সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / সাতকানিয়ায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করল পুলিশ

সাতকানিয়ায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করল পুলিশ

দেলোয়ার হোসেন রশিদী, লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি ঃ

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় পারভিন আক্তার (২৩) নামে অন্তঃসত্তা এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। গত ১৮ জুলাই রবিবার রাতে উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড গোয়ালউড়া এলাকার শ্বশুরবাড়ির শয়ন কক্ষের খাট থেকে এ লাশ উদ্ধার করা হয়। পরিবারের দাবী মেয়েকে পিটিয়ে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। পুলিশ বলছে, পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটতে পারে।

তবে ঘটনার পর স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন গা ঢাকা দিয়েছে। এ ব্যাপারে গৃহবধুর চাচা শ্বশুর সোলেমান বাঁশী বলেন, “জামাইয়ের জ্বর হয়েছিল। বউকে বলেছে কাঁথা দিতে, কিন্তু দেয়নি। এরপর উভয়েই প্রথমে তর্কাতর্কি, পরে হাতাহাতিতে লিপ্ত হয়। হয়তো অভিমান করে বউ ঘরের দরজা বন্ধ করে ছাদের বীমের সাথে গলায় উড়না পেঁছিয়ে আত্মহত্যা করে।” তিনি আরো বলেন, “খবর পেয়ে আমিসহ এলাকার কয়েকজন গিয়ে দরজা ভেঙ্গে পারভিন আক্তারকে বীমের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করি। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ থানায় নিয়ে যায়।” তার দুই বছর বয়সী এক কন্যা সন্তান রয়েছে। এ ব্যাপারে গৃহবধুর পিতা আমিন শরীফ বলেন, “মেয়ের চাচা শ্বশুর সোলেমান বাঁশীর মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি, মেয়ের মৃত দেহ খাটের উপর শোয়ানো অবস্থায় পড়ে আছে। ঘটনার পর থেকেই শ্বশুরবাড়ির লোকদের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

আমার মেয়ে তিন মাসের অন্তঃস্বত্তা।” তিনি আরও বলেন, “মেয়ের সাথে স্বামী ও শশুর বাড়ির লোকদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রায় সময় ঝগড়া হতো। গত জুন মাসে আমার বাড়ি এসে মেয়ে শ্বশুর বাড়িতে ফিরে যেতে চাইনি। আমি জোর করে পাঠিয়েছিলাম। গত রমজান মাসেও পারিবারিক সমস্যা হয়েছিল। পরে বিষয়টি মীমাংসা হয়। বিগত কয়েকমাস আগে মেয়ের ননদ মন্তু ও তার পরিবারের লোকজন আলোচনা করছিল মেয়েকে মেরে ফেলার। তারা বলেছে আমি গরীব। মেয়েকে মেরে ফেললেও আমি কিছুই করতে পারবো না।

স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পূর্বপরিকল্পিতভাবে মেয়েকে পিটিয়ে হত্যা করে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।” সাতকানিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, “ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের নিকট লাশ বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। লাশের গলায় দাগ ও বাম চোখের নিচে পুরনো একটি ছোট দাগ ছাড়া শরীরে অন্য কোন আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। ঘটনার দিনও স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল। প্রাথমিক ধারণা, পারিবারিক কলহে গৃহবধু আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়েছে।”

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

Leave a Reply

x

Check Also

চাঁদপুরে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের আতঙ্ক নিয়েই ঈদ, উদযাপন করছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

মানিক দাস // মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের আতঙ্ক নিয়েই আরও একটি ঈদুল কোরবানির ...