সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / করোনায় ভঙ্গুর অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের স্বপ্ন

করোনায় ভঙ্গুর অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের স্বপ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক
চলমান করোনাভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়া দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধার এবং কোভিড-১৯ পরবর্তী কর্মসংস্থান, বিনিয়োগ, খাদ্য নিরাপত্তা, সামাজিক নিরাপত্তা এবং দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়গুলোতে গুরুত্বারোপ করে এক আশা জাগানিয়া বাজেট পাসের প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতীয় সংসদ।

আগামী ১১ জুন অর্থমন্ত্রী সংসদে করোনায় ভঙ্গুর অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার রূপরেখা উত্থাপন করবেন। এরপর এটির উপর সীমিত পরিসরে আলোচনা শেষে পাস হবে।

সংসদ সদস্যসহ সংসদ সচিবালয় সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের খসড়া এরইমধ্যে চূড়ান্ত করা হয়েছ। এখন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনার অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। তারা আশা করছেন, প্রস্তাবিত এই বাজেট পাস হলে চলমান সঙ্কট মোকাবিলা করে নতুন ভোরের দেখা পাবে বাংলাদেশ।

এদিকে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, আগামী অর্থবছরের বাজেটটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একটা কঠিন সময় পার করছি। এজন্য আসছে বাজেটে জনগণের জীবন ও জীবিকা রক্ষার উদ্যোগ প্রতিফলিত হতে হবে। উন্নয়নকে বেশি গুরুত্ব না দিয়ে বরং মানুষের জীবন রক্ষার জন্য করণীয় নির্ধারণ করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে সারাবিশ্বই এখন বিপর্যস্ত। ফলে বাজেটটা এমন হতে হবে যেখানে মানুষ সত্যিকার অর্থেই উপকৃত হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী অর্থবছরের বাজেটের মোট আকার ধরা হচ্ছে পাঁচ লাখ ৫৬ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা। যার মধ্যে ৩৩ লাখ ৭ হাজার ৮৮৮ কোটি টাকা হবে সরকারের পরিচালন ব্যয়। আর উন্নয়ন বাজেট ধরা হচ্ছে দুই লাখ পাঁচ হাজার ১৪৫ কোটি টাকার। মোট আয় ধরা হচ্ছে তিন লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা। আর ঘাটতি ধরা হচ্ছে এক লাখ ৭৮ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা। চলতি বছরের বাজেটের আকার ধরা হয় পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। যা সংশোধিত বাজেটে কমিয়ে ধরা হয় পাঁচ লাখ এক হাজার ৫৭৭ কোটি টাকা।

এদিকে আগামী অর্থবছরের মোট রাজস্ব সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তিন লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা। এরমধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) থেকে তিন লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা আয় আসবে। আর এনবিআর বহির্ভূত আয় ধরা হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা এবং ননট্যাক্সের রাজস্ব ১৫ হাজার কোটি টাকা। আগামী অর্থবছরের বাজেটে ঘাটতি ধরা হচ্ছে এক লাখ ৭৮ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা, যা মোট জিডিপির ৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

এবারই প্রথম বাজেট ঘাটতি জিডিপির ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। যার অন্যতম কারণ হচ্ছে কভিড-১৯ এর প্রভাবে বিপর্যস্ত অর্থনীতি। বাজেটের ঘাটতির অর্থায়নের জন্য অভ্যন্তরীণ উৎস থকে এক লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা অর্থায়নের পরিকল্পনা করা হচ্ছে এবং বিদেশি উৎস থেকে ৭৭ লাখ ৭৭ হাজার কোটি টাকা আসবে বলে মনে সরকার। অভ্যন্তরীণ উৎস বলতে ব্যাংক থেকে ৮৮ হাজার কোটি টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা করছে সরকার। জাতীয় সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে ২০ হাজার কোটি টাকা। এছাড়া ২০ কোটি ডলার এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এবং বিশ্বব্যাংক এক বিলিয়ন ডলারের বাজেট সহায়তা সরবরাহ করবে। এডিবি ইতোমধ্যে আগামী অর্থবছরের বাজেটের কিছু অংশে ৭০০ মিলিয়ন ডলারের সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

