সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / আন্দোলনে ঝিমিয়ে পড়া সাতক্ষীরা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে তৃণমূলে অসন্তোষ

আন্দোলনে ঝিমিয়ে পড়া সাতক্ষীরা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে তৃণমূলে অসন্তোষ

জেলা বিএনপি’র নতুন করে যৌবন ফিরিয়ে দিতে সকল পর্যায়ের কর্মীদের আশা 

 সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: 

আন্দোলনে ঝিমিয়ে পড়া সাতক্ষীরা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে তৃণমূলে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। বিতর্কিদের দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি করায় তৃণমূলে ক্ষোভ এবং নেতাকর্মীদের মাঝে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। কমিটি গঠনের পর থেকে ফুঁসে উঠছেন নেতাকর্মীরা। বিভিন্ন গ্রুপ-উপগ্রুপে চলছে গোপন বৈঠক। ফলে তৃণমূল নেতাকর্মীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠতে পারেন, জানিয়েছে দলীয় সূত্র।

সদ্য অনুমোদন পাওয়া সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হলেও  জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে শহরের অদূরে আমতলাস্থ নিরিবিলি কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। সভা হলেও সেখানে ৩৫ সদস্যের মধ্যে মাত্র ৭ জন উপস্থিত ছিলেন বলে সূত্র জানায়। তাহলে বাকি সদস্যরা কি এই কমিটি মানেন না? নাকি আহবায়ক কমিটির নেতৃত্বে যারা আছেন সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করছেন না।

এমন প্রশ্ন এখন বিএনপি সমর্থিত নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে।ঝিমিয়ে পড়া সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি সংস্কারপন্থী সৈয়দ ইফতেকার আলীর নেতৃত্বে শুধু ঝিমাচ্ছে। তৃণমূলে পদত্যাগ দাবি? জেলা বিএনপির ঘাড়ে চাপনো আহবায়ক কমিটির ৩৫ সদস্যের ২৮ জন সম্মানিত সদস্যরা, সংস্কারপন্থী সৈয়দ ইফতেকার আলীর নেতৃত্বে মানেনা।তৃণমূল ও জেলা বিএনপির ৭জন  ছাড়া কোন নেতা কর্মী নেই, সংস্কারপন্থী সৈয়দ ইফতেকার আলীর সঙ্গে, ধিক্কার জানায় সংস্কারপন্থীদের ও জেলা বিএনপির ঘাড়ে চাপনো কমিটির আহবায়ক সংস্কারপন্থী সৈয়দ ইফতেকার আলী কে।

সংস্কারপন্থী, কমিটি বিক্রিকারী, ১/১১ সময় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেইমানি কারী সেই সৈয়দ ইফতেকার কে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপি ও তৃণমূল বিএনপির নেতা পদত্যাগ চাই। তৃণমূল থেকে জেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরা এই ধরনের কার্যকলাপের জন্য ধিক্কার জানাই অতি দ্রুত বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ করিয়া সাতক্ষীরা জেলা বিএনপি’র নতুন করে যৌবন ফিরিয়ে দিতে সকল পর্যায়ের কর্মীদের আশা। সংস্কারপন্থী ও ৯০ জন নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা প্রদানের মূল হোতা যুগ্ন আহবায়ক কেন্দ্র কে করল? এভাবে জেলা বিএনপি কে স্রোত বিহীন নদীতে রূপান্তর করল। এই সকল কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে প্রশ্ন এটাই।

সাংগঠনিক সভায় উপস্থিত ছিলেন আহবায়ক সৈয়দ ইফতেখার আলী, সদস্য সচিব আব্দুল আলীম এবং হাবিবুর রহমান হবি, মোদাচ্ছেরুল হক হুদা, শের আলী, তাসকিন আহমেদ চিশতি, মহিউদ্দীন সিদ্দীকি। তাহলে ৩৫ সদস্যের মধ্যে সাতজন বাদে বাকি সদস্যরা কি জানেন না এই কর্মসূচি সম্পর্কে? নাকি তাদের অবহিত করা হয়নি? এমন প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার কারণ জানতে চাইলে অনেকেই বলেন আমরা আহবায়ক হিসেবে ত্যাগী নেতা চাই। নানান জটিলতা এবং বিতর্কিতদের কমিটিতে রাখা হয়েছে। এভাবে দলের শৃঙ্খলা ফিরবে না।

প্রকৃত ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন না হলে আগামী দিনে বিএনপি অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পারে বলে মনে করেন রাজনীতিবিদরা। দলীয় সূত্রে জানা যায় দ্রুত কাজ করার জন্য ক্ষণিক সময়ের জন্য ছোট করে আহ্বায়ক কমিটি করা হয়েছে। যদিও কেন্দ্রীয় নেতারা আহ্বায়ক কমিটি দিয়েছেন। তবে বিতর্কিদের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা যায়।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

হাজীগঞ্জের ৩ নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন

আনোয়ার হোসেন মানিক চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ৩ নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ...