সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / বেতাগীতে ঘন কুয়াশায় আম, জাম, লিচুর ক্ষতি

বেতাগীতে ঘন কুয়াশায় আম, জাম, লিচুর ক্ষতি

বেতাগী  প্রতিনিধি  

বরগুনার বেতাগীতে গত একসপ্তাহ যাবত গভীর রাত থেকে সকাল ৯টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত ঘন কুয়াশায় ঢেকে থাকে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, চৈত্রের মাঝামাঝি একটানা কয়েকদিন ঘন কুয়াশার কারণে আম জাম ও লিচুসহ গ্রীষ্মকালীন ফলের ফলন কম হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বেতাগীর গ্রামগুলোতে ঘন কুয়াশায় এতোটাই  ঢাকা ছিল যে সামনে কিছুই দেখা যাচ্ছে না। বৈশ্বিক করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও এখানে পণ্যবাহী গাড়ি ও পরিবহনে কোন বাধা নেই। এ অবস্থায় ঘন কুয়াশার কারণে সড়কে হেড লাইট জ্বালিয়ে পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে।

উপকূলীয় এ জনপদের গ্রামগুলোতে আম, জাম ও লিচুসহ গ্রীষ্মকালীন ফল গুটিগুটি দেখা মিলছে। তবে কুয়াশার কারণে আম, জাম, লিচুসহ এ ধরনের ফলের ফলনের  সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। গ্রীষ্মকালীন এসব ফল ঘন কুয়াশার কারণে বিভিন্ন ধরণের পোকায় বিনষ্ট করতে পারে। পোকা বিনষ্ট করলে ফল ঝরে   যাওয়ার সম্ভবনা বেশি।

এ বিষয়ে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি রসায়ন কৃষিবিদ লিটন কুমার ঢালী জানান, এ সময় একটানা কয়েকদিন ঘন কুয়াশার কারনে আম, জাম, লিচুর ফলনের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা  রয়েছে।

এ বিষয়ে বেতাগী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন বলেন, চৈত্র মাসের মাঝামাঝি একটানা কয়েকদিন ঘন কুয়াশা পড়লে আম, জাম ও লিচুর ওপর পোকার আক্রমণ করবে এবং এতে ফলন কম হবে। তাছাড়া পোকা আক্রমণ করলে এসব ফল অধিকাংশ ঝরে যাবে।’

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

রাজশাহী পুঠিয়ায় এনজিও’র কিস্তি আদায়ের অভিযোগ

আরিফুল রুবেল,স্টাফ রিপোর্টারঃ দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পরা  করোনা ভাইরাসের কারনে সব ধরনের ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ঘোষণা করা হলেও তা মানছেন না রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার সেতু, টিএমএসএস, আশ্রয়, এসএসএস এনজিওসহ আরো অনেকেই। বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুঠিয়ায় উপজেলার এনজিও প্রতিষ্ঠান এর কর্মকর্তারা  বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে কিস্তির টাকা আদায় করেন। এ ঘটনায় স্থানীয় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সম্প্রতি বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে দেশের ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনাকারী এনজিও সংস্থাগুলোকে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে এসব এনজিও তাদের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেছে। এনজিওদের কাছ থেকে নেয়া ঋণ গ্রহিতাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। খোঁজ–খবর নেয়ার পাশাপাশি ঋণের কিস্তি পরিশোধের তাগাদাও দিতে শুরু করেছেন। পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ওলিউজ্জামানকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ভুক্তভোগিদের লিখিত অভিযোগ করতে বলেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি যথার্থ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন। অসমর্থিত একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দেশের এনজিওগুলো পিকেএসএফ’র কিছু কর্মকর্তাকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি সার্কুলার পাঠায় এনজিওগুলোর ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার ব্যাপারে।  যাতে কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এনজিওগুলো প্রশাসনিক কোনো ঝামেলায় না পড়ে।