সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / মতলব উত্তর হরিণায় ১০ম বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল

মতলব উত্তর হরিণায় ১০ম বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল

ইসলামের জন্য শেখ হাসিনা সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছেন..অ্যাড নুরুল আমিন রুহুল এমপি
উন্নত বাংলাদেশ গঠনের অভিযাত্রায় শেখ হাসিনা ওলামায়ে কেরামদের সম্পৃক্ত করতে চান ..আলহাজ্ব মাইনুল হোসেন খান নিখিল

কামাল হোসেন খান ঃ
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মাইনুল হোসেন খান (নিখিল) এর ব্যবস্থাপনায় চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের হরিণা কবরস্থানে ১০ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত ১৪ ফেব্রুয়ারী রাতব্যাপী মাহফিলে হাজার হাজার মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন।
মাহফিলের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর-০২ (মতলব উত্তর-দক্ষিণ) আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আলহাজ্ব মো. নুরুল আমিন রুহুল।
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষ্যে চিরনিদ্রায় শায়িত সকল কবরবাসীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় এ মাহফিল আয়োজন করা হয়। মাহফিলে প্রধান বক্তা হিসেবে ওয়াজ করেন আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোঃ এহ্সানুল হক জেহাদী আল মোজাদ্দেদী।
আরো ওয়াজ করেন, হযরত মাওলানা মুফতী মো. শামছুল হুদা মাসুমী, আলহাজ্ব হযরত মাওলানা নেছার আহম্মেদ, হযরত মাওলানা শহীদুল ইসলাম সিদ্দিকী। এছাড়াও আরো ওলামায়ে কেরামগণ মাহফিলে তাশরিফ আনেন।


উক্ত ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট সমাজসেবক মোঃ মুকবুল হোসেন খান (প্রধান উপদেষ্টা, মাহফিল এন্তেজামিয়া কমিটি, হরিণা কবরস্থান) । পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মোঃ কাউছার আহম্মদ ও হযরত মাওলানা আবু সুফিয়ান।
মাহফিলে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. নূরুল আমিন রুহুল, বিশেষ অতিথি ও সার্বিক ব্যবস্থাপনায় দায়িত্ব পালন করা বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ মাইনুল হোসেন খান (নিখিল), মতলব উত্তর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস, ভাইস চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন খান সুফল।


এসময় ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলে অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, চাঁদপুর ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড.জাহিদুল ইসলাম নোমান, মতলব উত্তর থানার ওসি মোঃ নাসির উদ্দিন মৃধা, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ শাহজাহান কামাল,উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, শহিদ উল্লাহ প্রধান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার সাবেক কমানন্ডার মোঃ মোজাম্মেল হক, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজ সেবক মোঃ কাজল, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজ সেবক উপজেলা আ’লীগ নেতা কাজী মিজানুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক জহিরাবাদ ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি গাজী মুক্তার হোসেন,উপজেলা আ’লীগের অর্থ-বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজ সেবক ছেংগারচর পৌর আ’লীগ নেতা মাহবুবুর রহমান সেলিম, নিশ্চিন্তপুর স্কুল এন্ড কলেজ গভর্নিংবডির সদস্য ফরিদ আহম্মেদ ইত্তেফাক,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদসস্য আতিকুল ইসলাম শিমুল, ১৩নং ইসলামাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুল হাসান বাবু (বাতেন), দূর্গাপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান সরকার দুলাল, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সদস্য রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, দূর্গাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মাহবুব হোসেন প্রধান,উপজেলা যুবলীগের সহ-সসভাপতি কামরুজ্জামান ইয়ার হোসেন,উপজেলা যুবলীগের সদস্য কাজী হাবিবুর রহমান, কাজী মাহাবুবুর রহমান, আশ্রাফুল আলম মিলন,যুবলীগ নেতা ইঞ্জি. কামরুজ্জামান, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আকতারুজ্জামান, ছেংগারচর পৌর যুবলীগের যুগ্ম-সম্পাদক মোঃ শাহজাহান মোল্লা, যুবলীগ নেতা ও ছেংগারচর এমএস ফ্যাশন এর পরিচালক মোতালেব হোসেননহ সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মুসল্লিগণ এবং বিভিন্ন জেলা থেকে আগত রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।


