সর্বশেষ সংবাদ
Home / মুক্তমত / কিশোর গ্যাং অপ্রতিরোধ্য ; ভয়াবহ এক সামাজিক ব্যাধী

কিশোর গ্যাং অপ্রতিরোধ্য ; ভয়াবহ এক সামাজিক ব্যাধী

রাজধানীর উত্তরখান এলাকা রাত ৮ঃ৩০। রাস্তার খানা খন্ডকে পানি জমে আছে। খুবই সাধারণ বিষয় রিক্সা খানা খন্ডকের উপর দিয়ে গেলে পানি ছিটে মানুষের গায়েঁ যেতে পারে৷ এই পানি ছিটেফোঁটা কাল হলো যুবক সোহাগের জীবনে। ঘটনা প্রবাহঃ রাস্তার পানি ছিটেফোঁটা গিয়ে লাগলো রাস্তার পাশে থাকা কিশোরের গায়েঁ।
সাথে সাথে ৬ জন কিশোর দলবদ্ধ হয়ে দৌড়ে গিয়ে ধরলো রিক্সাওয়ালাকে। ধরেই তাকে এলোপাতাড়ি মারতে শুরু করলো। যেটা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখতে ভালো লাগেনি যুবক সোহাগের। ব্যক্তিগত জীবনে অত্যন্ত নম্র, ভদ্র,সৎ মিশুক হিসাবে পরিচিত সোহাগ বাঁধা দিলেন সেই কিশোরদের। যেটি যেকোনো সভ্য মানুষ স্বাভাবিক ভাবে বাঁধা দিবে। আর এই বাঁধা দেওয়ার কারনেই জীবন দিতে হলো সোহাগ কে। ঘটনাস্থলেই তার পেটে ছুড়ি চালিয়ে দেয় এক যুবক সাথে সাথে তার নাড়িভুঁড়ি বের হয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন ধরে নিয়ে হাসপাতাল নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করে।
প্রশ্ন জাগতে পারে, কারা এই কিশোর???
যাদের অন্যায়ের প্রতিবাদ করলেই জীবন দিতে হবে!! উত্তর হলো এরা কিশোর গ্যাং। গোটা ঢাকা শহর জুড়েই এই কিশোর গ্যাং এর উত্তাপ৷ এদের অত্যাচার নির্যাতন, নিপীড়নে অতিষ্ঠ রাজধানীবাসী। পারষ্পরিক দ্বন্দ্ব, এলাকা এলাকা যুদ্ধ, ছিনতাই, চাঁদাবাজি,রাহাজানি, মাদক,ইভটিজিং সবগুলো অপকর্মের সাথে এরা জড়িত।এরা নিজেদের আলাদা একটি জগৎ সৃষ্টি করেছে যেখানে তারা কেনো আইন কে মান্য করেনা৷নিজেরাই আইন তৈরি করে। এদের বেশিরভাগ সদস্য স্কুল কলেজ পড়ুয়া। এদের প্রতিটি দলে একজন গ্রুপ লিডার আছে৷ নানা রকম গ্যাং সৃষ্টি করে বিভিন্ন এলাকা দখল করে এই অপকর্ম চালায়। এছাড়া টিকটক, লাইকি এগুলে ৭০/৮০ জন মিলে রাস্তা আটকিয়ে করছে যেখানে প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের হাতে মারধরের শিকার হতে হচ্ছে। তথাকথিত অফু ভাই নামক ঘটনার মধ্য দিয়ে আমরা দেখেছি। রাজধানীর উত্তরা এলাকা। আভিজাত্য এলাকা নামেই পরিচিত৷ যারা একটু শান্তিকামী সুন্দর জীবনযাপনে অভস্ত্য তারাই এই এলাকায় বসবাস করে।
এই উত্তরাতেই রয়েছে কিশোর গ্যাং এর ৭/৮ টি সংগঠন। উল্লেখ্যযোগ্য বিগবস, নাইন এমএম, নাইন স্টার,ডিসকো বয়েজ ছাড়াও আরো কিছু কিশোর গ্যাং। ইতিমধ্যে উত্তরা তে এই কিশোর গ্যাং এর হাতে ৩ টি হত্যাকান্ড ঘটেছে।