সর্বশেষ সংবাদ
Home / মুক্তমত / প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন : শ্রদ্ধা করার মানুষগুলি হারিয়ে যাচ্ছে

প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন : শ্রদ্ধা করার মানুষগুলি হারিয়ে যাচ্ছে

রফিকুজ্জামান রণি
চোখ বন্ধ করলেই স্মৃতির আয়নায় ভেসে ওঠে কিছু প্রিয়মুখÑপ্রফেসর মনোহর আলী স্যার, গীতিকার পীযূষ কান্তি রায় চৌধুরী এবং কবি রণজিত চন্দ্র রায়। এই শ্রদ্ধেয় মানুষগুলি আজ পৃথিবীতে নাই। মাত্র দুতিন বছরের ব্যবধানে তাঁদের হারিয়েছি আমরা। এই শ্রদ্ধেয়জনদের সান্নিধ্যে কাটানোর স্মৃতির ঢেউগুলি চোখের সৈকতে এসে এখনও আচড়ে পড়ে বারবার। বুকটা কাঁপিয়ে তোলে। রাতের ঘুম হারাম করে দেয়। আমাদের বটবৃক্ষগুলি। শ্রদ্ধা করার মানুষগুলি একের পর এক এভাবে নাই হয়ে যাবার ঘটনা মানতে বড় কষ্ট হয়। সম্প্রতি আমরা চাঁদপুরের আরো এক গুণী মানুষ কবি প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেনকে হারিয়েছি। এরকম শক্তিমান গবেষক চাঁদপুরবাসী খুব সহসা আর পাবে কিনা জানি না। তবে তরুণ লেখককুল তাঁর মৃত্যুতে একজন অভিভাবককে হারিয়েছে এটাই সত্য। সবসময় তরুণ লেখকদের বুকে আগলে রাখার চেষ্টা করতেন তিনি। চাঁদপুরে যে কজন ভালো মনের মানুষ দেখেছি তাদের মধ্যে দেলোয়ার সাহেব অন্যতম। কোনো তথ্যের প্রয়োজন পড়লে তাঁকে ফোন দিতাম, পথে দেখা হলেও জিজ্ঞেস করে নিতাম। অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে তিনি উত্তর দিতেন। কোনোদিন বিরক্ত বোধ করতেন না বরং খুশিই হতেন। একটা বিষয় নিয়ে নাড়া দিলেই হতো, অনর্গল বলেই যেতেন। কখনো কখনো হোটেলে ঢুকে চা পান করতে করতে ঘণ্টা পার করে দিতাম আমরা। অনুজদের প্রতি মনের টান না থাকলে কেউ এতটা করে না। যে রাতটি ছিলো তাঁর জীবনের শেষরাত, সে রাতেও তাঁর সঙ্গে দীর্ঘ ফোনালাপ হয়। তখনও বুঝতে পারিনি রাত পোহালে এই মানুষটির মৃত্যুসংবাদ আমাকে স্তম্ভিত করে দেবে।
কোনো কারণ ছাড়াই প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেনের নম্বরে ফোন করেছিলাম সে রাতে। কেন যেন মনটা টেনেছিলো তাঁর প্রতি। অনেক কথা হয় আমাদেরÑদেশ, রাজনীতি, সাহিত্য এবং করোনাকাল নিয়ে অনেক সুখদুঃখের কথা। করোনার প্রভাবে রাষ্ট্রের অনৈতিক দুরাবস্থার কথা বলে আক্ষেপ করেছিলেন তিনি। দীর্ঘসময় কথা হয় আমাদের। তখনও বুঝতে পারিনি এই কথাই শেষ কথা হবে! পরের দিন বিশিষ্ট নাট্যাভিনেতা এবং সাংবাদিক শ্রদ্ধেয় শরীফ চৌধুরীর ফেসবুক স্ট্যাটাসে দেখতে পাই প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেনের মৃত্যুর সংবাদ। বিশ^াস করতে পারছিলাম না। স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। বিশ^াস করতে না পেরে প্রায় সাত-আটবার স্ট্যাটাসটা পড়লাম। দুচারজনের কাছে ফোন দিলাম, তারপরের কথা আর কী বলবো…
