সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ৭ম দিনে স্মৃতিচারণ

মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ৭ম দিনে স্মৃতিচারণ

মানিক দাস ॥ এসো মিলি মুক্তির মোহনায় স্লোগানকে নিয়ে এ বছর ২৮ তম মাস ব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ৭ম দিনে স্মৃতিচারণ পরিষদের ব্যবস্থাপনায় মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১২ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় মুক্তিযোদ্ধাদের এই স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠিত হয়। মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব মাস্টারের সভাপতিত্বে ও সাতারু সানাউল্লাহ খানের সঞ্চালনায় প্রধান স্মৃতিচারকের বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা অজিত সাহা। এ সময় তিনি বলেন, আজকাল আমাদের দেশপ্রেম ও দেশকে ভালো বাসার অনেক ঘাটতি রয়েছে। এ অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধের কথা মনে পড়ে যায়। আমি লাকসাম মনহরপুর থানার হা¯œাবাদ এলাকায় এক ব্যক্তি স্বাধীনতা বিরোদী কাজ করছিল। ওই ব্যক্তির ভাইপো সংগ্রাম পরিষদের অর্থ সম্পাদকের দায়িত্ব পালণ করেন। আমরা তাকে নিয়েই ওই স্বাধীনতা বিরোধীকে ধরার জন্য নৌকাযোগে যাই। সংগ্রাম পরিষদের সেই লোকটি তার চাচাকে দরজার কড়া নেড়ে ডেকে আনে। স্বাধীনতা বিরোদী ব্যক্তিটি দরজা খুললে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা তাকে ধরে এনে ভাইপোর সামনেই হত্যা করি। এই যে দেশপ্রেম এখন আর নেই। দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়তে চাই। তিনি আরও বলেণ, আমরা ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাইসিলা মাদ্রাসায় প্রথমে অবস্থান করি। উত্তর দিক থেকে পাঞ্জাবী ও দক্ষিন দিক থেকে পাকিস্তানি পুলিশ আসতে থাকে। তখন আমরা মাদ্রাসা থেকে দাওয়া করে তারা পালিয়ে যায়। আমরা কমলাপুর পাটওয়ারী বাড়িতে গিয়ে অবস্থান নেই। সেই সময় লেন্স নায়েক ফারুক পাটওয়ারী আমাদেরকে সহায়তা করে। খাজুরিয়া হুগলি পাটওয়ারী বাড়িতে সে গুলিবিদ্ধ হয়। তখন আমরা গুলি করে পাকিস্তানি এক পুলিশকে হত্যা করি। সুবেদার আব্দুর রব সাহেবের নেতৃত্বে আমরা আবারও কমলাপুরে চলে যাই। একট পাট ক্ষেতের পাশে অবস্থান নেই। ৫/৭ জন মুক্তিযোদ্ধা রব সাহেবের নেতৃব্ েপাকিস্তানিদের গুলি করে। আমরা গুলি ছুড়তে ছুড়তে পিছু হটি জীবন রক্ষার জন্য। যুদ্ধের শুরুতে আমরা চাঁদপুর শহরের ১৪ কোয়ার্টারে বাশের লাঠি নিয়ে প্রশিক্ষণ নেই। আমি তখন ছাত্র ইউনিয়ন করতাম। যুদ্ধ শুরু হলে ফরিদগঞ্জের গল্লাকে দেখা হয় জীবন কানাই চক্রবর্তী সহ অনেকের সাথে। তাদের সাথে দুপুরে খাবার খাই। তার পরে আমরা ঘনিয়ায় ট্রেনিং নেই। জহিরুল হক পাঠানের সাথে দেখা হয়। আমাদেরকে সংগঠিত করে জহিরুল হক পাঠান যুদ্ধ করর জন্য। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গঠন করতে বলা হয়। মরহুম করিম পাটওয়ারী, সিরাজুল ইসলাম, নসু চৌধুরী, আবু জাফর মাইনুদ্দিন, ্আবু তাহের পাটওয়ারী তারা ছিলেন রসদ আর গোলাবারুদ যোগার করে দেওয়ার জন্য। আমরা খবর পাই ফরিদগঞ্জের খাজুরিয়া বাজারে পাকিস্তানিরা অবস্থান করেছে। আমরা সেখানে যাই। পাকিস্তানিদের দেখে গুলি ছুড়ি। তখন তারা জবাব না দিয়েই ফরিদগঞ্জের দিকে পালিয়ে যায়। গাজীপুর ডাকাতিয়া নদীর তীরেঅবস্থিত। আমরা সেখানে যুদ্ধ করি। তখন পাকিস্তানিরা চান্দ্রারদিকে পালিয়ে যায়। প্লাটুন কমান্ডার ছিল আমাদের বাচ্চু মিয়া। সেখান থেকে পায়ে হেটে খাজুরিয়া যাই। মাঝি বাড়িতে আমরা অবস্থান নেই। আমাদের অবস্থানের বিষয়টি পাকিস্তানিরা জেনে গিয়েছিল। আমরা তাদের সাথে যুদ্ধ করি গেরিলা পদ্ধতিতে। কৌশলে আমরা তাদেরকে প্রতিহত করি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ট্রাংক রেজিমেন্টের সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মোঃ লুৎফুর রহমান।

 

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের

মতলব উত্তরে ভূয়া মাতৃত্বকালীন ভাতা উত্তোলন করছেন ইউপি সদস্য হোসনেয়ারা মতলব উত্তর ...