সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার স্মৃতিচারণ

মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার স্মৃতিচারণ

মানিক দাস :
মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ৫ম দিনে স্মৃতিচারণ পরিষদের ব্যবস্থাপনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠিথ হয়েছে। বিজয় মেলার স্টিয়ারিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা মহসিন পাঠানের সভাপতিত্বে ও মুক্তিযদ্ধের স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব সানা উল্লাহ খানের সঞ্চালনায় প্রধান স্মৃতিচারনের বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা বাচ্চু মিয়া পাটওয়ারী। তিনি বলেন, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগ হয়। ব্রিটিশ ২শ বছর ক্ষমতায় ছিল। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ন্যাশনাল পার্টি গঠিত হয়। মাওলানা ভাসানী সহ অনেকে সেই পার্টিতে ছিল।

৬ দফা আন্দোলন করে আওয়ামীলীগকে নেওয়ার চেষ্টা করে। বঙ্গবন্ধু প্রতিবাদ করলেন যেন উর্দু ভাষা না করে বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষা করার জন্য। ৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে অনেক জ্ঞানী গুণীকে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুকে আগরতলার ষড়যন্ত্র মামলা জড়িয়ে পাকিস্তানে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। বাঙালি জাতি স্লোগান তুলে জেলের তালা ভাঙব, শেখ মুজিবকে আনব। শেখমুজিবুর রহমান মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরে আসেন। ৬৯ সালের নির্বাচনের সংখ্যা গরিষ্ঠতার অর্জন করেও ক্ষমতায় যেতে পারেনি। তারপরও বঙ্গবন্ধু অন্ন বস্ত্র বাসস্থাননিয়ে ৪টি দাবি নিয়ে আন্দোলন করতে চায়। পাকিস্তানিরা তাহতে দেয়নি। পরে ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দানে স্বাধীনতার ডাক দেন। ২৫ মার্চ রাতে রোকেয়া হলে আর রাজবাগ পুলিশ লাইনে পাকিস্তানিরা হামলা করে অনেককে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুকে আটক করে নিয়ে যায় পাকিস্তানি কারাগারে। সকলে মিলে একটি কমিটি করে।

ওই কমিটি ছিল বঙ্গবন্ধুশেখ মুজিবুর রহমা। ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন করা হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধেরসময় জামাতরা মুক্তিযোদ্ধাদের ঘর থেকে নারীদের ডেকে নিয়ে নির্মম নির্যাতন শুরু করে। তিনি আরও বলেন, আমি চাঁপদুর থেকে কুমিল্লা হয়ে সোনামুড়া ক্যাম্পে যাই। সেখানে মায়া চৌধুরী বীর বিক্রম আমাকে কাঠালিয়া ক্যাম্পে পাঠায়। মেজর ওহাবকে বলি উচ্চ প্রশিক্ষনে যেতে চাইলে তিনি নিষেধ করেন। পরে পরে রাজা মিয়ার কাছেগিয়ে ১২/১৩ হাজার লোকের মধ্যে বাচাইতে আমি টিকে যাই। ৩শ মুক্তিযোদ্ধাকে আগরতলা থেকে ধর্মনগরে নেওয়া উচ্চ প্রশিক্ষণে নেওয়ার জন্য। সেখান থেকে আমাদেরকে নিয়ে যাওয়া কলকতার মুর্শিদাবাদরে বাগিবতির নদীরতীরে।

আমাদের কোন সেক্টর কমান্ডার ছিল না। ইন্দিরা গান্ধী বলেছিলেনতোমরা দেশের জন্যপ্রস্তুত। তোমাদেরদেখে মনে হয়েছেতোমাদের বিজয় নিশ্চিত। মেজর জিয়াউর রহমান বলেছেন আমাদের চট্টগ্রামযেতে। ২০ জনের গ্রুপের লিডার আমাকে দেওয়া হয়। সাগর পাড়ি দিয়ে নৌকা নিয়ে আমরা সুন্দরবনে চলে যাই। সেখানে ২টি হরিন শিকার করে রান্না করে খেতে বসলে পাকিস্তানিরা ২টি নৌখা নিয়ে আক্রমন করে। সহযোদ্ধাদের সাথে সাহস রাখতেবলি। পাকিস্তানিরা কাছাকাছি আসামাত্র গুলি ছুড়ি। তখনপাকিস্তানিদের আটকে ফেলি।

