সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / ঘোষেরহাটে বোগদাদের ধাক্কায় ৩ মোটর সাইকেল আরোহি হতাহত

ঘোষেরহাটে বোগদাদের ধাক্কায় ৩ মোটর সাইকেল আরোহি হতাহত

মানিক দাস // চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের ঘোষেরহাট জাফরবাড়ি এলাকায় বোগদাদ বাসের সাথে মোটরসাইকেলের মুখমুখি সংঘর্ষে ১জন নিহত ও ২জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ দূঘটনাটি ঘটেছে।চাঁদপুর কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের ঘোষেরহাট জাফরবাড়ি নামক স্হানে দূঘটনাটি ঘটে।প্রত্যক্ষদর্শি ও আহতদের সূত্রে জানাযায়, হাজীগঞ্জের মাতাবাড়ি গ্রামের মুন্সিবাড়ির মোঃ ইউসুব মুন্সির ছেলে তোফায়েল মুন্সি (৩২)তার চাচাতো ভাই মোঃ হাসান মুন্সি (৩০)ও মোঃ সোহাগ (৩২)মোটর সাইকেল যোগে মহামায়া বাজারে কপি খেতে আসছিল।মাগরিব নামাজের সময় মোটর সাইকেল আরোহিরা ঘোষেরহাট জাফরবাড়ির কাছে আসলে চাঁদপুর থেকে কুমিল্লার পথে যাওয়া বোগদাদ ট্রান্সপোটের যাত্রীবাহি বাসের সাথে মোটর সাইকেলটির ধাক্কা লাগে ।
এতে মোটর সাইকেলের মাঝ খানে বসে থাকা তোফায়েল মুন্সির মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হয়ে ঘটনাস্হলেই মারা যায়।গুরুতর আহতবস্হায় হাসান ও সোহাগকে স্হানীয়রা উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করায়। দূঘটনার খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানারঅফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিনের নির্দেশে এ এস আই দেবু মজুমদার দূঘটনাস্হল থেকে তোফায়েলের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে আসে। নিহত তোফায়েলের চাচাতো ভাই খোরশেদ জানান আমরা ভাই হারিয়েছি , মামলা মোকদ্দমা করে কি হবে, ভাইতো আর পাবনা।তোফায়েল মুন্সি ১পুত্র ও ১ কণ্যা সন্তানের জনক।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

ঠাকুরগাঁওয়ে ভারীবর্ষণে পানিতে ভেসে গেল কোটি টাকার পাকা রাস্তা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায়  ভারীবর্ষণে পানিতে ভেসে গেছে কোটি টাকা দিয়ে ছয় মাস আগে নির্মাণ করা জাউনিয়া-সাবাজপুর গ্রামের চলাচলের একমাত্র পাকা রাস্তা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে জাউনিয়া, সাবাজপুরসহ কয়েকটি গ্রামের হাজার মানুষ। স্থানীয়রা জানায়, মাটি ভরাট করে উঁচু না করে রাস্তা নির্মাণ ও নিম্নমানের পাকাকরণ কাজের জন্য দ্বিতীয় বারের মত সাবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পশ্চিম পার্শের রাস্তাটি পানিতে ভেসে গেছে। এতে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে মূল শহরের সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে জাউনিয়া, সাবাজপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের। সাবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ জানান, রাস্তাটি পাকাকরণ করার এক বছরও হয়নি। অতিবৃষ্টির ফলে প্রায় ৮০ শতাংশ রাস্তা ভেসে গেছে পানিতে। রাস্তাটি সংস্কারের জন্য স্থানীয় প্রকৌশলীকে বলা হয়েছে। দ্রুত সংস্কার না করা গেলে বিদ্যালয়ে যাতায়াতসহ স্থানীয়দের চরম ভোগান্তি পোহাতে হবে। উপজেলা প্রকৌশল সুত্রে জানা যায়, গেল ছয় মাস আগে প্রায় কোটি টাকা বরাদ্দে জাউনিয়া বাজার থেকে সাবাজপুর গ্রাম পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ করা হয়। কাজটি সম্পন্ন করার সময় স্থানীয়দের দাবি ছিল রাস্তাটি উঁচু করে মাটি ভরাটের পর পাকা কারণ করার। তবে সেটি না হওয়ার কারণে পানিতে ভেসে গেছে সব। এবিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মাইনুল ইসলামের সাথে ...