সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিষ্টের মানববন্ধন

চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিষ্টের মানববন্ধন

মানিক দাস ॥ চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্টগণ বিভিন্ন দাবি দাওয়ার প্রেক্ষিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছে। বুধবার সকাল ১০টায় চাঁদপুর প্রেসক্লাব প্রাঙ্গনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্ট মোঃ রাসেল হোসাইন এর সভাপতিত্বে ও আবির মজুমদারের পরিচালনায় বক্তারা বলেন, সারা পৃথিবী জুড়ে যখন করোনা ভাইরাস মহামারিতে আতংকিত ঠিক বাংলাদেশও তখন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় আতংিকত ছিলেন। কারণ স্বাস্থ্যখাতে জনবল সংকট থাকায় করোনা আক্রান্ত রোগীর নমুনা সংগ্রহ করা ও দিন দিন আক্রান্তের হার বৃদ্ধি হওয়ায় নমুনা সংগ্রহ করা অনেকটাই বিপাকের মধ্যে ছিল কর্মরত টেকনোলজিস্টগণ। দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে সারা দেশে এই করোনা যুদ্ধেও মানবতার টানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে এক দল স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্ট দেশের প্রত্যেকটি সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জেলা সদর হাসপাতাল, সিভিল সার্জন অফিস সহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে স্বেচ্ছায় বিনা পারিশ্রমিকে ও সুযোগ সুবিধা ছাড়াই ৬/৭ মাস করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ কাজে কর্মরত আছে।

দেশের দিন দিন করোনা ভাইরাস রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় ও পরিক্ষা নিরীক্ষা এবং আক্রান্ত রোগীদের জরুরি স্বাস্থ্য সেবা দিতে রাষ্ট্র কর্তৃক নির্বাহী আদেশের বিশেষ বিবেচনায় সরকারি বেসরকারি ও স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান থেকে ১শ ৪৫ জন ও পরবর্তীতে ৫৭ জন মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট রাজস্ব খাতে স্থায়ী নিয়োগ দেওয়া হয়। এভাবে রাজস্ব খাতে নিয়োগ দেওয়ায় স্বেচ্ছাসেবী টেকনোলজিস্টরা রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সেই সাথে সারা দেশে নাম বাদ পড়া ও কর্মরত বাকি স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের রাজস্ব খাতে স্থায়ী করার আহ্বান জানান। করোনা মহামারিতে বাংলাদেশ যে পরিস্থিতি ছিল তাতে সঠিকভাবে নমুনা সংগ্রহ করা ও পরিক্ষা নিরীক্ষা করা কর্মরত টেকনোলজিষ্টদের পক্ষে সম্ভব ছিল না। সেই সময় জীবন যুদ্ধে নিজের জীবনের কথা না ভেবে আমরা মানবতার কথা ভেবে স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা স্বেচ্ছায় বিনা পারিশ্রমিকে এগিয়ে না আসত তবে দেশের স্বাস্থ্যখাতে অনেক ক্ষতি হত।

আমরা অনেকেই কয়েকবার এই করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। অনেকে তার পরিবার ছাড়ছেন। প্রাইভেট চাকুরি ছেড়েছেন শুধু প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে। দুখী মানুষের পাশে এগিয়ে আসার প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির নির্বাহী আদেশে যেভাবে ১শ ৪৫ জন, পরবর্তীতে ৫৭ জন স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট নেওয়া হয়েছে আমাদেরকেও একেইভাবে রাজস্ব খাতে নিয়োগ দিয়ে করোনা মহামারিতে মানবতার পাশে থাকার সুযোগ দানে দৃষ্টি কামনা করছি। এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন, মোঃ আল-আমিন, মোঃ মাসুদ আলম, সুমন চন্দ্র দাস, রাশেদ হোসাইন, জেসমিন সুলতানা জেমি, রুপম চন্দ্র দাস, রাকিবুল ইসলাম, টিপু সুলতান প্রমুখ।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

বর্তমান শিক্ষাথীদের মোবাইল গেমস যেন সবথেকে  মরন নেশা

মোঃ সাগর হোসেন,বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের শার্শা উপজেলায় দিন দিন ইন্টারনেট ফাইটিং ফ্রি ...