সর্বশেষ সংবাদ
Home / লাইফস্টাইল / রসুনের ৮ স্বাস্থ্যকর গুণ

রসুনের ৮ স্বাস্থ্যকর গুণ

নিজস্ব প্রতিবেধক
আমাদের সবার রান্নাঘরে সবসময় রসুনের উপস্থিতি থাকে। রসুন যে কোনো খাবারে অন্যান্য স্বাদ যুক্ত করে। এর শক্তিশালী ঘ্রাণের জন্য মসলা ছাড়াও আচার ও মুখরোচক খাবার তৈরিতে জুড়ি নেই। এছাড়া রসুন ছাড়া কোনো রান্নার কথা চিন্তাই করা যায় না। রসুনের মধ্যে রয়েছে এলিসিন নামে অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান, যা সেলেনিয়াম ক্যানসার প্রতিরোধে দারুণ কাজ করে।

রসুনে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সালফার, আর্জিনাইন, অলিগোস্যাকারাইডস, ফ্ল্যাভনয়েডস এবং সেলেনিয়াম। ১০০ গ্রাম খাদ্যোপযোগী রসুনে রয়েছে ১৪৯ ক্যালোরি, ০.৫ গ্রাম ফ্যাট, ১৭ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৪০১ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম, ৩৩.০৬ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ১ গ্রাম চিনি এবং ৬.৩৬ গ্রাম ভিটামিন। এছাড়াও খালি পেটে রসুন খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো।

বাংলাদেশ জার্নালের পাঠকদের জন্য নিচে তুলে ধরা হল রসুনের ৮ স্বাস্থ্যকর গুণ সম্পর্কে-

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি করে: রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধিতে রসুনের গুরুত্ব অনেক। রসুনের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল গুণ যা ওষুধের মতো কাজ করে। তবে খালি পেটে রসুন খেলে উপকার বেশি। চর্মরোগ প্রতিরোধক ও প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে রসুন। বর্তমানে মহামারি পরিস্থিতিতে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধিতে, দুই কোয়া রসুন খেতে পারেন প্রতিদিন।

রক্ত সঞ্চালন: প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে রক্ত সঞ্চালন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। যার ফলে রক্তে বাধাগ্রস্ত যে সব রোগ আছে, সেগুলো আর হতে পারবে না।

ক্যানসার প্রতিরোধ করে: প্রতিদিন নিয়মিত কাঁচা ও রান্না রসুন খেলে পাকিস্থলি ও কোলন ক্যানসার প্রতিরোধ করা যায়। শরীরে সব ধরনের ক্যানসার প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি হয় নিয়মিত রসুন খেলে।

হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখে: হৃদপিণ্ডের নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যায়। এই রোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। তবে হৃদপিণ্ডের বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে রসুন। খুব সহজেই রক্তে থাকা কোলস্টেরলের মাত্রাকে কমিয়ে আনে রসুন। যা হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমিয়ে আনে অনেকাংশে। এছাড়াও রসুন রক্তকে জমাট বাঁধতে দেয় না।

হৃদরোগ থেকে রক্ষা পেতে: কেলেস্টেরলের মাত্রা অনেক কমানো যায় যদি প্রতিদিন রসুনের কয়েকটি কোয়া কাঁচা বা আধা সিদ্ধ করে খাওয়া যায়। রসুন কাজ করে রক্তচাপ ও রক্তে চিনির মাত্রা ঠিক রাখতেও। রসুনের মধ্যে থাকা সালফার-ভিত্তিক যৌগ অ্যালিসিন মূলত স্বাস্থ্যে এই ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। তবে মনে রাখতে হবে রসুন কাঁচা খেলে সবচেয়ে ভালো ফল পাওয়া যায়।

অন্ত্রের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিতে: যকৃত এবং মূত্রাশয় যদি ঠিকঠাক কাজ না করে তবে শরীরের অন্যান্য অঙ্গ প্রতঙ্গেও এর বিরূপ প্রভাব পড়ে। তাই যকৃত এবং মূত্রাশয় সঠিকভাবে কাজ করার জন্য খালি পেটে রসুন খাওয়া ভালো। এছাড়াও এসিডিটি সমস্যারও সমাধানও পাওয়া যায় রসুন খেলে।

ত্বক ও চুল ভালো রাখে: ত্বক ভালো থাকবে প্রতিদিন খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে, সাথে বার্ধ্যকের ছাপ পড়বে না। এছাড়া ফাঙ্গাশ ও ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে ত্বক সুরক্ষায় নিয়মিত রসুন খেতে হবে। তবে চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজাতে ভালো কাজ করে রসুন। এই উপকার পেতে নিয়মিত মাথায় রসুনের নির্যাস বা রসুন সমৃদ্ধ তেল ব্যবহার করতে হবে।

ঠাণ্ডা ও জ্বর সারাতে: রসুন হতে পারে এক মহৌষধ যারা প্রায় সময় ঠাণ্ডা ও জ্বরে ভুগছেন। তারা প্রতিদিন দু-তিন কোয়া রসুন কাঁচা খেতে পারেন। চায়ের সাথেও খাওয়া যেতে পারে রসুন। এভাবে নিয়মিত রসুন খেলে ঠাণ্ডা ও জ্বর শুধু সাময়িক দূর হবে না বরং শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকেও বাড়াবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

ইফতারে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার চিকেন মোমো

লাইফস্টাইল ডেস্ক ইফতারে ভাজা-পোড়া জাতীয় খাবার এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা আর ...