মধ্যযুগের কবি দোনাগাজীকে আমরা চিনতাম না। চাঁদপুরের মাটিতে যে এতো বড় একজন কবির জন্ম হয়েছিলো এককালে, সেটা হয়তো কখন জানতামও না যদি না প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন সাহেব না জানাতেন। তাঁর জানাশোনার পরিধি আমাকে সবসময়ই বিস্মিত করতো। যে কোনো বিষয়ে খুব গভীর দৃষ্টিপাত করতেন তিনি। দায়সারাভাবে কোনো কাজ করতেন না। যা করতেন অত্যন্ত দরদ মিশিয়ে করতেন। বক্তব্যও রাখতেন অনেক সময় ধরে। কথা বলতে গিয়ে কাউকে ভয় পেতেন না। যা বলতেন স্পষ্ট বলে দিতেন। তোষামোদ বিষয়টা তিনি পছন্দ করতেন না। চাঁদপুরের প্রতিটি গ্রামের মাটিতে তাঁর পদচ্ছাপ পড়েছে। জেলার লোকজ-ঐতিহ্য নিয়ে গবেষণা করেছেন রাতদিন। গবেষণা সাহিত্যে তিনি চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননাও পেয়েছেন। তাঁর গবেষণাকর্ম বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত হয়েছে। শুধু দোনাগাজী নয়, জেলার আরো অনেক কবি-সাহিত্যিকের নাম তাঁর মুখে শুনেছিÑযা আমরা আগে জানতাম না। চাঁদপুরের মাটিকে সমৃদ্ধি করা নানান শ্রেণিপেশার মানুষের নাম তাঁর মুখে যেভাবে শুনতাম আর কারো মুখে সেভাবে শোনার সুযোগ হয়নি। স্বীকার করতে দ্বিধা নেই, আমরা তাঁর যথার্থ মূল্যায়ন করতে পারিনি। খুব কাছাকাছি পেয়ে যাওয়ায়, সহজলভ্য হয়ে যাওয়ায় তাঁর মতো একজন দক্ষ মানুষের গুরুত্ব আমরা সময় মতো বুঝে উঠতে পারিনি। তাঁর মৃত্যুর পর টের পেলাম কতটা শ্রদ্ধা, কতটা গভীর টান অনুভব করতাম তাঁর প্রতি। মৃত্যু সংবাদটা পাবার পর সারাদিন আমার মন খারাপ ছিলো, নিঃশ^াস বন্ধ হয়ে যাবার জোগার হলো। খানাখাদ্য ও কাজেকর্মেও বসেনি মন । আমার বড় ভাই করোনা আক্রান্ত ছিলেন, তাই লকডাউনে ছিলাম, বাসা থেকে বের হয়ে লাশটাও দেখতে পারলাম না, শেষ দেখাটাও দেখার সুযোগ হলো না। এ দুঃখ সারাজীবন আমাকে পীড়া দেবে। উপায়ান্তর না পেয়ে কবিবন্ধু মুহাম্মদ ফরিদ হাসানের সঙ্গে ফোনে প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে শুধু তাঁর স্মৃতিচারণ করে কাটিয়ে দিয়েছি। তাঁর মৃত্যু সংবাদ শুনে আমাদের দুজনেরই মানসিক অবস্থা খুব খারাপ হয়ে পড়লো। বড় ¯েœহ করতেন আমাদের। দুষ্টামিও করতাম তাঁর সঙ্গে। আমি, ফরিদ হাসান এবং সৌম্য সালেকÑ এই তিনজনে মিলে একদা তাঁর গোঁফ নিয়ে কবিতাও বানিয়েছি, সে কবিতা বেনামে পত্রিকায়ও ছাপিয়েছি। আড়ালে আড়ালে খুব মজা করেছি তাঁকে নিয়ে। বিশেষত তাঁর গোঁফ ও কথা বলার স্টাইলটার প্রতি ছিলো আমাদের অনেক বেশি কৌতূহল।
