সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / পালবাজারের দোকান কর্মচারীদের অর্ধবেলা ছুটি

পালবাজারের দোকান কর্মচারীদের অর্ধবেলা ছুটি

স্টাফ রিপোর্টার :
চাঁদপুর শহরের ঐতিহ্যবাহী ও প্রাচীন বাজার পালবাজার। এ বাজারে বিভিন্ন পর্যায়ের ২/৩ শতাধিক ব্যবসায়ী রয়েছে। এ সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৩ শতাধিক কর্মচারী চাকুরি করে।

শহরের প্রাণকেন্দ্রের এ বাজারটিতে খুচরা ও পাইকারী ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যে কারণে অধিক রাত পর্যন্ত কর্মচারীদের কাজ করতে হয়। এ বাজারের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের দাবি তাদের মালিক পক্ষ সপ্তাহে ১ দিন তাদেরকে ছুটি দিক। এ দাবির কারণে মালিক ও কর্মচারী উভয় পক্ষই সমঝোতার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয় প্রতি শুক্রবার দুপুর ১টা থেকে কর্মচারীরা ছুটি কাটাবেন এবং মালিকগণ তাদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখবেন।

এ সিদ্ধান্তের কারণে উভয় পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে বাজারে আসা গ্রাহকদের সুবিধার্থে সাদা কাগজে লেখা একটি পোস্টার সকল ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে ঝোলানো হয়। যাতে লেখা থাকে ‘শুক্রবার দুপুর ১টা থেকে এ বাজারের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে’। কিন্তু হঠাৎ করেই গতকাল সন্ধ্যার পূর্বে এ বাজারের দু ব্যবসায়ী যথাক্রমে রতন ট্রেডার্সের মালিক রতন দত্ত ও সামছুল হক পাটোয়ারী এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে তাদের প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার ঘোষণা দেন।

এ অবস্থায় একদিকে বাজারের সকল ব্যবসায়ী পূর্বের ঘোষণা বহালের বিষয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় পড়ে যান। আর দোকান কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ শুরু হয়। তাদের বক্তব্য হচ্ছে, বাজারের দুজন ব্যবসায়ী নিজেদের স্বার্থের জন্যে কি আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করবে? কারণ শ্রম আইন অনুযায়ী ৮ ঘণ্টা চাকুরির নিয়ম থাকলেও আমরা ১৬ ঘণ্টা চাকুরি করছি। আবার সপ্তাহে ১ দিন আমাদের বন্ধ রাখার নিয়ম থাকলেও আমরা মালিক পক্ষের সঙ্গে সমঝোতা করে অর্ধবেলা ছুটি নিলাম। তাও এ দুজন ব্যবসায়ীর জন্যে আমরা দেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হবো? তাই এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ী রতন দত্তের সাথে সরাসরি কথা হলে তিনিক্রাইম এ্যকসান ২৪ডটকমকে বলেন, বাজারে ব্যবসায়ীদের কোনো সংগঠন নেই। তাই আমি কারো সিদ্ধান্ত বুঝি না। আমার প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। অপর ব্যবসায়ী সামছুল হক পাটোয়ারী ক্রাইম এ্যকসান ২৪ডটকমকে বলেন, যারা আমার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছে তারা মিথ্যা কথা বলেছে। এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তবে কর্মচারীদের সাথে আমি একমত।

এ বিষয়ে শ্রম অধিদপ্তরের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনিক্রাইম এ্যকসান ২৪ডটকমকে বলেন, আমাদের অফিস কুমিল্লায়। তাছাড়া জনবল সঙ্কটের কারণে বিষয়গুলো দেখা হচ্ছে না। আগামী সপ্তাহে এ বিষয়ে আপনার সাথে কথা হবে। তবে দোকান কর্মচারীদের এ দাবি সঠিক এবং প্রাপ্য। এটি আইনেও উল্লেখ রয়েছে। যারা মানছে না তারা আইন অমান্য করছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

জেলা প্রশাসকের উদ্দোগে সততা স্টোরচালু

 মানিক দাস।। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মো: মাজেদুর রহমান ...