাগের কাছে তাদের জরিমানা গুনতে হয়েছে।
রায়েন্দা বাজারের মৎস্য ব্যবসায়ী বিলাস রায় কালু জানান, সাগর থেকে ফিরে আসার সময় বলেশ্বর নদীর চরদুয়ানী, জ্ঞানপাড়া, বগী ও হেড়মা পর্যন্ত ঘাটে ঘাটে পুলিশকে চাাঁদা দিতে হয়।
বাগেরহাট জেলা ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি ও জাতীয় মৎস্যজীবি সমিতির শরণখোলা শাখার সভাপতি আবুল হোসেন বলেন, বন বিভাগরে কাছ থেকে পারমিট নিয়ে বৈধ ভাবে জেলেরা বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যায়। জীবন-জীবিকার তাগিদে বঙ্গোপসাগরের উত্তাল ঢেউয়ের সাথে যুদ্ধকরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা মাছ ধরে নিয়ে আসে। তাদের কাছ থেকে পুৃলিশের চাঁদা আদায় মানবতা লঙ্গনের সামিল। তিনি পুলিশের এ চাঁদাবাজি ও হয়রানী বন্ধের দাবী জানান।
বন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের বগী ষ্টেশন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, জেলেরা পারমিট নেয়ার সময় নদীতে নৌ-পুলিশের চাঁদা আদায়ের কথা প্রায়ই অভিযোগ করেন। কিন্তু এ বিষয়ে তাদের কিছু করার নেই।
এ ব্যাপারে শরণখোলার ধানসাগর নৌ-পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ মোঃ বদরুজ্জামান চাঁদা আদায়ের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তারা সম্প্রতি কোন টহলে যাননি। তবে শীগ্রই তারা টহলে নামবেন।
নৌ-পুলিশের খুলনা অঞ্চলের পুলিশ সুপার (এসপি) দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, নৌ-পুলিশ অথবা তাদের পরিচয়ে কেউ চাঁদাবাজি বা জেলেদের হয়রানি করার সত্যতা প্রমানিত হয় তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

স্বপ্নছায়া সামাজিক সংগঠন নামে নতুন সংগঠনের আত্মপ্রকাশ আহ্বায়ক ইকবাল বেপারী, যুগ্ম আহ্বায়ক সোহেল রানা ও রবিন পাটওয়ারী

স্টাফ রিপোর্টার  : স্বপ্নছায়া সামাজিক সংগঠন নামে নতুন সংগঠনের আত্মপ্রকাশ করেছে। সন্ধ্যায় ...