সর্বশেষ সংবাদ
Home / জাতীয় / কচুয়ায় গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

কচুয়ায় গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার :
কচুয়া রহিমানগর বাজার সংলগ্ন সাতবাড়িয়া গ্রামের শাহনাজ আক্তার (২২) নামের এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টায় কচুয়া থানার পুলিশ গৃহবধূ শাহনাজকে স্বামীর বসতঘর থেকে সিলিং ফ্যানের সাথে উড়না পেছানো গলায় ফাঁস অবস্থায় উদ্ধার করে। নিহত শাহনাজ সাতবাড়িয়া গ্রামের বাচ্চু কন্ট্রাক্টর বাড়ীর মীর হোসেন রাজুর স্ত্রী। তবে ঘটনাটি আত্মহত্যা নাকি হত্যা এ নিয়ে এলাকায় গুঞ্জন উঠেছে।

স্থানীয় একটি সূত্র জানিয়েছে, শাহনাজের নিহত হওয়ার ঘটনাটি খুবই রহস্যজনক। কারণ তার স্বামীর পরিবারে অজানা কিছু ঘটনা রয়েছে। বিষয়টি পুলিশ তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে। তবে আসল ঘটনা আড়াল করার জন্য একটি পক্ষ অপচেষ্টায় লীপ্ত রয়েছে।

নিহত শাহনাজ আক্তারের স্বামী রাজু জানান, আমি গত বুধবার সৌদিআরব থেকে ছুটিতে বাড়িতে আসি। বিদেশ থেকে যেসব মালামাল এনেছি তা পরিবারের অন্য কোনো সদস্যকে না দেয়ার জন্য শাহনাজ আমাকে নিষেধ করে। স্ত্রীর বাঁধা দেয়া সত্বেও আমি আমার পরিবারের সকল সদস্যদের মালামাল দেই। এ নিয়ে শনিবার আমাদের দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শাহনাজ রহিমানগর বাজারে এসে ৪টি ঘুমের ট্যাবলেট খেয়ে বাড়ি গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত ১১টায় আমি শাহনাজকে ঘুম থেকে জাগিয়ে ভাত খাওয়া শেষ করার পর আমরা ঘুমিয়ে পড়ি।

তিনি আরো জানান, রোববার সকালে আমি ঘুম থেকে জেগে উঠে দেখি শাহনাজও ঘুম থেকে উঠেছে এবং আমাদের দু’জনের মধ্যে কথাও হয়েছে। তারপর আমি আবারও ঘুমিয়ে পড়ি এবং সকাল ৯টায় ঘুম থেকে উঠে দেখি ঘরের দরজা বন্ধ করে আমাদের বেডরুমের পাশের একটি কক্ষে সিলিং ফ্যানের সাথে শাহনাজ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

নিহত শাহনাজের পিতা জানান , রাজু ও শাহনাজের সংসারে কোনো অশান্তি ছিলো না। বিয়ের পর থেকে আমার মেয়ের মেজ জা প্রায় সময় শাহনাজের সাথে ঝগড়া করতো। জামাইকে জানালেও সে কোনো বিচার করতোনা। আজ আমাকে জরুরী আসতে বললে এসে দেখি আমার মেয়ের মৃত দেহ।
নিহত শাহনাজের পরিবার সদস্যদের আহাজারীতে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের ছায়া নেমে আসে। ঘটনাটি মূহুর্তের মধ্যে রহিমানগর বাজার সহ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ঝুলন্ত শাহনাজকে দেখতে শত শত নারী-পুরুষ বাড়িতে এসে ভিড় জমায়।

কচুয়া থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ওয়ালী উল্লাহ জানান, আমরা মৃত দেহের সুরতহাল রিপোর্ট লিপিবদ্ধ করেছি। তার লাশ ময়না তদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে প্রেরন করা হবে এবং ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলেই পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

কাল থেকে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক কোয়ারেন্টিন এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য বৃহস্পতিবার থেকে কঠোর ...