সর্বশেষ সংবাদ
Home / Uncategorized / সাভারে গণধর্ষণের পর গৃহবধূকে হত্যা, জবানবন্দি শেষে তিন আসামি কারাগারে

সাভারে গণধর্ষণের পর গৃহবধূকে হত্যা, জবানবন্দি শেষে তিন আসামি কারাগারে

আলমাস হোসেন: ঢাকার সাভারে আলোচিত গৃহবধূ টুকটুকি হত্যা মামলায় গ্রেফতার আসামীরা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন। গত রোববার (৫ জানুয়ারী) দুপুরে সাভার মডেল থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরণ করলে আসামিরা বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর সাভারের উত্তর জামসিং এলাকায় গৃহবধু টুকটুকিকে গণধর্ষণের পর গলায় ফাস দিয়ে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে ঘাতকরা। এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হলে পুলিশ ব্যপক তদন্ত করে জনি, সেলিম ও জুয়েল নামের তিন আসামিকে গ্রেফতার করে। পরে তারা হত্যার দায় স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

গ্রেফতাকৃতরা হলো- সাভার পৌর এলাকার উত্তর জামসিং মহল্লার মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে জনি (২৪), শুকুর আলীর ছেলে সেলিম (২২) ও নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ লক্ষীবরদী এলাকার মৃত ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে জুয়েল (২৮)।

নিহত হাজিরা বেগম টুকটুকির গ্রামের বাড়ি বরিশালে। সে তার স্বামী মিল্লাতের সাথে সাভার পৌর এলাকার বনপুকুর মহল্লায় ভাড়া বাসায় বসবাস করত এবং মিল্লাত সাভারের ফুটপাতে ব্যবসা করে।

জবানবন্দিতে আসামী জনি, সেলিম ও জুয়েল হত্যাকান্ডের বিষয়টি স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে বলেন, সাভারের বনপুকুর এলাকার গৃহবধু টুকটুকিকে প্রথমে গণধর্ষণ করেন তারা। এসময় ওই গৃহবধূ গণধর্ষণের বিষয়টি সবাইকে বলে দেওয়ার হুমকি দিলে টুকটুকিকে গলায় গামছা পেচিয়ে হত্যা করে আসামীরা। প্রথমে গামছা দিয়ে টুকটুকির গলায় ফাস লাগায় জনি, আর সেলিম ও জুয়েল পা চেপে ধরে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মলয় কুমায় সাহা বলেন, আসামী তিনজনই আদালতে হত্যার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন। নিহত গৃহবধূ গত দুইবছর ধরে সাভারের বনপুকুর এলাকায় তাজুল ইসলামের বাড়িতে স্বামী মিল্লাতকে নিয়ে বসবাস করে আসছিলো। পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে গত ২৫ ডিসেম্বর গৃহবধু টকটুকিকে মোবাইল করে বাড়ি থেকে উত্তর জামসিং এলাকায় ডেকে নেয় জনি। সেখানে প্রথমে জনি তাকে ধর্ষণ করে, পরে সেলিম ও জুয়েল তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

তিনি আরো জানান, গত ২৫ শে ডিসেম্বর রাত আনুমানিক ৭ টা থেকে ১০ টার মধ্যে টুকটুকিকে তারা হত্যা করে। হত্যার পর টুকটুকির লাশ প্রথমে জনির নিজ বাসায় ওয়ারড্রপে রাখে। পরে ২৬ ডিসেম্বর রাতে তারা লাশটি ওই নির্মাণধীন বাড়িতে ফেলে চলে আসে। ২৮ ডিসেম্বর স্থানীয় জনতা লাশটি দেখে সাভার মডেল থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হওয়ার পরই পুলিশ নড়েচড়ে বসে। পুলিশ নিহত নারীর স্বামীর কাছ থেকে টুকটুকির মোবাইল নাম্বার নিয়ে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ঘাকতদের সন্ধানে মাঠে নামে। পরে শনিবার (৩ জানুয়ারী) ভোর রাতে প্রথমে জনিকে তার জামসিংয়ের বাসা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। জনির দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সেলিমকে কেরানীগঞ্জ এবং জুয়েলকে সাভারের কলমা এলাকা থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় সাভার মডেল থানা পুলিশ।

পরে গত রোববার (৫ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকার চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আসামিরা গৃহবধূকে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করলে আদালত তিন আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

সিনহা হত্যা: এবার জবানবন্দি দিতে আদালতে নন্দদুলাল

কক্সবাজার প্রতিনিধি কক্সবাজারে সেনাবাহিনীর মেজর (অব.) সিনহা রাশেদ খান হত্যা মামলায় দোষ ...