সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / বিরামপুরে অনুমোদন ছাড়া চুলের রমরমা ব্যবসা,করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা দেখার কেহ নাই

বিরামপুরে অনুমোদন ছাড়া চুলের রমরমা ব্যবসা,করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা দেখার কেহ নাই

রেজওয়ান আলী বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি-দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার অন্তর্ভুক্ত গ্রাম পাড়া মহল্লায় অনুমোদন ছাড়া রমরমা চুলের ব্যবসা কোভিট-১৯,করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনার ঝুঁকি নিয়ে বিপাকে পড়েছে জনসাধারণ।
তথ্য মতে জানা যায় যে,উপজেলায় ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার মধ্যে পাড়া মহল্লা পৌরসভার ঝাউবন,দেবীপুর, চুরকুই,মির্জাপুর,আঠারো জানি,শিয়ালা,
ঝগড়ুপাড়া,খাঁনপুর,সন্দলপুর,নয়ানী খোশালপুর,চকপাড়া,সহ পৌরসভার সকল পাড়া মহল্লা। ৭ ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ড ভূক্ত এই সব কার্যক্রম মেয়েদের দিয়ে সরকার কে ফাঁকি দিয়ে স্বাস্থ্য বিধি না মেনে মাথার চুল ছেঁড়ার কাজের রমরমা ব্যবসায় রত চুল ব্যবসায়িরা।
এ বিষয়ে স্হানীয় জনসাধারণ অভিযোগে
বলেন অনুমোদন ছাড়া কাদের ক্ষমতায় এই রকম কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন চুল ব্যবসায়িরা। তারা আরও বলেন প্রতিটি পাড়া মহল্লায় বসবাস করেন অনেক পরিবার,কাঁটা ছেঁড়া চুলের অংশ বিশেষ বাতাসে ওড়ে সকলের বাড়িতে প্রবেশ করতঃ অস্বাস্হ্যকর পরিবেশ তৈরি করেছে চুল ব্যবসায়িরা।
অনুমোদন ছাঁড়া,সরকার কে কর ট্রাক্স ফাঁকি দিয়ে মেয়েদের মাথার চুল ছেঁড়ার রমরমা ব্যবসায় স্হানীয় কিছু অসাধু মহলের দাপটে এমন কাজ করে যাচ্ছেন মর্মে এলাকাবাসীর অভিযোগ। এ বিষয়ে চুল ব্যবসায়ি জামাল ও কামাল নামের ২জন ব্যক্তির নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন আমরা অত্র উপজেলা অন্তরালের প্রত্যেক পাড়া মহল্লায় গড়ে তুলেছি এই ব্যবসা সরকারের ট্রাক্স কর ও স্বাস্থ্য বিধি কি মানতে হবে।
গ্রাম পাড়া মহল্লায় বাড়ি বাড়ি চুল ছেঁড়ার কাজে সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী পরিবেশ ছাড়পত্র,বিএসটিআই থাকা একান্ত প্রয়োজন মর্মে জানতে চাইলে তারা বলেন,কোন কাগজপত্র করা হয় নাই প্রয়োজন হবে না মর্মে জানান। চুল ছেঁড়ার দলের কর্মীগনের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন আমাদের ডিউটি করতে হয় সকাল ৮-৪ পর্ষন্ত বেতন প্রদান করেন ৬০ টাকা মাত্র নেই কোন কাজের ডকুমেন্টস।
শ্রম আইন দেশে আছে কি না যদি থাকতো তবে আমাদের বিষয় টি দেখত বলে অভিযোগ করেন।
সারাদিন শ্রমের মূল্য দেয় মাত্র ৬০ টাকা
এতে আমাদের পূর্ণ শ্রমের মূল্য হয় না,কে দেখবে এই সমস্যা এমন কাজের হাজিরা কোথায় রয়েছে।
করোনার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন আমাদের কোন রকম নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে মাস্ক ব্যবহার ও বেতনের বিষয়ে কিছু বলা যায় না। এমন অবস্থায় আমাদের জিবনের ঝুকি তো থেকে যায় যাহা দেখার কেহ নেই মর্মে জানান। চুলের কার্যক্রমের দলকৃত
গ্রাম পাড়া মহল্লার জনসাধারণের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন আমরা গ্রামে আমাদের স্ত্রী পুত্র সন্তান পরিবার নিয়ে বসবাস করি। এই চুলের কাজে আমাদের পরিবারের সদস্যদের সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে স্হানীয় প্রশাসন তাহা কেন লক্ষ্য রাখে না,বিষয়টি তাদের জোরালো ভাবে দ্রুত ব্যবস্হা গ্রহণ করার দাবী জানাই।

এ বিষয়ে পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কমিশনার জুয়েল এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি বিষয়টি অবগত আছি,তবে তারা সরকার কে ফাঁকি দিয়ে স্হাস্হ্য বিধি মেনে কাজ না করার প্রতি তাগিদ রয়েছে। বিষয় টি আমি মেয়র সাহেব কে জানিয়েছি,অনতিবিলম্বে এর ব্যবস্হা গ্রহণ করা হবে বলে জানান।
উল্লেখ্য উপজেলার প্রতিটি গ্রাম পাড়া মহল্লায় গড়ে উঠেছে চুল ছেঁড়ার কাজ যাহাতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। ১০-১৫ জনের হাজিরা ৬০ টাকা,গ্রাম ও পাড়া মহল্লার অনেক পরিবারের সদস্যদের জিবনের ঝুকি। অতি জরুরি ভাবে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবী এলাকাবাসীর।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিমল কুমার সরকারের মিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন কোন এলাকার জানতে পারলেই ব্যবস্হা গ্রহণ করা হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

চাঁদপুরে শিক্ষানবিশ সহকারি পুলিশ সুপার হিসেবে শেহরীন আলমের যোগদান

মানিক দাস, চাঁদপুর ॥ চাঁদপুরে শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে শেহরীন আলম ...