স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ মাইনুল হোসেন খান (নিখিল), প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা ও তার পরিবারবর্গের জন্য দোয়া চান। এবং সকল কবরবাসীর আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। তিনি সময় বক্তব্যে আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামের জন্য সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথমবার রাষ্ট্রীয় খরচে আলেম ওলামাদের হজে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়। তিনি এ ধারা অব্যাহত রাখার ঘোষণাও দিয়েছেন। তিনি প্রতি উপজেলায় অত্যাধুনিক মডেল মসজিদ নির্মাণ করছেন। প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।
মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু ওআইসি সম্মেলনে যোগদানের মাধ্যমে মুসলিম বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। বঙ্গবন্ধুর পথ ধরেই তার কন্যা ইসলামের খেদমত করে যাচ্ছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামঅ ফাউন্ডেশন,মসসজিদ ভিত্তিক শিক্ষষা কার্যক্রম চালু করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সকল দেশের সব ধারার ওলামায়ে কেরামের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখার বিষয়ে অত্যন্ত আন্তরিক। ওলামায়ে কেরামদের সঙ্গে নিয়েই তিনি উন্নত বাংলাদেশ গঠনের অভিযাত্রায় এগিয়ে যেতে চান।
তিনি আরো বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদ বিরোধী জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমে দেশের ইমাম, খতিবসহ সমগ্র আলেমসমাজ অত্যনন্ত আন্তরিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন। তাদের খুতবা, বয়ান ও ওয়াজ-মাহফিলের আলোচনার মাধ্যমে দেশের মানুষকে সচেতন করেছেন। এর ফলে জঙ্গীবাদ, উগ্রবাদ ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে । যা ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাপী সুনাম অর্জন করেছে। নিখিল বলেন, দেশের কওমী, আলীয়া, পীর-মাশায়েখসহ সব ধারার ওলামায়ে কেরামের মধ্যে সেতুবন্ধনের মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম তৈরি করা হবে। এর মাধ্যমে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে দেশের আলেমসমাজকে আরও বেশি সম্পৃক্ত করা হবে।
মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখতে গিয়ে আলহাজ¦ অ্যাড.নুরুল আমিন রুহলি এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামের জন্য অনেক সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের ইতিহাসে এ প্রথমবার রাষ্ট্রীয় খরচে আলেম ওলামাদের হজে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়। এ ধারা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
অ্যাড.নুরুল আমিন রুহুল এমপি বলেন,দেশ ও দ্বীনের সেবায় আলেমসমাজকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। সব ওলামায়ে কেরামের প্রতি আমার অশেষ শ্রদ্ধা ও সম্মান রয়েছে। বর্তমান সরকার আলেম-ওলামাদের সঙ্গে সম্মানজনক সম্পর্ক বজায় রাখার বিষয়ে গুরুত্ব দেয়। এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ গঠনে সম্মানিত আলেমসমাজকে আরও বেশি সম্পৃক্ত করতে চায়। তাই দেশ ও দ্বীনের স্বার্থে যেকোনো প্রকার অপপ্রচার ও গুজবের বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।
এসময় তিনি বলেন, দেশের এক পঞ্চমাংশ লোক ইসলামী শিক্ষায় পড়াশোনা করেন। সেই কারণে আওয়ামী লীগ সরকার কওমি মাদরাসা শিক্ষাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। কওমির সর্বোচ্চ শিক্ষাকে আমাদের সরকার এমএ পাসের মর্যাদা দিয়েছেন। যাতে করে ওই শিক্ষায় শিক্ষিত মাদরাসার শিক্ষার্থীরাও প্রশাসনসহ সরকারের উচ্চ পদে চাকরি করার সুযোগ পায়।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর পথ অনুসরণ করে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্ট করে বলেছেন এ দেশে ইসলাম পরিপন্থী কোনো আইন বাস্তবায়ন করা হবে না।
ওয়াজ শেষে ফজর নামাজ শেষেষ ভোরে দেশ জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মার কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করা হয়। শেষে সকলের মধ্যে তাবারুক বিতরণ করা হয়।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

নেত্রকোণায় রাস্থায় জীবাণু নাশক ছিটালেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী

জাহাঙ্গীর আলম,নেত্রকোণাঃ নেত্রকোণা শহর জীবাণুমুক্ত রাখতে রাস্থায় জীবাণু নাশক ছিটালেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ...