সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / অনাবৃষ্টিতে আবাদ শুরু হয়নি পাহাড়ে শীতকালীন সবজিতে ভরা ক্ষেত

অনাবৃষ্টিতে আবাদ শুরু হয়নি পাহাড়ে শীতকালীন সবজিতে ভরা ক্ষেত

এনায়েত হোসেন

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে শীতাকলীন শাকসবজিতে এখনো ভরে আছে কৃষকের ক্ষেত। করোনাভাইরাসের প্রভাবে বাজারে উচিত-মূল্য না মিললেও সরকারি হিসেবে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। তবে এখনো বৃষ্টি শুরু না হওয়ায় পাহাড়ের শত শত হেক্টর জমিতে আবাদ শুরু হয়নি।

স্থানীয় পূর্ব দুর্গাপুর গ্রামের কৃষক মো. হানিফ মৌসুমে বেশি সময় পাওয়ার দরুন ৪৪ শতাংশ জমিতে এবার দুই দফা শীতকালীন শাকসবজির আবাদ করেছেন। দ্বিতীয় দফা আবাদে বেশ ভালো লাভ হওয়ার কথা থাকলেও হঠাৎ বাজারে করোনাভাইরাসের প্রভাবে ক্রেতা কমে যাওয়ায় শাকসবজির ঠিক দাম পাচ্ছেন না। তবে ক্ষেতে খরচের তুলনায় তার লাভ কম হলেও এ প্রতিবেদককে জানান তার লোকসান হবে না।

অপরদিকে মিরসরাই সদর ইউনিয়নের গড়িয়াইশ গ্রামের কৃষক নিজাম উদ্দিন জানালেন অন্য কথা। প্রতিবছর মার্চ মাসের দিকে ভরা বৃষ্টি শুরু হলে তিনি পাহাড়ের ঢালু জমিতে ঝিঙে, শশা ও বরবটির আবাদ করতেন। এবার বৃষ্টির দেখা নেই, আবাদও শুরু করতে পারেননি। এতে তার দুশ্চিন্তার শেষ নেই। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, পাহাড়ে চাষাবাদ ছাড়া আমাদের আর কোনো রুটি-রোজগারের পথ নেই। এবার কি করবো ভেবে পাচ্ছি না।

এদিকে মিরসরাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের হিসেব মতে, এবার শীত মৌসুমে মিরসরাইতে সরকারি লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। শুধুমাত্র বোরো আবাদে পুরোপুরি অর্জিত হয়নি। সবজির আবাদ হয়েছে ১৮৫০ হেক্টর, মুগডাল ২৬০০ হেক্টও, হেলন ডাল ২৪০০ হেক্টর, খেসারি ডাল ৮০০ হেক্টর, সরিষা ৪০ হেক্টর, ভুট্টা ৩৫ হেক্টর। বোরো ধানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১২০০ হেক্টর। উৎপাদন হয়েছে ১১৬০ হেক্টর জমিতে।

মিরসরাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রঘুনাথ নাহা কালের কণ্ঠকে জানান, এবার মৌসুমে সরকারি লক্ষ্যমাত্রা ঠিকঠাকভাবে অর্জিত হয়েছে। কৃষকেরা লাভবান হয়েছেন। তবে পানি সংকটের কারণে বোরো আবাদ সামান্য কম হয়েছে। অনাবৃষ্টির কারণে পাহাড়ে আবাদ শুরু না হওয়া প্রসঙ্গে স্থানীয় এ কৃষি কর্মকর্তা জানান, আশা করছি এপ্রিল মাসের দিকে পুরোদমে বৃষ্টি শুরু হবে। কৃষকেরা ওই সময়ে আবাদ শুরু করতে পারলে ফলনও ভালো হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

রাজশাহী পুঠিয়ায় এনজিও’র কিস্তি আদায়ের অভিযোগ

আরিফুল রুবেল,স্টাফ রিপোর্টারঃ দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পরা  করোনা ভাইরাসের কারনে সব ধরনের ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ঘোষণা করা হলেও তা মানছেন না রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার সেতু, টিএমএসএস, আশ্রয়, এসএসএস এনজিওসহ আরো অনেকেই। বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুঠিয়ায় উপজেলার এনজিও প্রতিষ্ঠান এর কর্মকর্তারা  বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে কিস্তির টাকা আদায় করেন। এ ঘটনায় স্থানীয় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সম্প্রতি বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে দেশের ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনাকারী এনজিও সংস্থাগুলোকে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে এসব এনজিও তাদের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেছে। এনজিওদের কাছ থেকে নেয়া ঋণ গ্রহিতাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। খোঁজ–খবর নেয়ার পাশাপাশি ঋণের কিস্তি পরিশোধের তাগাদাও দিতে শুরু করেছেন। পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ওলিউজ্জামানকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ভুক্তভোগিদের লিখিত অভিযোগ করতে বলেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি যথার্থ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন। অসমর্থিত একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দেশের এনজিওগুলো পিকেএসএফ’র কিছু কর্মকর্তাকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি সার্কুলার পাঠায় এনজিওগুলোর ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার ব্যাপারে।  যাতে কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এনজিওগুলো প্রশাসনিক কোনো ঝামেলায় না পড়ে।