সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / ডিমের দাম মাত্র ৩ টাকা!

ডিমের দাম মাত্র ৩ টাকা!

ক্রাইম এ্যকসান ডেস্ক
অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি। প্রতি পিস ডিমের দাম মাত্র ৩ টাকা। সে হিসেবে ১ হালি ডিম ১২ টাকা। ১০০ পিস মাত্র ৩০০ টাকা।

মুরগি ও ডিমের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ায়। এমন গুজবে উৎপাদিত ডিম ও মাংসের বাজার নেমে এসেছে অর্ধেকে। এতে চরম লোকসানের মুখে পড়েছে গাজীপুরের খামারিরা। ইতোমধ্যে বন্ধে হয়ে গেছে অনেক ছোট খামার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিম-মুরগির মাংসে করোনা ঝুঁকি নেই। ডিম প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে মানবদেহে রোগ প্রতিরোধে সক্ষমতা বাড়ায়।

খামারিরা বলছেন, আতঙ্কে চাহিদা কমায় গুণতে হচ্ছে লোকসান। এরই মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে স্বল্প মূলধনের অনেক খামার।

ভেটেরিনারি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিম ও মুরগির মাংসে করোনা ভাইরাস একেবারেই ছড়ায় না। এমন গুজবে নিঃস্ব হচ্ছেন খামারিরা। এই অবস্থায় খামারিদের টিকিয়ে রাখতে সরকারের এ শিল্পে ভর্তুকি দেয়ার দাবি জানান তারা।

গাজীপুর জেলা পোল্ট্রি সামগ্রী বিক্রেতা বহুমুখী সমবায় সমিতি সাবেক সভাপতি এসএম মোকসেদ আলম বলেন, ‘প্রোটিনের চাহিদা মেটানোর জন্য এবং যুবকদের বেকার হয়ে যাওয়া রোধের জন্য সরকার কিছু ভর্তুকি দিলে ভালো হয়।’

গুজব প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিয়ে জেলার সাত হাজার খামারি ও দেড় লক্ষাধিক পোল্ট্রি সংশ্লিষ্টদের রক্ষার দাবি পোল্ট্রি সমবায় সমিতির।

প্রসঙ্গত, সাধারণত পাইকারি মূল্যে ১শ’ ডিমের দাম আটশো টাকা। অথচ করোনা পরিস্থিতির কারণে এখন বিক্রি করতে হচ্ছে মাত্র তিনশ থেকে সাড়ে তিনশ টাকায়।

এদিকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই প্রাণ হারাচ্ছেন অসংখ্য মানুষ। ইতিমধ্যে বিশ্বে এ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লক্ষ ১৭ হাজার ৯৭৬ জন। আর সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃত্যুর সংখ্যা ৩৩ হাজার ৮৮৩। সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লক্ষ ৫০ হাজার ৯১৪ জন।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

রাজশাহী পুঠিয়ায় এনজিও’র কিস্তি আদায়ের অভিযোগ

আরিফুল রুবেল,স্টাফ রিপোর্টারঃ দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পরা  করোনা ভাইরাসের কারনে সব ধরনের ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ঘোষণা করা হলেও তা মানছেন না রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার সেতু, টিএমএসএস, আশ্রয়, এসএসএস এনজিওসহ আরো অনেকেই। বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুঠিয়ায় উপজেলার এনজিও প্রতিষ্ঠান এর কর্মকর্তারা  বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে কিস্তির টাকা আদায় করেন। এ ঘটনায় স্থানীয় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সম্প্রতি বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে দেশের ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনাকারী এনজিও সংস্থাগুলোকে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে এসব এনজিও তাদের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেছে। এনজিওদের কাছ থেকে নেয়া ঋণ গ্রহিতাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। খোঁজ–খবর নেয়ার পাশাপাশি ঋণের কিস্তি পরিশোধের তাগাদাও দিতে শুরু করেছেন। পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ওলিউজ্জামানকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ভুক্তভোগিদের লিখিত অভিযোগ করতে বলেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি যথার্থ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন। অসমর্থিত একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দেশের এনজিওগুলো পিকেএসএফ’র কিছু কর্মকর্তাকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি সার্কুলার পাঠায় এনজিওগুলোর ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার ব্যাপারে।  যাতে কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এনজিওগুলো প্রশাসনিক কোনো ঝামেলায় না পড়ে।