সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে করোনায় মারা যাওয়া রোগীর মরদেহ দাফনে বাধা!

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে করোনায় মারা যাওয়া রোগীর মরদেহ দাফনে বাধা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে নানা বাধা পেরিয়ে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া একজন রোগীর মরদেহ দাফন করা হয়েছে। তবে এলাকার কতিপয় মানুষের অমানবিক আচরণে বিব্রত হয়েছেন প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং পুলিশ।

চারদিকে দমকা হাওয়ার সঙ্গে বজ্রপাত। কখনো হালকা আবার কখনো ভারী বৃষ্টি। এরমধ্যে গ্রামে ফিরলো করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির লাশ। এমন বৈরী আবহাওয়ায় মৃত ব্যক্তির মরদেহ এম্বুলেন্স থেকে নামিয়ে স্বেচ্ছাসেবকরা গোছল, কাফন এবং জানাজা শেষ করেন।

এবার মরদেহ দাফনের পালা। যেখানে জানাজা হলো সেই স্থান থেকে বেশ দূরে কবরস্থান। তবে মরদেহ নিয়ে পাড়ি দিতে হবে কয়েকটি বাড়ি।

কিন্তু করোনায় মারা গেছে, তাই কোনো অবস্থায় তাদের বাড়ির ওপর দিয়ে মরদেহ নিয়ে যেতে দেওয়া হবে না। এভাবে বাধা দিলেন ওই সব বাড়ির বাসিন্দারা।

প্রচণ্ড বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে এমন অমানবিক আচরণ ও ঘটনার সংবাদ পৌঁছে যায় প্রশাসন এবং পুলিশের কাছে। শেষ পর্যন্ত তাদের হস্তক্ষেপে মরদেহ দাফন সম্পন্ন হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান মো. হাসান (৩২) নামে এক ব্যক্তি। মৃতের স্বজনরা রাতেই তার মরদেহ নিয়ে ফেরেন গ্রামের বাড়ি মতলব দক্ষিণের নায়েরগাঁও ইউনিয়নের নাউজানে। রাত ৯টার পর মরদেহের গোছল, কাফন এবং জানাজাও শেষ হয়। এবার মরদেহ দাফনের পালা। কিন্তু কবরস্থানের আশপাশের কয়েকটি বাড়ির মানুষজন তাতে বাধা হয়ে দাঁড়ান। তাদের সাফ কথা, করোনায় মারা গেছে। সুতরাং এই পথে কবরস্থানে যাওয়া যাবে না।

ততক্ষণে এমন অমানবিক আচরণ এবং ঘটনার সংবাদ পৌঁছে যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাহমিদা হক এবং থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার আইচের কাছে। তারা দলবল নিয়ে ছুটে যান নাউজান গ্রামে। তারপর প্রতিবেশী এবং গ্রামের প্রভাবশালীদের বুঝিয়ে মরদেহ দাফনের ব্যবস্থা করেন তারা।

অবশেষে মৃত্যুর পর হতভাগা মো. হাসানের মরদেহ স্থান পেল পারিবারিক গোরস্থানে।
মতলব দক্ষিণ থানার ওসি স্বপন কুমার আইচ জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুলিশ এবং গ্রাম পুলিশের সহযোগিতায় জানাজা শেষে মো. হাসান নামে এই ব্যক্তির মরদেহ দাফন করা হয়।

মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক বলেন, প্রতিবেশীদের এমন নির্দয় আচরণ মেনে নেওয়ার মতো নয়। তবে প্রশাসন এবং পুলিশকে মো. হাসানের মরদেহ দাফনে সহযোগিতা করার জন্য নাউজান গ্রামের ইউপি সদস্য জজ মিয়াকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মৃতের পরিবারের জন্য নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মানসী সাহার মাধ্যমে খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার দেওয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মো. হাসান নারায়ণগঞ্জে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বসবাস করতেন। তার স্ত্রী ছাড়াও চার বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

চাঁদপুর শহরে সড়ক পরিবহন ও স্বাস্থ্যবিধি নামানায় ৭ জনের অর্থ দণ্ড

মানিক দাস// চাঁদপুর শহরে সড়ক পরিবহন আইনে ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৭ ...