খালেখ নামের মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার মিলে এদেরকে হত্যা করি। আমাদের নির্দেশ দেওয়া হয়। কাউখালি যেতে। রওনা দেই। মুলাদির কাছে গিয়ে পাকিস্তান বাহিনীর জন্য এগোতে পারি না। তখন আমরা নদীতে ঝাপিয়ে পড়ি। এেকটি টয়লেটের ভেতর দিয়ে আহতঅবস্থায় পালিয়ে যাই দেড় মাইল দুরে অসুস্থ অবস্থায় পড়ে থাকলে একজন মুয়াজ্জিন আমাকে উদ্ধঅর করে চিকিৎসা করিয়ে আমাকে বরিশাল পাঠিয়ে দেয়। সেখান থেকে আমরা চাঁদপুরে এসে জহিরুল হক পাঠানের সাথে সাক্ষাত করি। তখন নেতৃত্বে ডাকাতিয়া নদীতে পাকিস্তানিরেদ যোদ্ধ জাহাজ লুরাম ডোবানোর জন্য আমরা রঘুনাথপুর মাদ্রাসার কাছে চলে আসি। নদীতে নেমে ওই জাহাজে মমিনুল হক পাটওয়ারীর নেতৃত্বে যুদ্ধ জাহাজে বোমা বেধে দেই। ৩ ঘণ্টা পর ওই বোমা বিস্ফোরনে লোরাম জাহাজটি নদীতে ডুবে যায়। রাজাকার কমান্ডার খোকাকে মিল করি শাহজাহান কবির, মমিন উল্লাহ পাঠান আমি এক ডুবে লুড়ামে বোমা ফিট করে দিয়ে আসি।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ক্যাপ্টেন জহিরুল হক পাঠান গ্রুপের সদস্য ডা. দেলোয়ার হোসেন বলেন, ২৫ মার্চ স্বাধীনতার ডাক দেন বঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুর রহমান। তিনি বলেছেন যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়।আমরা মহিলা কলেজের হোস্টেলে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি ছাত্র সংগ্রাম কমিটি গঠন করে। মরহুম করিম পাটওয়ারী ও আবুজাফর মাইনুদ্দিন কোথাও যাননি। দেশের মাটিতে থেকে স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছেন। পাইকপাড়া হাইস্কুূল থেকে মুক্তিযুদ্ধের বই রচনার ইতিহাস রচনা করা হয়। শবেবরাতের রাতে হাজীগঞ্জ বড় মসজিদে গিয়ে কলিমুল্লাহ ভূইয়া পাকিস্তানি দালালদের খুজতে শুরু করে। কিন্তু সেখানে তাদের পাওয়া যায়ন। আমরা একটি নৌখায় গিয়ে দেখি ৫ জন রাজাকার ঘুমিয়ে আছে। তখন তাদের কাছ থেকে সুকৌশলে অস্ত্রগুলো নিয়ে আসি।

কলিমুল্লাহ ভূইয়ার নেতৃত্বে ওই রাজাকারদের বেধে ফেলি। নৌকা চালিয়ে নেয় ওই রাজাকাররা। রাজাকারগণ মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা করে। তখন তাদের নিয়ে আজাদ বাহিনী গঠন করি। আমি দাউদকান্দি, লাকসাম, হাসনাবাদ যুদ্ধ করেছি। ফরিদগঞ্জের পাইকপাড়ায় ৩শ লোক একত্রিত হলো। তাদের কাছে খাবার ছিল না। আমরা ফরিদগগঞ্জের গেডাউন লুট করে আটা ময়দা ডালডা খাদ্যআমরা মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাটিগুলোতে আমরা পৌছে দেই। এভাবে ৯ মাস যুদ্ধ করে আমরা স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা ব্যাংকার মুজিবুর রহমান। সবশেষে সাংষ্কৃতিক পরিষদের ব্যবস্থাপনায় ঢাকা নাচ মিউজিক একাডেমির সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী এফ.এ সুমন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের

মতলব উত্তরে ভূয়া মাতৃত্বকালীন ভাতা উত্তোলন করছেন ইউপি সদস্য হোসনেয়ারা মতলব উত্তর ...