সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে দলীয় প্রধানের প্রতি আহ্বান

চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে দলীয় প্রধানের প্রতি আহ্বান

মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে পৌরবাসীর সেবক হতে চাই———অ্যাডঃ মজিবুর রহমান ভূঁইয়া
গোলাম মোস্তফা

চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি, ১৯৮৭, ৯০, ৯২ ও ৯৫ সালে কারানির্যাতিত সাবেক ছাত্রনেতা, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের দুবারের সাংগঠনিক সম্পাদক, চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক, চাঁদপুর জেলা জজকোর্টের অতিরিক্ত পিপি অ্যাডঃ মোঃ মজিবুর রহমান ভূঁইয়া বলেছেন, ছাত্রজীবন থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক হিসেবে জনসেবার ব্রত নিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছি। শুধু তাই নয়, পেশাগত জীবনে নিজের আইন পেশাকেও জনস্বার্থে ব্যবহার করে মানুষকে আইনী সহযোগিতা দিয়ে সেবা করছি। আসন্ন চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে জনগণের রায় নিয়ে পৌরবাসীর একজন সেবক হতে চাই। চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাচনে দলের কাছে মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন চাইবো। তবে হ্যাঁ দলের সকল সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত, এটা কে মেনে নিয়ে আমি রাজনীতি করছি।

অ্যাডঃ মোঃ মজিবুর রহমান ভূঁইয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নিজেকে ঘোষণা দিয়ে বলেন, ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের কর্মী হয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করি। জন্ম এ শহরে। অতএব, সে থেকে আজো পৌরবাসীর পাশে আছি। পৌরবাসীর অনুরোধে তাদের সেবক হওয়ার ইচ্ছে নিয়ে মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছি।

তিনি আরো বলেন, দলের কর্মী থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছি। এ দলের জন্যে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের ত্যাগ, শ্রম ও অবদান রয়েছে। তাই দলীয় মনোনয়ন চাওয়ার অধিকার আমার রয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিবে দল। অতএব দলের প্রতি আনুগত্য রয়েছে। তাই দল যে সিদ্ধান্ত দিবে সেটি মাথা পেতে মেনে নেবো। কারণ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা রাজনীতি করছি। তিনি আমাদের অভিভাবক, তাঁর প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস রেখে বিগত দিনের ন্যায় আগামীতেও এ দলকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী সংগঠনে পরিণত করতে কাজ করে যাবো।

তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়য়েন্ত্রর মাধ্যমে হত্যার মধ্য দিয়ে এ দেশ থেকে দল ও জাতির জনককে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্রকারীরা সেদিন আমাদের মতো তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের জন্য সফল হতে পারেনি। সে সময় মফস্বল পর্যায়ে দলের নাম নেয়া যেত না। সকল রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে আমাদের পরিবারের সদস্যরা এ দলকে সুসংগঠিত করতে বহু ত্যাগ স্বীকার করেন। আমাদের পরিবার এ দলের রাজনীতি থেকে এক বিন্দুও পিছ পা হয়নি। শুধু তাই নয়, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে স্বাধীনতার সংগ্রামে আমার মামা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আঃ মালেক ভূঁইয়া, আমার দু বড় ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম সফিকুর রহমান দুলাল ভূঁইয়া ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া অস্ত্র হাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন।

এ দলের রাজনীতি করতে গিয়ে আমাদের পুরো পরিবার লোভনীয় কিছুর দিকে না তাকিয়ে বরং বার বার নির্যাতিত ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমার পরিবারের সদস্যদের এ দলের প্রতি ত্যাগ তিতিক্ষা এ জেলাবাসী ও আওয়ামী লীগের জাতীয় পর্যায়ের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের জানা রয়েছে। আমার মামা বীর মুক্তিযোদ্বা মরহুম আঃ মালেক ভূঁইয়া দুঃসময়ে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে গিয়ে নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। আমার বড় ভাই রফিক ভূঁইয়া দলের দুঃসময়ে এ জেলা যুবলীগকে শক্তিশালী যুব সংগঠনে পরিণত করেছেন। আমার দু ভাই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহত হয়ে এখনো প্রতিনিয়ত চিকিৎসা নিতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, ১৯৮৪ সাল থেকে কর্মী হিসেবে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করি। ১৯৮৭ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে ডিটেনশনে জেলে যেতে হয়। ঐ বছর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং ১৯৮৯ সালের ২৩ মে সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হই। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করি এবং নির্যাতিত হয়ে কারাভোগ করি। ১৯৯২ সালের ২৭ নভেম্বর জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে সভাপতি পদে নির্বাচিত হই। ১৯৯২-৯৪ সালে জেলার যে সকল কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচন হয়, আমার নেতৃত্বে সে কলেজগুলোতে প্যানেল দেয়া হলে ছাত্রলীগ নিরঙ্কুশভাবে বিজয়ী হয়। স্বাধীনতার পর ছাত্রলীগ এ প্রথম ১৯৯৪ সালে চাঁদপুর সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভিপি, এজিএসসহ নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করে। বিএনপি জামাত জোটের শাসনামলে ১৯৯৪ সালে ৪টি মামলায় ও ২০০১ সালে জোট সরকারের রোষানলে পড়ে চুরিসহ মোট ১৪টি মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ কারাভোগ করি। ছাত্রজীবন থেকে আজো সকল আন্দোলন-সংগ্রামে সক্রিয় আছি। রাজনৈতিক জীবনের সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাকে দু’বার সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়েছেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ রুপান্তরিত করার জন্য পুরো দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে। এ পৌরবাসীর একজন সেবক হয়ে আমিও হতে চাই উন্নয়নের অগ্রযাত্রার সহযাত্রী।

২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে সকল স্থানীয় সরকারের নির্বাচন ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি সক্রিয় এবং অগ্রণী ভূমিকা পালন করি। যা শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি মহোদয় অবগত আছেন। আবারো দলীয় সভানেত্রী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা এ চাঁদপুরবাসীর উন্নয়নে আমাদের আস্থার প্রতীক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রথম নারী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাবেক সফল পররাষ্ট্রমন্ত্রী, তিনবারের নির্বাচিত সাংসদ শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনিকে চাঁদপুর জেলার অভূতপূর্ব উন্নয়নে হাত বাড়িয়ে দিয়ে মেঘনার ভাঙ্গন থেকে রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ সহ সকল উন্নয়নের ক্ষেত্রে এক অবিস্মরণীয় অবদান রেখে চলছেন। দলের কর্মী হিসেবে আমিও এর গর্বিত অংশীদার।

সর্বোপরি বলবো, আমার গোটা পরিবার আওয়ামী লীগ পরিবার বা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী। দলের আনুগত একজন কর্মী হিসাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা, আমাদের আস্থার প্রতীক মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি মহোদয় স্থানীয় সরকার নির্বাচন সংক্রান্ত উপ-কমিটি ও চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ স্থানীয় নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি বিনীত অনুরোধ, উপরোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনা করে কারানির্যাতিত সাবেক ছাত্রনেতা হিসেবে আমাকে পৌরসভার মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দিবেন। পরিশেষে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বাধীনতা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংগ্রামে অকুতোভয় একজন সৈনিক হিসেবে আমাকে এ পৌরবাসীর সেবক হওয়ার জন্যে আপনার সদয় বিবেচনায় নিয়ে আমাকে মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়ার আকুল আবেদন রইলো।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

আসন্ন চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে জেলা যুবলীগের মতবিনিময় সভা

স্টাফ রিপোর্টার : আসন্ন চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে জেলা যুবলীগের মতবিনিময় সভা ...