সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / শীতে কাতর ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষ

শীতে কাতর ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁওয়ে গত এক সপ্তাহ ধরে ক্রমশে বাড়ছে শীতের তীব্রতা। দিনের বেলায় হালকা রৌদ্র থাকলেও সন্ধ্যার পরই ঠান্ডার প্রকৌপে কাবু হয়ে যাচ্ছে সাধারণ মানুষ। এর ফলে রাত ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে কর্মস্থল ত্যাগ করে গৃহে ফিরে যাচ্ছে কর্মব্যস্ত মানুষ।

ঠাকুরগাঁও কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আফতাব উদ্দীন মুঠোফোনে বলেন, বুধবার সকালে ঠাকুরগাঁও জেলায় সর্বনিন্ম তাপামাত্রা ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার ১৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস ছিল। হিমালয়ের কোলঘেঁষা সীমান্তবর্তী জেলা ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড়ে প্রতি বছর শীতের তীব্রতা অন্যান্য জেলার চেয়ে বেশি। প্রতি বছর অগ্রহায়ন মাসে শীতের আগমন ঘটে। পৌষ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে মাঝামাঝিতে শীতের প্রকোপ বাড়ে এ ২ জেলায়।

এ বছর একটু আগাম শীতের আগাম আগমনে কিছুটা বিপাকে সাধারণ মানুষ। ভোরবেলা কুয়াশাছন্ন থাকছে চারদিক। এর ফলে চলাচলের রাস্তাগুলোতে ট্রাক, বাস, মোটরসাইকেলগুলোকে দিনের বেলা হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাফেরা করতে হচ্ছে। সন্ধ্যা নামলেই শুরু হচ্ছে ঠান্ডা।

রাত ৮টার পরেই শীতের কম্বল, লেপ মুড়ি দিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে মানুষ। অনেকেই আগুন জ্বালিয়েও শীত নিবারনের চেষ্টা করছেন। স্থানীয়রা জানায়, দিনের বেলা বেশ গরম থাকলেও সন্ধ্যা নামার পর থেকেই কুয়াশা পড়তে শুরু করে। রাতভর বৃষ্টির মত টুপটুপ করে কুয়াশা ঝরতে থাকে। বিশেষ করে ধানের শীষে কুয়াশা বিন্দু বিন্দু জমতে দেখা যায়।

সকালে যারা ঘাসের ওপর দিয়ে হাঁটাচলা করেন কুয়াশার কারণে তাদের কাপড় ভিজে যায়। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের লালাপুর গ্রামের বাস চালক মকবুল হোসেন জানান, ভোরবেলা গাড়ী নিয়ে বের হবার সময় রাস্তায় কুয়াশা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাছাড়া শীত পুরোদমে এখনও আসেনি। পুরোদমে শীতের আগমণ এর চেয়ে বেশি ঠান্ডা হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন তিনি।

জেলা শহরের টেকনিক্যাল মোড়, কালীবাড়ি, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও রোডসহ বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখা গেছে লেপ-তোশক বানাতে ব্যস্ত কারিগররা। দোকানের সামনে বসে একটার পর একটা লেপ-তোশক বানাচ্ছেন তারা। লেপ-তোশক সেলাইকর্মী নূর আলম, জাহিদুল, রফিক নামে কারিগররা বলেন, প্রায় প্রতিদিনই তারা লেপ সেলাই করে থাকেন। সাইজ অনুযায়ী প্রতিটি লেপে তারা মুজরি পান ২০০ থেকে ২৫০ টাকা। সেলাইকর্মীরাও সবাই একই নিয়মে মজুরি নিয়ে থাকেন। দিন শেষে ৫শ থেকে ৮শ টাকা রোজগার হয় তাদের। তা দিয়েই সংসার চালান তারা।

পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা বেসরকারী এনজিও ব্রাকের এরিয়া ম্যানেজার আবু সাঈদ বলেন, শীতকালে আমরা প্রতি বছরই শীতার্তদের পাশে দাড়ানোর চেষ্টা করি। চেষ্টা করি তীব্র শীতে একটু গরমের পরশ দেয়ার। ঠাকুরগাঁওয়ে যখন প্রচন্ড শীত পড়া শুরু করবে, দু-চারদিন কুয়াশায় সূর্য মানুষ দেখতে পাবে না, এমন সময়গুলোতে আমরা শীতার্ত সহযোগিতা করে ব্র্যাক।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার স্বেচ্ছাবেংরোল জিয়াবাড়ী সমাজ কল্যাণ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এম হাসান আলী জানান, প্রতি বছর সংগঠন থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ করে থাকি আমরা। এক সপ্তাহ পর আমরা শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু করবো।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, জেলা প্রশাসন ইতিমধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেছে। পাঁচটি উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের শীতবস্ত্র প্রেরণ করা হয়েছে। খুব শ্রীঘ্রই সেগুলো বিতরণ শুরু হবে। এছাড়াও ব্যক্তিগত তহবিল থেকে কিছু লেপ তৈরি করা হয়েছে। যারা একেবারে অসহায়, তাদেরকে লেপ ও আর্থিক কিছু নগদ অর্থ দিয়ে সহতায়তা করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান তিন।

তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে নিজ নিজ এলাকার পিআইও অফিসারদের সাথে কথা বলে শীতবস্ত্রের চাহিদা পাঠানোর জন্য। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লা আল মামুন জানান, শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু করেছি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিকট দুস্থ্যদের চাহিদা চাওয়া হয়েছে। সেগুলো যাচাই বাছাই করে পুরোদমে বিতরণ কার্যক্রম শুরু হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের

মতলব উত্তরে ভূয়া মাতৃত্বকালীন ভাতা উত্তোলন করছেন ইউপি সদস্য হোসনেয়ারা মতলব উত্তর ...