সংসদ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, বাজেটের এসব অঙ্ক প্রায় চূড়ান্ত। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের ঘষামাজা। তবে এসব অঙ্ক পরিবর্তনও হতে পারে। কেননা প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেওয়ার আগে বাজেটের কোনো অঙ্কই চূড়ান্ত নয়। নিয়ম অনুযায়ী এবারের বাজেটের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) পরিমাণ দুই লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা ধরা হয়েছে, যা এরইমধ্যে অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সূত্র জানায়, অর্থমন্ত্রীর এবারের বাজেট বক্তৃতা জুড়ে থাকবে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কভিড-১৯ এর প্রভাবের বিবরণ। থাকছে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার রূপরেখা। সরকার ইতোমধ্যে কভিড-১৯ মোকাবিলায় যেসব উদ্যোগ নিয়েছে সেগুলোও উল্লেখ থাকবে। এরইমধ্যে প্রায় এক লাখ কোটি টাকার সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি দেশি-বিদেশি সহায়তার বিবরণ এবং মানুষকে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সহায়তা দিতে যেসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে সেগুলোর বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরবেন অর্থমন্ত্রী। বাজেট বক্তৃতার একেবারে শেষাংশে তিনি কভিড-১৯ পরবর্তী এক নতুন ভোরের স্বপ্নের কথা বলবেন।

দেশের সামগ্রিক অর্থনীতি, কৃষি, শিল্প, এসএমইসহ সামগ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্য রক্ষায় বাজেটে থাকবে দিকনির্দেশনা। এবারের বাজেটকে সরকার কভিড-১৯ পরবর্তী বিপর্যস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের বাজেট হিসেবে ঘোষণা করতে যাচ্ছে। এতে কভিড-১৯ এর পরবর্তী কর্মসংস্থান, বিনিয়োগ, খাদ্য নিরাপত্তা, সামাজিক নিরাপত্তা এবং দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়গুলো গুরুত্ব পাবে। এজন্য স্বাস্থ্য খাতে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। একইভাবে সামাজিক সুরক্ষার আওতা ব্যাপকভাবে বাড়ানোর প্রস্তাব করতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী। নতুন করে করহার না বাড়িয়ে করজাল বিস্তৃতির মাধ্যমে কাঙ্খিত রাজস্ব আদায়ের পরিকল্পনা থাকবে বাজেটে। এ ছাড়া ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বার্থে এ বছর করপোরেট কর না বাড়িয়ে তা কমানোর মতো সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী।

বিশ্বব্যাংক আইএমএফ, এডিপিসহ প্রায় সব উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা পূর্বাভাস দিয়েছে এ বছর বিশ্ব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঋণাত্বক পর্যায়ে চলে যাবে। এশিয়ায় অনেক দেশই ঋণাত্বক প্রবৃদ্ধিতে চলে যাবে। তবে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ২ থেকে ৩ শতাংশ অর্জিত হবে বলে জানানো হয়েছে। যেটা সরকারের লক্ষ্য রয়েছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ। আসছে বাজেটেও জিডিপি প্রবৃদ্ধির উচ্চ লক্ষ্যমাত্রা রেখে বাজেট দিতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী। ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটেও ৮ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরা হচ্ছে।

আর বিশ্বব্যাপী ভোগ কমে যাওয়ায় এবং জ্বালানী তেলের দাম ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে যাওয়ায় সামনের বছরে মূল্যস্ফীতির হার সহনীয় পর্যায়েই থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। এজন্য আসছে বাজেটেও ৫ দশমিক ৪ শতাংশ মূল্যস্ফীতির টার্গেট ঠিক করতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী। এবারের বাজেটে ঘাটতি দাঁড়াবে রেকর্ড পরিমাণ। কেননা কভিড-১৯ এর প্রভাবে রাজস্ব আদায় কমে যাবে। এজন্য পৌনে দুই লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। ঘাটতির অর্থ সংস্থানের জন্য সরকার ব্যাংক থেকে প্রায় ৯০ হাজার কোটি টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা করতে যাচ্ছে। তবে কভিড-১৯ এর কারণে আসছে বছওর বৈদেশিক সহায়তার হার বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

সরকারি চাকুরে ছাড়া কেউ ভালো নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করেন মাহিদুল ইসলাম। বেতন পান ...