সর্বশেষ সংবাদ
Home / আন্তর্জাতিক / উপসর্গ ছাড়াই ৭ বার করোনায় আক্রান্ত কলেজছাত্র

উপসর্গ ছাড়াই ৭ বার করোনায় আক্রান্ত কলেজছাত্র

অনলাইন ডেস্ক
দেশে করোনায় মৃত্যু বেড়েই চলেছে। এ অবস্থায় মনে ভয় ধরে গিয়েছিল। তাই বাবা-মাকে সঙ্গে করে করোনা টেস্ট করাতে ছুটে গিয়েছিলেন। সে প্রায় এক মাস আগের কথা। কিন্তু এরপর আর বাড়ি ফেরা হয়নি ১৯ বছর বয়সী কলেজছাত্রের। গত এক মাসে কোনও লক্ষণ ছাড়াই মোট সাতবার কোভিড-১৯ ভাইরাস ধরা পড়েছে তার শরীরে। ফলে হাসপাতাল আর কোয়রেন্টিন সেন্টার করেই দিন কাটছে তার।

এই রোগীর নাম জয় পাটনি। বাড়ি ভারতের গুজরাট রাজ্যের বডোদরা এলাকায়। স্থানীয় এমএস কলেজে প্রথম বর্ষের ছাত্র।

করোনা সংক্রমণের নিরিখে বডোদরায় যে ক’টি হটস্পট চিহ্নিত করেছে স্থানীয় সরকার, তার মধ্যে তাদের নগরওয়াড়া এলাকাও রয়েছে। গত মাসে সেখানে এক শিশুর মৃত্যু হয়। এতেই ভয় পেয়ে যায় জয়ের পরিবার। তাদের ধারণা ছিল, করোনার কারণেই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

পরে জানা যায়, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু করোনা আতঙ্কে ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে ছোটেন জয় এবং তার বাবা-মা। সেখানে তাদের তিন জনের শরীরেই সংক্রমণ ধরা পড়ে। প্রথমে গোত্রী মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে রাখা হয় তাদের। ১৩ দিনের মাথায় সেখান থেকে বাবা-মা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেলেও, এখনও ছাড়া পাননি জয়।

জ্বর, হাঁচি, কাশি, মাথা ধরা, ক্লান্তি ভাব, এই ধরনের কোনও উপসর্গই নেই জয়ের শরীরে। কিন্তু গত ১২ এপ্রিল থেকে যত বারই কোভিড-১৯ পরীক্ষা হয়েছে, তত বারই তার শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি মিলেছে। তাই হাসপাতাল আর কোয়রান্টিন সেন্টার করেই দিন কাটছে তার।

টানা ২০ দিন গোত্রী-তে ভর্তি ছিলেন তিনি। উপসর্গ নেই বলে সপ্তাহখানেক আগে বডোদরা রেল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট কোয়রেন্টিন সেন্টারে সরিয়ে আনা হয় তাঁকে।

উপসর্গহীন এবং মৃদু উপসর্গ থাকা রোগীদের জন্যই ওই রেল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটটিকে কোয়রান্টিন সেন্টারে পরিণত করা হয়েছে। সেখানে অন্য রোগীদের সঙ্গে রয়েছেন জয়।

স্থানীয় একট সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানান, হাঁচি-কাশি, ক্লান্তি ভাব, মাথা ধরা কোনও সমস্যাই নেই তার। বরং প্রথম দিন থেকেই একেবারে স্বাভাবিক তিনি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার উপসর্গ না থাকলে রোগীকে ছাড়ার আগে রিভার্স ট্রান্সক্রিপশন পিসিআর (আরটি-পিসিআর) টেস্ট করা হয়। এতে মরা ভাইরাসও ধরা পড়ে। হতে পারে সেই কারণেই বার বার জয়ের রিপোর্ট পজিটিভ আসছে। তবে এ নিয়ে জয়কে এখনও পর্যন্ত সঠিকভাবে কিছু জানাননি চিকিৎসকেরা।

ভারতে উপসর্গহীন অথবা মৃদু উপসর্গ মিলেছে এমন রোগীদের একটানা তিন দিন জ্বর না এলে, অক্সিজেন দেওয়ার প্রয়োজন না থাকলে, ১০ দিন পর্যবেক্ষণে থাকার পরই তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে বাড়ি ফিরে সাত দিন কোয়রান্টিনে থাকতে হয় তাদের। কিন্তু বাড়ি ফিরতে রাজি হননি জয়। কেননা তার ভয়, যদি তার থেকে বাবা-মা ফের সংক্রমিত হন! যতদিন না তার রিপোর্ট নেগেটিভ আসছে, ততদিন তিনি কোয়রান্টিনেই থাকবেন।

সূত্র: আনন্দবাজার

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

যেসব উপসর্গে চিকিৎসকরাও অবাক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের থাবায় বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। এর মধ্যে কয়েকটি দেশে ...