সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / প্রশিক্ষণে গিয়ে জার্মানীতে আটকা মা, কাঁদছেন মেয়ে

প্রশিক্ষণে গিয়ে জার্মানীতে আটকা মা, কাঁদছেন মেয়ে

স্টাফরিপোর্টার :
প্রশিক্ষণ করতে গিয়ে করোনার কারণে জার্মানীতে আটকা পড়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েট ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক প্রফেসর ড. মাছুমা হাবিব। বিমান চলাচল বন্ধ থাকার কারণে অনেক চেষ্টার পরও দেশে ফিরতে পারছেন না তিনি। এদিকে বৈশ্বিক এই মহামারীর মধ্যে মা’কে কাছে না পেয়ে উৎকণ্ঠায় রয়েছেন ড. মাছুমা হাবিবের মেয়ে মাইশা শওকত। এদিকে মেয়েকে দেখতে না পেয়ে এবং জার্মানীতে আটকা পড়ে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন ফেইসবুকে। এই সংকটে দুই দেশে থেকে মা ও মেয়ে দুজনই ভেঙে পড়েছেন।

বাংলাদেশে থেকেই মাকে দেশে ফেরানোর জন্য নানা চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন মাইশা। কিন্তু বিমান চলাচল বন্ধ থাকায় কোন চেষ্টাই কাজে আসছে না। এদিকে দেশে ফিরে সম্পুর্ণ কোয়ারেন্টিনে থাকতে চান ড. মাছুমা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে , গত ২৯ ফেব্রুয়ারি ওই অধ্যাপক নেদারল্যান্ডের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। মার্চ মাসের ২৭ তারিখ তাঁর ফিরে আসার কথা ছিলো। কিন্তু দেশের সার্বিক পরিস্থিতির কারনে ইউরোপ থেকে বাংলাদেশে প্লেন চলাচল বন্ধ ছিলো। এ কারণে তিনি নেদারল্যান্ডস থেকে জার্মানিতে চলে আসেন।

মাইশা শাওকাত জানান, ‘আমি আমার আব্বু আম্মুকে ছাড়া অনেক একা থেকেছি। আমার এক বছর বয়সে আব্বু আম্মু বিদেশে ছিলেন। আব্বু-আম্মু আমাকে ছাড়া এক টানা তিন বছরেরও বেশি সময় দেশের বাইরে থেকেছেন, ছোটবেলা থেকে এখন পর্যন্ত আমি এসবে অভ্যস্ত। কিন্তু কোন সময়ই আমার এতটা খারাপ আর অসহায় লাগেনি। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি আলাদা। এক অজানা অনিশ্চয়তা আর ভয়ভীতি এবং সেইসাথে প্রিয়জনকে পাশে না পাওয়া নিয়ে আমি অসহায় হয়ে পড়েছি। এদিকে আম্মু ভেঙে পড়েছেন। সম্পূর্ণ একা একজন যখন বিপদে থাকেন, পরিবারের কেউ পাশে থাকেন না সেই পরিস্থিতি টা কাউকে বুঝানো যাবে না।’

মাইশা আরো জানান, ‘মার্চের ২২ তারিখ আম্মুর সাথে কথা হচ্ছিলো, কিন্তু শুধু অডিওতেই কথা বলছিলেন আম্মু। ভিডিও অন করছিলেন না। রাতের বেলাও ফোনে তিনি ভিডিও অন করছিলেন না। একবার বলছিলেন যে ভিডিও অন করা যাচ্ছে না, আরেকবার বলছিলেন যে তিনি বাইরে আছেন। আমি খুব ভালোভাবেই বুঝতে পারছিলাম আম্মু কিছু লুকোচ্ছেন। পরেরদিন আম্মুকে জোড় করেই বলি তুমি ভিডিও অন করো। আম্মু বাধ্য হয়ে ভিডিও অন করলেন। প্রচন্ড ভয় কাকে বলে আমি জানিনা, তবে প্রচন্ড ভয় হয়তোবা সেই সময়ে পেয়েছিলাম।আম্মু সারারাত জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট এয়ারপোর্টে ছিলেন, আগেরদিনও এয়ারপোর্টেই সারারাত ছিলেন। আমি বললাম ‘আম্মু তুমি কী পাগল হয়ে গেছো?’

আম্মু বললেন,’ মা আমি দেশে গিয়ে কোয়েরেন্টাইনে থাকবো কিন্তু একবার শুধু তোমাকে দেখবো।’

ড. মাছুমার সঙ্গে কথা বলেছেন এই প্রতিবেদক। তিনি আমাদের প্রতিবেদককে বলেন, ‘মার্চের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেদারল্যান্ডে আমার ট্রেনিং হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে এটি স্থগিত হয়ে যায়। তখন আমি দেশে ফিরতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সাথে যোগাযোগ করলে তারা আমাকে থাই এয়ারওয়েজ খোলা থাকার কথা জানায়। তখন আমি জার্মানিতে চলে আসি। কিন্তু এখানে এসে জানতে পারি নেদারল্যান্ড থেকে করোনা টেস্ট না করলে প্লেনে চড়তে দিবে না। কিন্তু আমি নেদারল্যান্ডে যে স্টেটে ছিলাম, সেখানে করোনা মহামারি ছিল না, এমনকি টেস্টও করাতেও হয়নি। কারণ তারাই বলেছিল টেস্ট করার দরকার হবে না। বর্তমানে এখানকার পরিবেশ পরিস্থিতিতে অসুস্থ হয়ে পড়ছি। কেউ আমাদের সহযোগিতা করছেন না। আমার প্রেশার অনেক বেড়ে গেছে। সব ওষুধ শেষ হয়ে গেছে, এখানে ওষুধ কেনাও অনেক ব্যয়বহুল। আবার সেগুলো কিনলে শরীরের সাথে শরীরে কাজ করছে না। সরকারি আদেশে আমি বিদেশে এসেছি। বিভিন্ন দেশ বিশেষ বিমানে তাদের লোকজনকে দেশে ফিরিয়ে নিচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের উচিত আমাদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়া।’

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে করোনার উপসর্গে আরো ২ জনের মৃত্যু, আতংকে স্থানীয়রা 

হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি হাজীগঞ্জে একদিনে নতুন করে আরো ২ জন করোনা উপসর্গ নিয়ে ...