সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / বাংলাদেশকে ৩ লাখ ডলার জরুরি অনুদান এডিবি’র

বাংলাদেশকে ৩ লাখ ডলার জরুরি অনুদান এডিবি’র

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে বাংলাদেশকে জরুরিভিত্তিতে তিন লাখ ডলার অনুদান দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। ম্যানিলাভিত্তিক বহুজাতিক সংস্থাটির বোর্ড সভায় গতকাল বাংলাদেশের জন্য এই অনুদান-প্রস্তাব অনুমোদন পায়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিভিন্ন উপকরণ কিনতে এই টাকা খরচ হবে। ঢাকাস্থ এডিবি কার্যালয় থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এডিবি জানিয়েছে, অনুদানের টাকা দিয়ে পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই), এন ৯৫ মাস্ক, সেইফটি গগলস, অ্যাপ্রন, থার্মোমিটার ও বায়ো-হ্যাজার্ড ব্যাগসহ স্বাস্থ্য নিরাপত্তার সরঞ্জাম কেনা হবে। অনুদানের এই টাকা এডিবির আঞ্চলিক কারিগরি সহযোগিতা বাবদ দেওয়া হচ্ছে।

ঢাকাস্থ এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ বলেন, করোনাভাইসের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকার যে যুদ্ধ করছে, তার সঙ্গে আছে এডিবি।  কঠিন এই দুর্যোগকালীন সময়ে অনুদানের টাকা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে কিছুটা হলেও উপকারে দেবে।

মনমোহন প্রকাশ আরো বলেন, অনুদানের টাকায় স্বাস্থ্য সরঞ্জাম কেনা হলে তা ডাক্তারদের সুরক্ষা দেবে। গত ১৮ মার্চ প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ৬৫০ কোটি ডলারের জরুরি তহবিল ঘোষণা করে এডিবি। যেখান  থেকে সহযোগিতা পেতে সরকার এরইমধ্যে প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

রাজশাহী পুঠিয়ায় এনজিও’র কিস্তি আদায়ের অভিযোগ

আরিফুল রুবেল,স্টাফ রিপোর্টারঃ দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পরা  করোনা ভাইরাসের কারনে সব ধরনের ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ঘোষণা করা হলেও তা মানছেন না রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার সেতু, টিএমএসএস, আশ্রয়, এসএসএস এনজিওসহ আরো অনেকেই। বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুঠিয়ায় উপজেলার এনজিও প্রতিষ্ঠান এর কর্মকর্তারা  বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে কিস্তির টাকা আদায় করেন। এ ঘটনায় স্থানীয় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সম্প্রতি বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে দেশের ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনাকারী এনজিও সংস্থাগুলোকে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে এসব এনজিও তাদের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেছে। এনজিওদের কাছ থেকে নেয়া ঋণ গ্রহিতাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। খোঁজ–খবর নেয়ার পাশাপাশি ঋণের কিস্তি পরিশোধের তাগাদাও দিতে শুরু করেছেন। পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ওলিউজ্জামানকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ভুক্তভোগিদের লিখিত অভিযোগ করতে বলেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি যথার্থ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন। অসমর্থিত একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দেশের এনজিওগুলো পিকেএসএফ’র কিছু কর্মকর্তাকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি সার্কুলার পাঠায় এনজিওগুলোর ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার ব্যাপারে।  যাতে কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এনজিওগুলো প্রশাসনিক কোনো ঝামেলায় না পড়ে।