সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / ৩০ জানুয়ারি হিন্দু সম্প্রদায়ের সরস্বতি পূজা চাঁদপুরের মন্দিরগুলোতে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ

৩০ জানুয়ারি হিন্দু সম্প্রদায়ের সরস্বতি পূজা চাঁদপুরের মন্দিরগুলোতে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ

মানিক দাস ॥ আগামী ৩০ জানুয়ারি হিন্দু সম্প্রদায়ের দ্বিতীয় বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব বিদ্যার্চনায় দেবী সরস্বতির পূজা। ইতিমধ্যে চাঁদপুর সদর উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ স্থানীয় কালী বাড়ি মন্দিরে পূজা উদ্যাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা করেছে। চাঁদপুর শহরের গোপালজিউর আখড়া, শ্রী শ্রী কালী বাড়ি মন্দির ও পুরাণবাজার হরিসভা মন্দিরে প্রতিমা তৈরির কারিগররা নির্ঘুম রাত কাটিয়ে সরস্বতি প্রতিমা থৈরি করছে।

বিদ্যা দেবীর আরাধনায় প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও চাঁদপুর শহরের মন্দিরগুলোতে পার্শ্ববর্তী জেলার ফরিদপুরের জীবন কৃষ্ণ পাল ও গোবিন্দ পাল প্রায় ১৫/২০ জন কারিগর দিয়ে প্রায় ৫ শতাধিক প্রতিমা তৈরির কাজ করে যাচ্ছে। সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত খড়ের তৈরি বেনার উপর ১৮ মাটির প্রলেপ দিয়ে সরস্বতি প্রতিমার মূর্তি থৈরি করছে। চাঁদপুর শহরে বিভিণœ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এ সরস্বতি পূজা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পাড়া মহল্লায় প্যান্ডেল তৈরি করে উদ্যাপন করে থাকে।

ইতিমধ্যে তারা বিভিন্ন ডেকোরেটর ভাড়া করে সাজ সজ্জার কাজ শুরু করেছে। এছাড়া নারায়নগঞ্জ, ঢাকা ও মুন্সিগঞ্জ থেকে আলোকসজ্জার জন্য বিভিন্ন ধরনের অত্যাধুনিক বাতি ও ব্যান্ড পার্টির এবং ইকু সাউন্ড সিস্টেম ভাড়ার জন্য ছুটাছুটি করছে। চাঁদপুর শহরের কালী বাড়ি মন্দির, গোপাল জিউর আখড়া, রামকৃষ্ণ আশ্রম, মেথা রোড, জোড়পুকুর পাড়, প্রতাপ সাহা রোড লোকনাথ মন্দির, পুরাতন আদালত পাড়া, নতুন বাজার ঘোষপাড়া, চাঁদপুর সরকারি কলেজ, পুরাণবাজার ঘোষপাড়া, দাসপাড়া, হরিসভা মন্দির, বারোয়ারি মন্দির, নিতাইগঞ্জ এসব এলাকায় সবচেয়ে বেশি জাকঝমকপূর্ণভাবে সরস্বতি পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এ বছরও তার ব্যতিক্রম ঘটছে না। বরং বিগত ব্ছরগুলোর চেয়ে এ বছর আরও জাকঝমকপূর্ণভাবে সরস্বতিপূজা উদ্যাপন করা হবে। জীবন কৃষ্ণ পাল জানান, আমরা বিগত বছরের মতো এ বছরও নতুন বাজার গোপাল জিউর আখড়া ও পুরাণবাজার হরিসভা মন্দিরে প্রায় ৩ শতাধিক প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। ৮/১০ জন কারিগরি দিবারাত্রি এ প্রতিমা তৈরির কাজ করে যাচ্ছে। পূজা আয়োজকদের দেখানো ডিজাইন অনুযায়ী এবং আমাদের নির্দিষ্ট ডিজাইন অনুযায়ী আমরা প্রতিমা তৈরি করছি। অপরদিকে গোবিন্দপাল জানান, আমি বিগত বছরের মতো কালী বাড়ি মন্দিরেও প্রায় ২ শতাধিক প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। তবে বিশেষ করে পূজার আয়োজকদের দেখানো ডিজাইন অণুযায়ী আমি প্রতিমা তৈরি করছি। আমাকে সহযোগিতা করার জন্য আরও ৮/১০ জন কারিগর প্রতিমা তৈরি করে যাচ্ছে। আমরা চাই ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী প্রতিমা তৈরি করে দিতে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

বর্ষার জলে ভেসে গেল প্রজেক্টের লক্ষাধিক টাকার মাছ।

রেদোয়ান খান রাজন  চাঁদপুর জেলা, মতলব উত্তর,   ৯নং জহিরাবাদ ইউনিয়নের ,৯ নং ...