সর্বশেষ সংবাদ
Home / অপরাধ / ফরিদগঞ্জে রাসেল হাসানের বিরুদ্ধে ছাত্র বলাৎকার ও যৌন হেনস্তার অভিযোগ

ফরিদগঞ্জে রাসেল হাসানের বিরুদ্ধে ছাত্র বলাৎকার ও যৌন হেনস্তার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টারঃ চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার এ আর হাই স্কুলের সাবেক খন্ডকালিন ও বিতর্কিত শিক্ষক রাসেল হাসানের বিরুদ্ধে এবার ছাত্র বলৎকার ও যৌন হেনস্তার অভিযোগে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা করা হয়েছে। গত কিছুদিন যাবৎ ফরিদগঞ্জ এ আর হাই স্কুলের সাবেক এই বিতর্কিত শিক্ষককে নিয়ে তার ছাত্ররা যৌন হয়রানির অভিযোগ করে আসছিলো এবং যা ফরিদগঞ্জ উপজেলার অন্যতম হট টপিক।
গতকাল ১৯ অক্টোবর এই অভিযোগে ভিকটিম তার তার ছাত্র কাছিয়াড়া এলাকার রণজিৎ চন্দ্র দাশের ছেলে তমাল কৃষ্ণ দাশ তপু ফরিদগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।
এতে উল্লেখ করা হয়, রাসেল হাসান একজন লম্পট প্রকৃতির লোক। শিক্ষকতার আড়ালে সে শিক্ষার্থীদের যৌন পীড়নে লিপ্ত হয়ে থাকতো। ২০১৪ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত লম্পট শিক্ষক রাসেল হাসান ফরিদগঞ্জ এ আর হাই স্কুলের শিক্ষক থাকা অবস্থায় আমরা ফরিদগঞ্জ ওয়াপদা সংলগ্ন লিলি গার্ডেন হাউজ নামে বাড়ীতে পড়াশুনার সুবিধার্থে ভাড়া থাকতাম। তখন বিবাদী রাসেল হাসানও একই রুমে থাকতো। এবং সে শিক্ষার্থীদের আদর করার ছলে বিকৃত মনে যৌন হেনস্তা করতো। এসময়ে রাসেল হাসান আমাকে এবং সাক্ষীগণকেও যৌন হেনস্তা করেছে এবং অনেক ছাত্রীরাও তার যৌন লালসার শিকার হয়েছে। যৌন হেনস্তার শিকার হয়ে আমি মানষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ি এবং আমার বন্ধু ৪নং বিবাদীও একই ভাবে যৌন হেনস্তার শিকার হয়ে মানষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ে। আমি বিবেকের তাড়নায় এ বিষয়ে ফেসবুকে বক্তব্য দেই।
এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সহিদউল্লা বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি এবং এ বিষয়ে আমরা গুরুত্বসহকারে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।
অভিযুক্ত রাসেল হাসানের এই যৌন হেনস্তার ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হতে থাকলে তাকে ইতমধ্যে ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাব, ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরাম, ফরিদগঞ্জ ফুটবল একাডেমী, ফরিদগঞ্জ স্পোর্টস ক্লাব, বাজার বাড়ি ফরিদগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ স্টুডেন্ট কমিউনিটি থেকেও তাকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে।
স্থানীয়রা জানায়, ২০১৪ এবং পরে ২০১৮ সালে এই শিক্ষক রাসেলের বিরুদ্ধে ফরিদগঞ্জের দক্ষিণ কাছিয়াড়া গ্রামের তারই ছাত্রী বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ আনে। কিন্তু এই লম্পট শিক্ষক নানান কলা কৌশলের প্রভাব খাটিয়ে তথাকথিত তদন্ত কমিটি দিয়ে বরং ঐ ছাত্রীটিকেই ফরিদগঞ্জ এ আর হাই স্কুল থেকে বহিস্কার করায়। ঐ সময়ে তার বিরুদ্ধে কথা বলায় অনেকের বিরুদ্ধে নানান উস্কানিমূলক কর্মকান্ড করে ও হয়রানিমূলক মামলা দেয়।
এ ব্যপারে তার বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও রাসেল ফোন রিসিভ করেনি।
এ ব্যপারে ভিকটিমরাসহ সচেতন ফরিদগঞ্জবাসী এই লম্পট শিক্ষককে এখনই দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন। সেই সাথে যারা এতোদিন তাকে বিভিন্ন ভাবে আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়েছে। তাদেরকেও চিহ্নিত করার জোর দাবী জানিয়েছেন।
পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

মতলবে মাদ্রাসা ছাত্রকে বলাৎকার ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা আ’লীগ নেতাদের

মতলব উত্তর উপজেলা প্রতিনিধিঃ  মতলব উত্তর উপজেলার ফরাজকান্দি ইউনিয়নের হাজীপুর মাদ্রাসায় অধ্যায়নরত ...