আমি চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি প্রতিষ্ঠা করবার পর তাঁর সঙ্গে কালিবাড়িতে একবার দেখা হয়। তিনি অভিবাদন জানিয়ে বললেনÑ‘সাহস করে তো অনেক কাজই করো দেখছি কিন্তু টিকে থাকতে পারো কিনা সেটাই তো ভয়। এখানকার মানুষ তো কারো উত্থান দেখতে পারে না। কেউ এগিয়ে যেতে চাইলে পেছন থেকে কেমন টেনে ধরে নামাতে মরিয়া হয়ে ওঠে। তুমি নিশ্চিত থাকো, এখন থেকে তুমি কিন্তু অনেক ষড়যন্ত্রের শিকার হবে, আক্রোশের শিকার হবে। অনেক আপনজনও তোমার শত্রু হয়ে দাঁড়াবে। অনেক প-িত তোমাকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে কথা বলবে। তারপরও যদি টিকে থাকতে পারো, ওয়েলকাম। সাহস দেখিয়ে যদি না টিকতে পারো তাহলে এখন থেকেই এসব বাদ দাও, টিকতে পারলেই কেবল মাঠে থাকো। দুচারদিন করার পরে কারো ধমক খেয়ে পিছু হটার চেয়ে আগে আগেই সরে দাঁড়ানো ভালো। তবে তুমি যে সাহস দেখিয়েছ সেটা আমাকে সত্যিসত্যিই বিস্মিত করেছে। এতটা সাহস আজ পর্যন্ত কেউ দেখাতে পারেনি। তাই তোমাকে দেখে মনে হয় না তুমি হারবে। আমি কিন্তু তোমার সঙ্গে তখনই থাকবো যখন তুমি হেরে না গিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সক্ষমতা দেখাতে পারবে।’ আমি বললাম,Ñ‘আপনি শুধু দোয়া করেন, আমি কারো বিরোধিতা করতে নামি নাই; কাউকে প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবতেও আসি নাই। আমি নেমেছি নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে। স্বাধীনভাবে কাজ করতে, লেখকদের আত্মবিশ^াস জোগাতে ও আত্মমর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে।’ আমার কথায় ভীষণ খুশি হয়েছিলেন তিনি, তারপরও বলেছিলেনÑ‘প্রথম প্রথম আবেগে পড়ে মানুষ অনেক কথাই বলে কিন্তু সুযোগ সুবিধা পেলে সবকিছু ভুলে যায়। তুমি যদি এ যুদ্ধে না হেরে টিকে থাকতে পারো তাহলে দেখবা শুধু আমিই না, জেলার সবাই তোমার পাশে দাঁড়াবে। আমার অনুরোধ রইলো, কারো কাছে অন্তত বিক্রি হইও না, মাথা ছোট করো না। যেদিন মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে সেদিন বুঝবো তোমার সাহস আছে। কাউকে তোয়াজ করে না চলে নিজের মতো করে এগিয়ে যাও। ভালো কাজ করলে আমি আছি তোমার সঙ্গে। যে কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হলে বলো।’
এভাবে অনেক কথা হতো তাঁর সঙ্গে। দেখা হলেই চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির খোঁজ-খবর নিতেন। সভাপতি নূরুন্নাহার মুন্নীর খোঁজ নিতেন। সুন্দর সুন্দর পরামর্শ দিতেন। আমাদের বই উপহার কর্মসূচি দেখে ভীষণ খুশি হয়েছিলেন। আমাদের অনেক উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন এবং কিছু কিছু কর্মকা-ের সমালোচনাও করেছেন। দিয়েছেন এগিয়ে যাবার সাহস। মনে শক্তি জুগিয়েছেন। যে কোনো সহযোগিতার জন্যেও আশ^াস দিয়েছিলেন। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পদত্ত দোনাগাজী পদক-২০১৯ অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন তিনি। আমাদের আয়োজন দেখে এতটাই মুগ্ধ হয়েছিলেন যে, তারপর থেকে নিয়মিত প্রতিষ্ঠানটির খবর নিতেন। পরামর্শ দিতেন। এতো বড় অনুষ্ঠান করে ধার দেনা করে যেন ঋণের চাপে হারিয়ে না যাই সেটাও স্মরণ করিয়ে দিতেন। সে অনুষ্ঠানে তাঁর বক্তব্য শুনে কথাসাহিত্যিক মনি হায়দারও মুগ্ধ হয়েছিলেন। দোনাগাজী পদক অনুষ্ঠানে তাঁকে উদ্বোধক করার কথা দুদিন আগেই জানাজানি হয়ে গিয়েছিলো। তাঁর কাছে কেউ একজন ফোনও করেছিলেন আমার বদনাম করে এবং অনুষ্ঠানে না যাবার ব্যাপারে অনেকটা কঠোর ভাষায় বারণ করেছিলেন। তিনি আমাকে ফোনে সেসব কথা তাৎক্ষণিক জানিয়ে দিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন,Ñ‘তোমার অনুষ্ঠানে আমি যাবোই। পৃথিবীর কোনো শক্তি আমাকে থামিয়ে রাখতে পারবে না।’ তারপরও আমি কিছুটা চিন্তাগ্রস্ত অবস্থায় পড়ে গেলাম, সত্যিসত্যিই তিনি আসবেন তো? ফাইনালভাবে ব্যানার প্রিন্ট করার সময়ও ফোন দিয়ে বলেছিলাম, তিনি আসবেন কিনা। কারো প্ররোচনায় আবার অনুষ্ঠানের দিন মত পাল্টে ফেবলেন না তো? তিনি আমাকে আশ^াস দিয়েছিলেন। দ্বিধাসংকোচ মনে নিয়েই ব্যানার প্রিন্ট করালাম। অনুষ্ঠানের দিন তিনি যথাযথ সময়ে এসে উপস্থিত হলেন। কথা রেখেছিলেন। আমি তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ। কারো কথা তোয়াক্কা না করে তিনি সাহিত্যের টানে ছুটে এসেছিলেন সেদিন। আমাকে অসম্মান করেনি।
আমার ইচ্ছে ছিলো বই উপহার কর্মসূচির একটি অনুষ্ঠানে তাঁকে অতিথি করে নেবো। নিয়তি সে সুযোগ দেয়নি। নিয়ে গেলো এই গুণী মানুষটাকে। মনোহর আলী স্যারের প্রতিও ছিলো আমার ভীষণ দুর্বলতা। তিনিও চলে গেলেন তার অল্পকিছুদিন আগে।
সাধারণত সবখানে আমরা দেখি ‘নবীনবরণ’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নতুনদের বরণ করে নেয়া হয়। আমার স্বপ্ন ছিলো চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির পক্ষ থেকে ‘প্রবীণবরণ’ নামের একটি অনুষ্ঠান করবো। সেখানে জেলার শিল্পসাহিত্যের প্রবীণ গুণীজনদের বরণ করে নেবো। সব ধরনের বিভেদ বিভাজন ভুলে গিয়ে তাঁদের ছায়ায় বেড়ে ওঠবো। অতীব দুঃখের বিষয় হলো, প্রফেসর মনোহর আলী স্যার ও প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন সাহেবের নাম আমি তালিকার প্রথম দিকে ঠাঁই দিয়েছিলাম। তারা দুজনেই এখন আর পৃথিবীতে নেই! ফলে প্রবীণবরণ অনুষ্ঠান করার শক্তিটুকুও আমি হারিয়ে ফেললাম। এ ব্যথা আমার বহুকাল বুকের মধ্যে গাঁথা থাকবে।
