সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / মতলবের মেঘনা নদীর বালু কাটা বন্ধে হাইকোর্টের স্থায়ী আদেশ

মতলবের মেঘনা নদীর বালু কাটা বন্ধে হাইকোর্টের স্থায়ী আদেশ

রেদোয়ান খান রাজন

    চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার অর্ন্তগত মেঘনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে হাইকোর্টে রীট করেছেন মোহনপুর গ্রামের কৃতি সন্তান মতলব উত্তর থানা আওয়ামীলীগ নেতা বিশিস্ট শিল্পপতি ও সমাজসেবক কাজী মিজানুর রহমান। এর প্রেক্ষিতে গত ২৩ জুন ১৯ টি মৌজায় বালু উত্তোলন বন্ধে সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।
এ ব্যাপারে আওয়ামীলীগ নেতা কাজী মিজানুর রহমান ২৯ জুন সোমবার এক প্রেস বিফ্রিংয়ে বলেন, বিগত দিন থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মেঘনা নদী থেকে একটি স্বার্থলোভী মহল অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের বাঁধ ঝুঁকির মুখে পড়ে। এমতাবস্থায় মানুষের প্রাণের দাবী বেরীবাঁধকে ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করতে আমি বাদী হয়ে বালু উত্তোলন বন্ধের লক্ষ্যে হাইকোর্টে পিটিশন দায়ের করি। যার প্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।
https://youtu.be/Fo4sT86sYB0
এসব চরের বালু উত্তোলনের কারণে অর্থনৈতিক জোনও ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বে।
তিনি আরও জানান, স্থানীয় এমপি নুরুল আমিন রুহুল নিজেও বালু উত্তোলন বন্ধে ভূমি মন্ত্রণালয় বরাবর ডিও লেটার দিয়েছেন এবং তার সহযোগীতায় বাহেরচরে একটি পুলিশ ফাঁড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। বালু উত্তোলন বন্ধে সকলেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবো। উপজেলার জহিরাবাদ, জয়পুর, নাওভাঙ্গা, উত্তর পোয়ারচর, এখলাছপুর, হোগলা হাসিমপুর, নীলের চর, মোহনপুর, বাহেরচর, বোরোচর, চর ইলিয়ট, রাম গোপালপুর, কাউয়ারচর, বাহাদুরপুর, কালিগঞ্জ, চর সুগন্ধি, ষাটনল, নাসিরা কান্দি, নাপিতমারা চর’সহ মোট ১৯ মৌজায় বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।
কাজী মিজানুর রহমান বলেন, গত কয়েকদিন যাবৎ কিছু প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ায় আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করা হচ্ছে। মোহনপুর লঞ্চঘাটের উত্তর পাশে জমি দখল করেছি বলেও অপপ্রচার করেছে। অথচ এসব ঘটনা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রকৃতপক্ষে ১.৫৯ শতাংশ জমি সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) ক্রয় করেন এবং আশেপাশের প্রায় ১৫ একর জমি তিনি জবর দখল করে বালু ভরাট করেন। যাহার মধ্যে মোহনপুর বাজার সমিতির জমি আছে প্রায় ৯২ শতাংশ। মরহুম কাজী নজরুল ইসলাম ও তার স্ত্রীর নামে ৮০ শতাংশ , মরহুম হান্নান তফাদারের নামে ৮০ শতাংশ, মরহুম ডা. সোলায়মানের নামে প্রায় ৬০ শতাংশ, ডা. এছহাকের নামে ২৮ শতাংশসহ আরও অনেকের জমি আছে। অথচ আমার আমার বিরুদ্ধে একটি পক্ষ অপপ্রচার করেছে। আমরা মোহনপুরবাসী মোহনপুর বাজার সমিতির জায়গায় মোহনপুর পর্যটন মার্কেট করার উদ্যোগ গ্রন করেছি এবং ইতোমধ্যে সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এর ১.৫৯ শতাংশ জায়গা সার্ভেয়ার দ্বারা ডি মার্কেশন করে দেওয়া হয়েছে। তাই আমি আশা করি এখন থেকে এসব অপপ্রচারের অবসান ঘটবে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন,কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা আহসান উল্লা হাসান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য রাধেশ্যাম শাহা বাবুচান্দু,, জেলা যুবলীগের সদস্য সাখাওয়াত হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দেওয়ান জহির, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক জিএম ফারুক,আওয়ামীলীগ নেতা কাজী গোলাম হোসেন, যুবলীগ নেতা কাজী হাবিুবর রহমান, যুবলীগ নেতা হুমায়ুন কবির, ইকবাল হোসেন জয়সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আনিসুজ্জামানের ইন্তেকাল

 আব্দুল মান্নান খান: চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও মতলব দক্ষিণ উপজেলা ...