সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / রাজরাজেশ্বরের বন্দুকশির বাজারে হাঁস-মুরগী ও ছাগলের খামার ॥ সহায়তা পেলে আরো উন্নত করা যাবে

রাজরাজেশ্বরের বন্দুকশির বাজারে হাঁস-মুরগী ও ছাগলের খামার ॥ সহায়তা পেলে আরো উন্নত করা যাবে

মানিক দাস // চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউরিয়নের বন্দকশি বাজারে সৌদি আরব প্রবাসী দু বন্ধু গড়ে তুলেছেন হাঁস, মুরগি, ছাগল ও কবুতরের খামার। এ খামারের নাম দেয়া হয়েছে দুই বন্ধু সমন্বিত খামার। এ খামারটির বয়স মাত্র ১০ মাস। করোনা শুরু হলে বন্দুকশি বাজার এলাকার বাসিন্দার সৌদি আরব প্রবাসী আকাশ হোসেন ও তার বন্ধু বোরহান উদ্দীন সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে আসেন। আকাশদের মালিকানাধীন ২৪ শতাংস সম্পত্তিতে ২ হাজার ৫ শ হাঁসের বাচ্চা দিয়ে হাঁসের খামারের কার্যক্রম শুরু করেন।

আকাশ হোসেন জানান, আমরা এখনো লাভের মুখ দেখিনি। কেননা হাঁস পালতে হয় পানিতে ছেড়ে। আমরা প্রথমে তাদের পানিতে না ছেড়ে পোল্টি খাবার খাইয়েছি। ডার ফলে আমাদের অনেক টাকা খাবারে ব্যায় হয়েছে। তাছাড়া ১ হাজারের মতো হাঁসের বাচ্চা মরে গিয়েছে। কিছু হাঁস বিক্রি করে দিয়েছি। বর্তমানে ৫ শর মতো হাঁস রয়েছে। এখন গড়ে প্রায় দেড় শতাধিক হাঁস নিয়মিত ডিম দিচ্ছে। নতুন করে ছাগলের খামার করার চেস্টা করছি। বর্তমানে ১৮ টি ছাগল দিয়ে খামারের কাজ শুরু করা হয়েছে। দেশি প্রজাতীর মুরগির খামার করার পরিকল্পনা নিয়েছি। দেশি জাতীয় ২০ টি মুরগী দিয়ে খামারের কাজ শুরা করা হয়েছে। কিছু মেরগি ডিম দেয়া শুরু করেছে। তিনি জানান, কৃষি ব্যাংকে ঋনের জন্য গিয়েছিলাম কিন্তু আমাদের জমি চরাঞ্চলে হওয়ায় ঋন দিতে তারা অপরাগতা প্রকাশ করে। আমার সাথের যে বন্ধুটি খামারের সাথে সম্পৃক্ত সেই বন্ধু বোহান বর্তমানে সৌদি আরবে চলে গেছে।সেখানে আমি ও বোরহান টেইলারিং কাজ করি। খামারটি একটু ভাল ভাবে দাঁড় করাতে পাললে আমি আবার চলে যাব।

রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী হযরত আলী বেপারী বলেন, এটি একটি মহতি উদ্যোগ। আমার ইউনিয়নে এধরনের দুটি খামার রয়েছে। তবে বন্দুকশি বাজারের খামারিরা যদি আমরা আমাদের কাছে কোনো সহায়তা চায় তাহলে আমরা ঋন দিয়ে সহায়তা করবো।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

মতলব উত্তরে তরমুজের বাজারে ‘আগুন’, নেই তদারকি

মতলব উত্তর প্রতিনিধি : তীব্র গরমে একেবারে অতিষ্ঠ মানুষ। এর মাঝে চলছে ...