সর্বশেষ সংবাদ
Home / জাতীয় / ওমর ফারুকের গণভবনে যাওয়া নিষেধ!

ওমর ফারুকের গণভবনে যাওয়া নিষেধ!

নিজস্ব প্রতিবেদক
আগামী ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৭ম জাতীয় কংগ্রেস। এর মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব পাবে যুব সংগঠনটি। সম্মেলনের পূর্বে দিক নির্দেশনা নিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে বৈঠকে বসবেন যুবলীগ নেতারা। তবে এ বৈঠকে অংশ নিচ্ছেন না সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী। যুবলীগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, জাতীয় কংগ্রেস উপলক্ষ্যে আগামী রোববার বিকেল ৫টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন যুবলীগের শীর্ষ নেতারা। তবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী, বিতর্কিতদের বৈঠকে উপস্থিতর বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এমনকি পদ বাণিজ্যসহ নানা অভিযোগের কারণে যুবলীগ চেয়ারম্যানকে বৈঠকে না নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন। এছাড়া যাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনৈতিক কার্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে তারাও অংশ নিতে পারবেন না বৈঠকে।

সংগঠনটির একাধিক নেতা জানান, ক্যাসিনোকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ উঠায় যুবলীগ চেয়ারম্যানের গণভবনে যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে বৈঠকের শিডিউল আনতে যাওয়া এক নেতাকে সরকার প্রধান সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যুবলীগের বিতর্কিতরা যেন গণভবনের অনুষ্ঠেয় ওই বৈঠকে না থাকে। এ কারণে যুবলীগের শীর্ষ নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলেও যেতে পারছেন না ওমর ফারুক চৌধুরী।

যুবলীগের বৈঠকে কারা থাকবেন সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বুধবার বৈঠক করে যুবলীগের শীর্ষ নেতারা। সেখানে যাদের বিরুদ্ধে অনৈতিক কার্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে তাদেরকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ বুধবার রাতে বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের রোববার দেখা করার সময় দিয়েছেন। তবে ওমর ফারুক চৌধুরী ও নুরুন্নবী শাওনকে না রাখার বিষয়ে কোনো নির্দেশনার কথা আমাকে বলেননি। তবে আমার ধারণা চেয়ারম্যান মহোদয় সম্ভবত যাবেন না। কারণ বেশ কিছু দিন হল তিনি সংগঠনের কার্যক্রম থেকে নিজেকে দূরে রেখেছেন।

এ বিষয়ে জানতে ওমর ফারুক চৌধুরীকে তার মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেন নি।

সম্প্রতি যুবলীগের বিভিন্ন নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা ও টেন্ডারবাজির অভিযোগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের পর থেকে সংগঠন‌টির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর নামও উঠে আসে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার করা হয় যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ ভূঁইয়া, যুবলীগ নেতা জি কে শামীমসহ অনেকেই। যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সম্পৃক্ততাও বেরিয়ে আসে। তার আলোকে ইতিমধ্যেই ওমর ফারুক চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব তলব করা ছাড়াও তার বিদেশে যাত্রার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এর পর থেকেই আড়ালে চলে যান ওমর ফারুক। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তাকে ছাড়াই সম্মেলনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন সংগঠনটি। গত শুক্রবার তাকে ছাড়াই হয়েছে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সভা।

২০১২ সালে ষষ্ঠ কংগ্রেসে ওমর ফারুক চৌধুরী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়ার পর পদভেদে ১০ লাখ থেকে শুরু করে ৬০-৭০ লাখ টাকা পর্যন্ত দিয়ে অনেকে পদপদবি পেয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো বিক্রি হয়েছে অর্ধ কোটি টাকা করে। যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমানকে দিয়ে সব টাকা সংগ্রহ করা হতো বলে জানা গেছে। অভিযানের মুখে সেই আনিসের এখন হদিস মিলছে না। যারা টাকার বিনিময়ে পদ নিয়েছেন পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে অনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার প্রমাণ পায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মতলব উত্তরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ৫ সন্তানের জননীর মৃত্যু

খান মোহাম্মদ কামালঃ চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার সাদুল্যাপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মুক্তিরকান্দি ...