প্রকৌশলী দেলোয়ার সাহেব ও মনোহর আলী স্যার। দুজনেই অল্পদিনের ব্যবধানে আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। মনোহর আলী স্যারকে প্রথম যখন দেখি, মনে হয়েছিলো এ যেন কবি আবদুল মান্নান সৈয়দের অনুকপি। কথাবার্তা, চলাফেরা এবং ব্যক্তিত্বÑসব মিলিয়ে তাঁকে আবদুল মান্নান সৈয়দের মতোই মনে হতো। ফলে প্রথম দেখাতেই তাঁর প্রতি দুর্বল হয়ে পড়ি, বলা যায় তাঁর প্রেমে পড়ে যাই। প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেনকে প্রথম যখন দেখি তখন মনে হয়েছিলো এ যেন সেনাবাহিনীর কোনো মেজর প্রকৃতির মানুষ হবে। গোঁফ, চুল এবং কথাবার্তায় তাঁকে সাধারণ মানুষ ভাবার সুযোগ ছিলো না। পরে জানলাম তিনি একজন কবি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা। সেসময় সাহিত্য আসরে আসতেন শক্তিমান কবি সনতোষ বড়–য়া। সনতোষ বড়–য়া ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। অসাধারণ কবিতা, ছড়া এবং গল্প লিখতেন তিনি। তাঁর চলাচলতিতেও ছিলো আলাদা গাম্ভীর্যভাব কিন্তু তরুণদের সঙ্গে দারুণ ভাবে মিশে যেতেন তিনিও। এই তিনজন গুণিব্যক্তিকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্নভাবে সাহিত্য আসরে দেখতাম। খুব দরদ দিয়ে কথা বলতেন তাঁরা। তাঁদের থেকে অনেক কিছু শেখার সুযোগ পেয়েছি আমরা। কোনো ধরনের অহমিকা কিংবা দাম্ভিকতা দেখিনি তাঁদের মধ্যে। মনোহর আলী স্যার ও দেলোয়ার সাহেব পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। সনতোষ বড়–য়া বদলিযোগ্য চাকরির কারণে অন্য কোথাও চলে গেছেন। তারপর আর দেখার সুযোগ হয়নি। জানি না কেমন আছেন তিনি। এই তিনটি রতœ আমার মনের মধ্যে চিরকাল গেঁথে থাকবেন। আরো গেঁথে থাকবেন পীযূষ কান্তি রায় চৌধুরী ও রণজিত চন্দ্র রায়ের মতো দুজন ভালোবাসার মানুষের স্মৃতিমুখ। তাঁদের সকলের আত্মার শান্তি কামনা করি। যে যায় সে কখনোই ফিরে আসে না। তারপরও থেমে থাকে না পৃথিবী। কিন্তু কিছু কিছু শূন্যস্থান খুব সহজে পূরণ হয় না। হয়তো তাঁদের শূন্যস্থানও পূরণ হবে না কোনো কালে। তারপরও জেলার শিল্পসাহিত্যের মাঠ আবারও সোনার ফলে ভরে ওঠুক এবং লেখকদের অন্তরে গাঁথা থাকুন প্রিয় অগ্রজদের নামগুলোÑএটাই কামনা করি। যাঁরা বেঁচে আছেন তাঁদের দীর্ঘায়ু কামনা করি।
সকল অগ্রজের প্রতি রইলো এই অনুজের বিন¤্র শ্রদ্ধা।

লেখক :
রফিকুজ্জামান রণি
মহাপরিচালক ,
চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি
চাঁদপুর।
০১৯২৪৬৮৫২৯৩

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

মতলব উত্তরে এনায়েত নগরের দ্যা সরকার কটেজ পর্যটন কেন্দ্র হতে পারে

মানিক দাস// গ্রামের পরিবেশে এরকম সুন্দর কটেজ বা বাংলো কেউ দেখেছে কিনা ...