যার শুরু হয় ট্রাস্ট কলেজের নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া আদনান কবির হত্যাকান্ডের মধ্য দিয়ে। সর্বশেষ গতোকাল তার নির্মম শিকার যুবক সোহাগ। এই কিশোর গ্যাং দের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। সচেতন বাবা, মা তাদের সন্তান কে সর্বদা আতংকে দিন কাটাচ্ছে। অথচ এই কিশোরদের হাতে থাকার কথা বই, যাদের এই বয়সে করার কথা খেলাধুলা,যাদের এই বয়সে করার কথা একে অপরের সাথে বন্ধুত্ব সেখানে তারা এখন হাতে তুলে নিচ্ছে অস্ত্র, তারা ব্যস্ত দখলদারত্বে, তারা ব্যস্ত সিনিয়র জুনিয়র দ্বন্দ্ব নিয়ে, তারা নিজেদের ক্ষমতা জানান দেওয়ার ভয়ংকর প্রতিযোগিতায় লিপ্ত। কি এদের ভবিষ্যত৷ যারা কিশোর বয়সে অস্ত্র হাতে পাচ্ছে তাদের জন্য ভবিষ্যতে কি অপেক্ষা করছে?? প্রশ্ন থেকে যায়?? চলুন এবার আসি সমস্যা কোথায়???? নিঃসন্দেহে এটি একটি সামাজিক ব্যাধী। এই কিশোর গ্যাং এর সদস্য দের মধ্যে উচ্চবিত্ত, নিম্নবিত্ত উভয় শ্রেণির পরিবারের সদস্য রয়েছে। আমি অনেক গুলে সমস্যা খুঁজে পেয়েছি। যেমন বাবা মায়ের সময় না দেওয়া, সন্তানের দিকে খেয়াল না করা, ধর্মীয় কালচার না জানা, পর্যাপ্ত খেলাধুলার পরিবেশ না থাকা,এবং অসুস্থ সাংস্কৃতি চর্চা করা। এগুলো এক ধরনের প্রাথমিক বা মৌলিক সমস্যা। এছাড়াও তারকাখ্যাতি, হিরোইজম,ক্ষমতা, বয়সের
অপরিপক্কতা,অর্থলোভ,পারিবারিক দুর্বল বন্ধন এসবের প্রভাবে তাদের সামাজিকীকরন ও মানসিক বিকাশ দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং ফলশ্রুতিতে তারা জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন গ্যাং কালচারে। গুরুতর সমস্যা হলো এদের ব্যবহার করছে কারা?? এদের কে ফুসলিয়ে দিচ্ছে কারা?? এদের কে অনুপ্রেরণা দিচ্ছে কারা?? আমি বলবো এদের ব্যবহার করছে এক শ্রেণীর রাজনীতিবীদ রা, এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা। যাদের অপকর্মে ব্যবহার করা হচ্ছে এই কিশোরদের।
এবার তো সমাধানের পথ খুজতে হবে। কিশোর গ্যাং যেভাবে বিস্তার লাভ করেছে এদের কে নির্মুল করতে হলে এখনিই প্রশাসন কে নিতে হবে কঠোর পদক্ষেপ। খুঁজে বের করতে হবে এদের মদদদাতা কে। পাশাপাশি বাবা, মা কে তাদের সন্তানকে সময় দিতে হবে। তাদের সাথে যেনো ভালো মন্দ শেয়ার করতে পারে সে পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। মসজিদে খতিব সাহেবদের কে ধর্মীয় রিতীনিতী আলেচনা করতে হবে৷ কিশোর যুবকে দের ধর্মীয় কাজে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। স্কুল কলেজ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোতে
সামাজিকতা,শিষ্টাচার অনুশীলন করাতে হবে।
 তাদের মেধা চিন্তা, চেতনা বিকাশ সাধন করার জন্য শরীরচর্চা, খেলাধুলার ব্যবস্থা করতে হবে৷ তবেই ধীরে ধীরে এই ভয়ংকর সামাজিক ব্যাধী কিশোর গ্যাং থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এবং এভাবেই কিশোর যুবোক দের কে পড়াশোনায় পুর্নাঙ্গ মনোযোগ আনা সম্ভব।
লেখকঃ শিবলী মাহমুদ , সহ-সম্পাদক বাংলাদেশের সময় ।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন : শ্রদ্ধা করার মানুষগুলি হারিয়ে যাচ্ছে

রফিকুজ্জামান রণি চোখ বন্ধ করলেই স্মৃতির আয়নায় ভেসে ওঠে কিছু প্রিয়মুখÑপ্রফেসর মনোহর ...