সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / জাতীয় স্মৃতিসৌধে কয়েক স্তরের নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে: ঢাকার পুলিশ সুপার 

জাতীয় স্মৃতিসৌধে কয়েক স্তরের নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে: ঢাকার পুলিশ সুপার 

আলমাস হোসেন:  ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে মুক্তির দিন এটি। এদিন বিশ্বের মানচিত্রে সৃষ্টি হয় নতুন একটি সার্বভৌম দেশ বাংলাদেশ। যা বাঙ্গালি জাতিকে এনে দেয় আত্মপরিচয়ের ঠিকানা। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগকারী সেই বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে ইতিমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে জাতীয় স্মৃতিসৌধ। জাতির জনকের নেতৃত্বে বাঙালির শ্রেষ্ঠতম অর্জন স্বাধীন বাংলাদেশ। একাত্তরে হানাদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও তাদের দোসরদের বিরুদ্ধে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তি সংগ্রামের চূড়ান্ত বিজয় আসে ১৬ই ডিসেম্বরে।
জাতি এবার উদযাপন করবে বিজয়ের ৪৮তম বার্ষিকী। তাই লাল আর সবুজের সমারোহে বাহারি ছোট ছোট বাগানগুলোকে সাজানো হয়েছে অপরূপ সাজে। চত্বরের সিঁড়ি ও নানা স্থাপনায় পড়েছে রঙ-তুলির আঁচড়।
১৬ই ডিসেম্বরের ভোরের সূর্য্য ওঠার সাথে সাথেই জাতীয় স্মৃতিসৌধে বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি জানানো হবে রাষ্ট্রীয় শ্রদ্ধা। এরপর নামবে লাখো মানুষের ঢল। তাই পুরো স্মৃতিসৌধ এলাকায় নেয়া হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
দিবসটি উপলক্ষে গণপূর্ত বিভাগের কর্মীদের টানা কয়েকদিনের অক্লান্ত পরিশ্রমে এক নতুন রূপ ধারণ করেছে স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণ।
সাভার গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, টানা কয়েক দিন ব্যাপক কর্মযজ্ঞ আর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা শেষে স্মৃতিসৌধ সেজেছে ভিন্নরূপে। অন্যবারের তুলনায় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে এবার স্মৃতিসৌধকে নতুন আঙ্গিকে সাজানো হয়েছে।
শেষ করা হয়েছে ধোয়ামোছা ও রং তুলির কাজ। স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণকে বিভিন্ন ধাপে রং তুলির আঁচড়ের আলপনায় সাজানো হয়েছে অপরূপ সাজে। স্মৃতিসৌধ মিনারের সম্মুখ ভাগে হেরিংবন্ড ধরে নিচু জায়গাগুলোতে সবুজ ঘাসের মধ্যে শোভা পেয়েছে লাল, নীল, হলুদ, বেগুনিসহ নানা রঙের ফুল গাছের চারা। যা প্রতিবারের মতো এবারও সৌধ এলাকাকে এনে দিয়েছে রঙিন ও বর্ণিল রূপ।
ঢাকার জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, অন্যবারের তুলনায় এবার দ্বিগুণ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দু’পাশ ও ওভার ব্রিজসহ বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি বসানো হয়েছে বাড়তি পুলিশী চেকপোস্ট।
এছাড়াও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিতসহ বাড়ানো হয়েছে সার্বক্ষণিক গোয়েন্দা নজরদারি। সাভারের আমিনবাজার থেকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত কয়েকটি স্তরের নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে।
১৬ ডিসেম্বরের প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বিদেশি কূটনীতিকদের শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদনের পর তা সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে বলেও জানান ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের

মতলব উত্তরে ভূয়া মাতৃত্বকালীন ভাতা উত্তোলন করছেন ইউপি সদস্য হোসনেয়ারা মতলব উত্তর ...