সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / চাঁদপুরে সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকর করতে কঠোর অবস্থানে মাঠে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন

চাঁদপুরে সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকর করতে কঠোর অবস্থানে মাঠে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন

মানিক দাস //

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সারাদেশের মতো চাঁদপুরেও কঠোর লকডাউন সফল করতে সর্বাত্মক বিধিনিষেধ কার্যকর শুরু হয়েছে। ১৪ এপ্রিল বুধবার সকাল থেকেই বিধিনিষেধ কার্যকরে কঠোর ভূমিকা পালন করছে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন ।

সকাল থেকে শহরের শপথ চত্বর মোড়ে, পালবাজার মোড়, মিশন রোড়, ছায়াবানি মোড়, কুমিল্লা রোড়, বাসস্ট্যান্ড ওয়ারল্যাচ মোড়, ব্বুরহাট সহ বিভিন্ন এলাকায় জেলা প্রশাসন ও পুলিশের পক্ষ থেকে কঠোর তৎপরাতা দেখা গেছে। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরে চলাচলকারীদের তথ্য যাচাই করা হচ্ছে।এছাড়াও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬ টি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়েছে।এদিকে ১সপ্তাহের কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মাছ-তরকারির বাজার খোলা মাঠে সম্প্রসারণ হয়েছে কি না তা সরেজমিনে পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ ও পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার)।

বুধবার সকাল ১১ টায় তারা স্বশরীরে শহরের পালের বাজারে গিয়ে এই বাজারের ব্যবসায়ীদের উদাসীনতা দেখে হতাশা ব্যক্ত করেন। এসময় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বাজারের সকল মাছ- তরকারি ও মাংসের দোকারগুলো পূর্ব নির্ধারিত পাল বাজার থেকে ঈদগাহ মাঠে স্থনান্তর করতে ৩০ মিনিটের আল্টিমেটাম দেন।
তারা জানান, যারা খোলা মাঠে দোকান নিবে না, তাদের দোকান বন্ধ থাকবে। কেউ যদি এ সিদ্ধান্ত অমান্য করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। দেশের শান্তি শৃঙ্খলার কথা চিন্তা করতে হবে। সবাইকে সাবধান এবং নিয়মের মধ্যে থাকতে হবে।প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার জেলা প্রশাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ সভায় সর্বসম্মতি ক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়,
শহরের পাল বাজারের তরকারি ও মাছের দোকান বসবে পাশ্ববর্তি পৌর ঈদগাহ মাঠে, বিপনীবাগের তরকারি ও মাছের বাজার বসবে পাশ্ববর্তী চাঁদপুর সরকারি কলেজ মাঠে, ওয়ারল্যাছ বাজারের তরকারি ও মাছের বাজার বসবে পাশ্ববর্তী রাস্তার দুই পাশে, আর বাবুরহাট বাজারের তরকারি ও মাছের বসবে পাশ্ববর্তী বাবুরহাট কলেজ মাঠে। প্রতিটি দোকান ৩ ফুট দূরত্বে বসবে। এই নিয়ম সকলকেই মানতে হবে।
সকাল থেকেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান মাহমুদ ডালিমের নেতৃত্বে একাধিক বার পালবাজার ব্যবসায়িদের বুঝানো হয়। নেই নিচ্ছি বলে কাল খ্যাপন করতে থাকে। জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ পালবাজারে প্রবেশ করলে কালখ্যাপ কারিদের টনক নরে। এ সময় আরো উপস্হিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অসিম কুমার বণিক, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান মাহমুদ ডালিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল স্নিগ্ধা সরকার, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুর রশীদসহ পুলিশ সদস্যরা।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

করোনায় আক্রান্ত তসলিমা নাসরিন

ক্রাইম এ্যাকশন ডেস্ক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ভারতে অবস্থান করা বাংলাদেশি লেখক তসলিমা ...